৬ ফাল্গুন  ১৪২৬  বুধবার ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

এটিকে- ০
কেরালা ব্লাস্টার্স- ১ (হোলিচরণ নার্জারি)

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফের ঘরের মাঠে আটকে গেল এটিকে। রবিবাসরীয় সন্ধেয় যুবভারতীতে কেরালা ব্লাস্টার্সের কাছে হেরে গেল কলকাতা। হোলিচরণ নার্জারির দুর্দান্ত গোলে জিতল কেরালা ব্লাস্টার্স। এটাই এই মরশুমে তাদের প্রথম অ্যাওয়ে ম্যাচে জয়। অন্যদিকে, গত ম্যাচে জয়ের রেশ এদিন উধাও এটিকের খেলায়। আর সাইডলাইনে দাঁড়িয়ে দলের হতাশাজনক ফুটবল দেখে রেগে আগুন হলেন কোচ হাবাস।

গত ম্যাচে মুম্বইকে তাদের ঘরের মাঠে হারিয়ে লিগের শীর্ষে উঠে এসেছিল এটিকে। এদিনও জয় নিয়ে আশাবাদী ছিলেল এটিকের ফুটবলাররা। প্রথমার্ধে গোলশূন্য ছিল খেলার ফল। তবে খেলার রাশ ছিল এটিকের হাতেই। গোল করতে না পারলেও আক্রমণ শানাচ্ছিলেন রয় কৃষ্ণরা। কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে খেলার গতির বিপরীতে আচমকা গোল খেয়ে যায় এটিকে। ৭০ মিনিটের মাথায় কেরালার নার্জারি বক্সের বাইরে থেকে দুর্দান্ত শটে পরাস্ত করেন কলকাতার গোলকিপার অরিন্দম ভট্টাচার্যকে। বিশ্বমানের গোল বললে বেশি বলা হবে না একে।

[আরও পড়ুন: স্প্যানিশ সুপার কাপের সেমিফাইনালে হার বার্সার, মেজাজ হারিয়ে সতীর্থদের দুষলেন মেসি]

সেই গোল খেয়ে যাওয়ার পর ম্যাচে ফেরার অনেক চেষ্টা করেন এটিকের ফুটবলাররা। কিন্তু দৌড়োদৌড়িই সার। কাজের কাজ কিছু করতে পারেননি তাঁরা। ম্যাচের শেষ লগ্নে রয় কৃষ্ণের একটি জোরালো শট বাঁচিয়ে দেন কেরালার গোলকিপার রেহনেশ। ওই গোল সেভ করে টিমের জয় কার্যত নিশ্চিত করে দেন রেহনেশ। ইনজুরি টাইমে এটিকের ফুটবলাররা বেশ কয়েকবার মাথা গরম করে ফেলেন। একাধিকবার রেফারির উপরও চড়াও হন। গোল না পাওয়ার হতাশা ফুটে উঠছিল তাঁদের শরীরী ভাষায়। একসঙ্গে ডাগ আউটেও দুই দলের সাপোর্ট স্টাফদের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। মাথা গরম করে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন হাবাস। এসবের জেরে সময় নষ্ট ছাড়া আর কোনও লাভই হয়নি।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং