২১ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  রবিবার ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

স্টাফ রিপোর্টার: আগেই ঘোষণা হয়ে গিয়েছিল। বাকি ছিল শুধু শিলমোহর পড়া। শনিবার সরকারিভাবে সেই স্বীকৃতি দিয়ে দিল এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন বা এএফসি। জানিয়ে দিল ভারতীয় ফুটবলে আইএসএল হল এক নম্বর লিগ। সেই সঙ্গে এএফসি এও জানিয়ে দিয়েছে, ২০২০-২১ মরশুমের শেষে দু’টো আই লিগ দল আইএসএল খেলতে পারবে। শর্ত একটাই, ইন্ডিয়ান সুপার লিগের যাবতীয় শর্তাবলী পূরণ করত হবে।


অর্থাৎ দুই প্রধানের আইএসএল খেলার দরজা খুলে দিল এএফসি। তাছাড়া আইএসএল চ‌্যাম্পিয়ন দল খেলতে পারবে এএফসি চ‌্যাম্পিয়ন্স লিগের প্লে-অফে। এএফসি কাপ প্লে-অফ খেলবে আই লিগের সেরা দল। গত ১৪ অক্টোবর কুয়ালালামপুরে ডাকা সভায় যোগ দিয়েছিল আইএসএল, আই লিগ ক্লাবের প্রতিনিধিরা। আইএমজি-আর প্রতিনিধিদের সঙ্গে ছিলেন ফেডারেশনের কর্তারাও। ২০২২-২৩, ২০২৩-২৪ থেকে আই লিগের চ‌্যাম্পিয়ন দল খেলবে আইএসএলে। সেই দলকে কোনও ফি দিতে হবে না। সেই সময় থেকেই আইএসএল-এ চালু হয়ে যাবে নামা-ওঠা। এক বিবৃতিতে এএফসি জানিয়েছে, ‘‘২০২৪-২৫ থেকে দু’টো লিগের আর অস্তিত্ব থাকবে না। একটা লিগকে সামনে রেখে এগোবে ফেডারেশন।’’

[আরও পড়ুন: ঘরের মাঠে দুর্দান্ত জয়, আনকোরা হায়দরাবাদকে গোলের মালা পরাল এটিকে]

আই লিগ এবং আইএসএলের এই দ্বন্দ্ব দীর্ঘদিনের। কলকাতার দুই ঐতিহ্যবাহী ক্লাবের আইএসএলে সংযুক্তিকরণ নিয়েও জল্পনা চলছে ২ বছর ধরে। যদিও, ইস্টবেঙ্গল এবং মোহনবাগান দুই ক্লাবই আইএসএলের ফ্র্যাঞ্চাইজি ফি দিতে নারাজ। তার উপর আবার আইএসএলে এক শহরে এক ক্লাব খেলানোর নিয়ম আছে। কিন্তু কলকাতার দুই প্রধানকে বাদ দিয়ে দেশের প্রথম সারির টুর্নামেন্ট আয়োজনও কঠিন ছিল। তাই ফেডারেশন ‘ধরি মাছ না ছুঁই পানি’র মতো পদক্ষেপ করে। আপাতত কলকাতার দুই প্রধানকে ছাড়াই আইএসএলকে শীর্ষ লিগ ঘোষণা করা হল। এরপর অবশ্য কলকাতার দুই প্রধানের জন্য আইএসএলে খেলার রাস্তা খোলা রইল। কিন্তু, সেক্ষেত্রেও তাদের খেলতে হবে ফ্র্যাঞ্চাইজি ফি দিয়েই। অর্থাৎ, এই মুহূর্তে ইস্টবেঙ্গল এবং মোহনবাগান দুই ক্লাবকেই কার্যত দ্বিতীয় ডিভিশনে খেলতে হচ্ছে।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং