৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সেই ২০০৬ সাল থেকে টি-টোয়েন্টিতে দলকে নেতৃত্ব দিয়ে এসেছেন। তাঁর অধিনায়কত্বে ৩২টি কুড়ি-বিশের ম্যাচ খেলেছে ভারতীয় প্রমিলাবাহিনী। দীর্ঘ ১৩ বছরের এই সফরে এবার ইতি টানলেন মিতালি রাজ। মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর ঘোষণা করলেন তিনি।

২০২১ সালেই ৫০ ওভারের বিশ্বকাপে ফের অধিনায়ক হিসেবে নামবেন তিনি। এই ফরম্যাটই আপাতত তাঁর ধ্যান-জ্ঞান। আর সেই কারণেই টি-টোয়েন্টিকে বিদায় জানানোর সিদ্ধান্ত নিলেন মিতালি। অধিনায়ক বলেন, “২০০৬ সাল থেকে দলকে টি-টোয়েন্টিতে নেতৃত্ব দিচ্ছি। এবার এই ফরম্যাট থেকে অবসর নিতে চাই। ২০২১ সালে ওয়ানডে বিশ্বকাপ। দেশের জন্য বিশ্বকাপ জয়ের স্বপ্ন এখনও অধরা থেকে গিয়েছে। তাই এবার নিজের সেরাটা উজার করে দিতে চাই। আমায় দীর্ঘদিন ধরে সমর্থন করায় বিসিসিআই ধন্যবাদ জানাই। ঘরের মাঠে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে খেলার জন্য ভারতীয় টি-টোয়েন্টি টিমের জন্য অনেক শুভেচ্ছা রইল।”

[আরও পড়ুন: রোহিতের টেস্ট কেরিয়ার কি শেষের পথে? বিহারীর উত্থানে জল্পনা তুঙ্গে]

১৩ বছর আগে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টি কেরিয়ার শুরু করেছিলেন মিতালি। দেশের জার্সি গায়ে খেলেছেন ৮৮টি ম্যাচ। ভারতীয় হিসেবে সর্বোচ্চ এবং বিশ্ব মহিলা ক্রিকেটে তৃতীয় সর্বোচ্চ ২৩৬৪ রানের মালকিনও তিনি। যার মধ্যে রয়েছে ১৭টি হাফ সেঞ্চুরি। গড় ৩৭.৫২। একমাত্র ভারতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে দু’হাজার রান করার নজিরও গড়েছেন তিনি। যে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে কেরিয়ার শুরু করেছিলেন তাদের বিরুদ্ধেই শেষ টি-টোয়েন্টি ম্যাচটি খেলেছেন মিতালি।

গত বছর বিশ্ব টি-টোয়েন্টির সেমিফাইনালে তাঁকে প্রথম একাদশে না রাখা নিয়ে বিস্তর জলঘোলা হয়েছিল। ক্যাপ্টেন হরমনপ্রীতের সিদ্ধান্ত সমালোচিত হয়েছিল ক্রিকেট মহলে। এমনকী তাঁকে না রাখাই যে দলের হারের অন্যতম কারণ, তেমন অভিযোগও তুলেছিলেন কেউ কেউ। হরমনপ্রীতের সঙ্গে মনোমালিন্যের জেরেই তিনি বাদ পড়েছিলেন, এমন দাবিও তোলা হয়। যদিও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক পরে জানিয়েছিলেন, তাঁদের মধ্যে কোনও অন্তর্দ্বন্দ্ব নেই। তবে অভিজ্ঞ মিতালির অবসর যে ভারতীয় দলে একটা বড় শূন্যস্থান তৈরি করল, তা বলাই বাহুল্য।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং