BREAKING NEWS

১৮ অগ্রহায়ণ  ১৪২৯  সোমবার ৫ ডিসেম্বর ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

আইএসএলে এখনই নয় অবনমন! ভারতীয় ফুটবলে দু’বছর পিছিয়ে যেতে পারে AFC’র দেওয়া রোডম্যাপ

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: September 15, 2022 1:20 pm|    Updated: October 10, 2022 2:13 pm

Indian football roadmap may be postponed for two years | Sangbad Pratidin

দুলাল দে: ভারতীয় ফুটবল নিয়ে এএফসি (AFC) যে রোডম্যাপ করেছিল, তাতে পরের মরশুম থেকেই আই-লিগ চ্যাম্পিয়ন দলের সরাসরি খেলার কথা আইএসএলে। আর দু’মরশুম পর থেকে আইএসএলের একটি দলের অবনমন হয়ে নেমে যাওয়ার কথা আই-লিগে। কিন্তু কোভিড পরবর্তী পরিস্থিতিতে এখন যা অবস্থা, তাতে খুব সম্ভবত, আগামী দু’বছর ভারতীয় ফুটবলে এএফসির রোডম্যাপ মেনে চলার সম্ভাবনা নেই। আরও দু’বছর পর আই লিগের চ্যাম্পিয়ন দল সরাসরি আইএসএলে খেলার সুযোগ পেলে, আইএসএলের (ISL) দলের অবনমন হবে আরও দু’বছর পর।

ভারতীয় ফুটবলে কান পাতলে যা শোনা যাচ্ছে, তাতে সামনের মরশুম থেকে এফএসডিএলে (FSDL) আর মালিকানা থাকছে না স্টার কর্তৃপক্ষর। আইএমজি (IMG) বিদায় নেওয়ার পর এই মুহূর্তে এফএসডিএলে রিলায়েন্সের শেয়ার রয়েছে ৬৫ শতাংশ। স্টার কর্তৃপক্ষর ৩৫ শতাংশ। স্টার মালিকানায় থাকায়, টিভি সম্প্রচার বাবদ কোনও অর্থই পায় না এফএসডিএল। ফলে আইপিএলের (IPL) দলগুলি যেরকম টিভি সম্প্রচার থেকে একটা লভ্যাংশ পেয়ে থাকে, আইএসএলের ক্ষেত্রে সেরকমটা হয় না। আপাতত যা ঠিক হয়েছে, তাতে সামনের মরশুম থেকে স্টার (Star India) সম্ভবত এফএসডিএলের মালিকানা ছেড়ে দিচ্ছে। যার ফলস্বরূপ এফএসডিএলের ১০০ শতাংশ মালিকানা চলে আসবে রিলায়েন্সের হাতে। আর এখানেই একটা প্রশ্ন উঠছে, তাহলে সামনের মরশুম থেকে আইএসএল সম্প্রচারিত হবে কোন চ্যানেলে?

[আরও পড়ুন: এবার আইসিসির পথে সৌরভ, বোর্ডের মসনদে জয় শাহ? সুপ্রিম রায়ের পরই শুরু জল্পনা]

স্টার সরে গেলেও, ম্যাচ সম্প্রচার নিয়ে অবশ্য কোনও সমস্যাই নেই এফএসডিএলের। কারণ, ঘরের চ্যানেল ‘স্পোর্টস ১৮’ আছে। কিন্তু এফএসডিএল কর্তারা চাইছেন, স্টার সরে গেলে, আইএসএলের ম্যাচ সম্প্রচার নিয়ে বিডের আয়োজন করতে। আর এ ব্যাপারে এই মুহূর্তে যা শোনা যাচ্ছে, সামনের মরশুমের আইএসএল সম্প্রচার করার জন্য ইতিমধ্যেই ‘সোনি’ (Sony) আগ্রহ দেখিয়েছে। সোনিকে ম্যাচ সম্প্রচারের চ্যানেল হিসেবে পাওযা গেলে, টেলিকাস্ট রাইটস থেকে আইএসএলের ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলিও আর্থিকভাবে লাভবান হবে।

[আরও পড়ুন: নাম জড়িয়েছিল ম্যাচ গড়াপেটায়, রুজিরুটির জন্য বেচতেন জুতো, প্রয়াত সেই পাক আম্পায়ার]

আর এখানে এসেই মূল সমস্যা দেখা দিয়েছে। সোনি কিংবা অন্য কোনও চ্যানেলকে আইএসএলের টেলিকাস্ট রাইটস তুলে দিতে গিয়ে এখনই আইএসএলের দলগুলির ওঠানামা নিয়ে কথা বলতে চাইছে না এফএসডিএল। এর একটাই কারণ, কোভিড (COVID-19) পরিস্থিতিতে গত দু’বছরে আইএসএল নিয়ে আর্থিকভাবে খুবই খারাপ জায়গায় রয়েছে এফএসডিএল। এই অবস্থায় আই লিগের চ্যাম্পিয়ন দলকে আইএসএলে নিলে সেই দলের ফ্র্যাঞ্চাইজি ফি নেওয়া যাবে না। পর পর দু’বছর দুটি দল উঠে মোট দল সংস্থা হবে ১৩। ফলে খেলাও বাড়বে। আর তাতে সম্প্রচার থেকে খরচ সব কিছুই বাড়বে। অথচ অন্য দলগুলি ফ্র্যাঞ্চাইজি ফি দিলেও আই লিগের দুটি দল দেবে না। একই সঙ্গে অবনমন চালু হলে টিভি চ্যানেলের সমস্যা। এখনও পর্যন্ত কেরালা আর বাংলাতেই সবচেয়ে বেশি টিভির দর্শক। এই দুটো রাজ্যের কোনও দল আইএসএল থেকে নেমে গেলে, সমস্যায় পড়ে যাবে প্রচুর অর্থ দিয়ে টিভি রাইটস পাওয়া চ্যানেল। ফলে এএফসির রোড ম্যাপ মেনে এফএসডিএল যদি এখনই আইএসএলের ওঠা-নামা নিয়ে প্রজেক্ট তৈরি করে, তাহলে টিভি চ্যানেল পেতে সমস্যা হতে পারে। ফলে আর্থিক ভাবে ঠিক জায়গায় আসার জন্য এএফসির রোড ম্যাপ আরও অন্তত দুটো বছর পিছিয়ে দিতে পারে এফএসডিএল।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে