BREAKING NEWS

১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

হারের পর সাংবাদিক সম্মেলনে মেজাজ হারালেন বিরাট, দেখুন ভিডিও

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 17, 2018 2:41 pm|    Updated: September 17, 2019 4:32 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: এক টেস্ট বাকি থাকতেই সিরিজ হাতছাড়া হয়েছে। নিউল্যান্ডসের পর সেঞ্চুরিয়নেও তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়েছে ভারতীয় ব্যাটিং অর্ডার। স্বাভাবিকভাবেই এদিন হারের পর যে সাংবাদিকদের বিষাক্ত প্রশ্নের মুখে পড়তে হবে, তা ভালই জানতেন বিরাট কোহলি। আর হলও তাই। দল বাছাই নিয়ে প্রশ্ন উঠতেই মেজাজ হারালেন ভারত অধিনায়ক।

[ফের ভরাডুবি ব্যাটিংয়ের, মাত্র সোয়া দু’ঘণ্টায় সব প্রতিরোধ শেষ বিরাটদের]

২০১৪ সালে মহেন্দ্র সিং ধোনির থেকে নিজের কাঁধে নেতৃত্ব নেওয়ার পর প্রথমবার টেস্ট সিরিজ হারলেন বিরাট। আর সেঞ্চুরিয়নে হারের জন্য বারবার প্রথম একাদশ নির্বাচনের গাফিলতিকেই বড় করে তুলে ধরা হচ্ছে। তবে সে কথা মানতে নারাজ বিরাট। তাঁর বক্তব্য, একটা টেস্ট জিততে হলে ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিং তিনটি বিভাগেই ভাল পারফর্ম করতে হয়। সেটাই করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। সেই কারণেই তারা জয়ী। কিন্তু ভারতীয় দলের তিনটি বিভাগ একসঙ্গে ভাল পারফর্ম করেনি। বোলিং বিভাগ যেখানে দুর্দান্ত খেলেছে, সেখানে চূড়ান্ত ব্যর্থ ব্যাটিং লাইন-আপ। আর তাই দ্বিতীয় টেস্টও হাতছাড়া হয়েছে। এই প্রসঙ্গেই সাংবাদিক সম্মেলনে এক প্রোটিয়া সাংবাদিক প্রশ্ন করেন, বারবার প্রথম একাদশ পরিবর্তন করাই কি দলের খারাপ পারফরম্যান্সের কারণ? টেস্ট ম্যাচে ঘনঘন দল বদলে ফেলা ধারাবাহিকতায় বাধা হয়ে দাঁড়ায়। তাহলে কীভাবে ক্যাপ্টেন কোহলি একজনকে এক ম্যাচ খেলিয়ে পরের ম্যাচেই বসিয়ে দেন আর প্রত্যাশা করেন দল বদলে জয় আসবে? এই প্রশ্ন শুনেই তেলে বেগুনে জ্বলে ওঠেন বিরাট। সদ্য সাত পাকে বাঁধা পড়া ভারত নেতা বেশ বিরক্ত হয়েই পালটা দেন ওই সাংবাদিককে। জিজ্ঞেস করেন, “গত ৩০টা ম্যাচে ভারত কটা জিতেছে জানেন? ২১টা জয়, দু’টো হার আর কটা ড্র?” সাংবাদিক আবার প্রশ্ন করেন, “ভারতের মাটিতে ক’টা সেটা বলুন?” এমন তর্কে আরও রেগে যান বিরাট। বলেন, “সেটা বড় বিষয় নয়। আমরা যেখানেই খেলি নিজেদের সেরাটা দেওয়ারই চেষ্টা করি। আমি এখানে আপনাদের প্রশ্নের উত্তর দিতে এসেছি। আপনার সঙ্গে লড়াই করতে নয়।”

[মোহনবাগানের এখনও অাই লিগ জয় সম্ভব, শহরে এসেই জানালেন অাক্রম]

এখানেই সেই বিতর্ক ধামাচাপা পড়লেও বিরাট যে রেগেই ছিলেন, তা পরের প্রশ্নে ফের বোঝা গেল। অন্য এক সাংবাদিকের প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে তিনি ফের প্রোটিয়া সাংবাদিকের উদ্দেশে বলেন, “ভারতের মাটিতে ক’টি ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকা প্রায় জয়ের দোরগোড়ায় পৌঁছে গিয়েছিল? গুণে বলতে পারবেন?” সেই সময় বাকি সাংবাদিকরাই বিরাটকে বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। পাশাপাশি দল বাছাই নিয়ে আরেক সাংবাদিকের প্রশ্নে ক্ষুব্ধ বিরাট বলেন, “আপনিই তাহলে প্রথম একাদশ বেছে দিন, আমরা খেলি।”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement