BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

এবার থেকে ফুটবল মাঠে কাশলেই সরাসরি লাল কার্ড?‌ রেফারিদের জন্য জারি নয়া নির্দেশিকা

Published by: Abhisek Rakshit |    Posted: August 3, 2020 5:37 pm|    Updated: August 3, 2020 5:37 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:‌ করোনার কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর ফের ফুটবল মাঠে বল গড়াতে শুরু করেছে। তবে অবশ্যই রয়েছে একাধিক বিধিনিষেধ। তবে এসবের পাশাপাশিই এবার নতুন নিয়ম আনল ইংল্যান্ড ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন বা FA। এবার থেকে ম্যাচ চলাকালীন বিপক্ষ খেলোয়াড় বা ম্যাচ পরিচালনার দায়িত্বে থাকা আধিকারিকদের সামনে ইচ্ছাকৃতভাবে কাশলেই বিপদ। সেক্ষেত্রে ওই খেলোয়াড়কে সরাসরি লাল কার্ড দেখাতে পারেন রেফারি। অর্থাৎ ম্যাচে আর অংশ নিতে পারবেন না ওই খেলোয়াড়। তবে অনিচ্ছাকৃতভাবে কেউ যদি কেশে ফেলেন, সেক্ষেত্রে অবশ্য কোনওপ্রকার শাস্তি হবে না। সম্প্রতি নয়া নির্দেশিকা জারি করে এমনটাই জানানো হয়েছে FA–র তরফে।

[আরও পড়ুন: কর্পোরেট জগতে নিজেদের মুখে কালি ছিটিয়েছে ইস্টবেঙ্গল, বিস্ফোরক বাইচুং]

তাতে স্পষ্ট বলা হয়েছে, বিপক্ষের কোনও খেলোয়াড় বা ম্যাচ পরিচালনার দায়িত্বে থাকা কোনও আধিকারিকের সামনে কোনও খেলোয়াড় ইচ্ছাকৃতভাবে কাশলে, রেফারি মনে করলে তখনই ওই খেলোয়াড়কে লাল কার্ড (Red Card) দেখাতে পারেন। মাঠের মধ্যে অশালীন আচরণের অন্তর্গত ধরা হবে এই অপরাধকে।

[আরও পড়ুন: জন্মদিনে অনন্য সম্মান, গতবারের এশিয়ান কাপের জনপ্রিয়তম ফুটবলার নির্বাচিত হলেন সুনীল]

তবে এর পাশাপাশি বলা হয়েছে, রেফারি যদি মনে করেন দোষ তেমন গুরুতর নয়, সেক্ষেত্রে কেবলমাত্র হলুদ কার্ড দেখিয়ে সতর্ক করা হবে অভিযুক্ত খেলোয়াড়কে। তবে সেখানে স্পষ্ট জানানো হয়েছে, কোনও খেলোয়াড় অনিচ্ছাকৃত এই ভুল করে থাকলে রেফারি তাঁকে যেন শাস্তি না দেন। এছাড়াও খেলোয়াড়রা যাতে মাঠের যত্র–তত্র থুতু না ফেলেন, সে ব্যাপারেও সতর্ক থাকতে হবে রেফারিকেই।

করোনার (Coronavirus) কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর অবশেষে চালু হয়েছে বিভিন্ন দেশের ফুটবল লিগগুলো। ইতিমধ্যে লা লিগা (La liga), সিরি আ (Serie A), প্রিমিয়ার লিগের (EPL) ফয়সালাও হয়ে গিয়েছে। তবে কোনও টুর্নামেন্টেই মাঠে দর্শকদের প্রবেশাধিকার দেওয়া হয়নি। পাশাপাশি দলগুলো এবং তাঁদের খেলোয়াড়দের জন্য চালু করা হয়েছে একাধিক স্বাস্থ্যবিধি। আর তারই একটি হল যত্রতত্র না কেশে ওঠা। কারণ কাশির মাধ্যমে করোনা সংক্রমণের সুযোগ সবসময় বেশি থাকে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement