২১ আষাঢ়  ১৪২৭  সোমবার ৬ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

‘আইএসএল খেলতে হলে নিয়মমতো আবেদন করতে হবে ইস্টবেঙ্গলকে’, জানিয়ে দিল FSDL

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: April 25, 2020 11:49 am|    Updated: April 25, 2020 3:31 pm

An Images

স্টাফ রিপোর্টার: ইস্টবেঙ্গল (East Bengla) এই মরশুমে আইএসএল খেলবে। এখনও ইনভেস্টরের নাম না জানালেও, লাল-হলুদ শীর্ষ কর্তার এই দাবি পর্যন্ত ঠিক ছিল। সব ছাপিয়ে এখন লাল-হলুদের নতুন দাবি, তারা নাকি বুধবার আইএসএল খেলার জন্য বিড পেপার পর্যন্ত তুলে নিয়েছে! যা নিয়ে তীব্র চাঞ্চল্য তৈরি হয়ে গিয়েছে খোদ এফএসডিএলের (Football Sports Development limited) অন্দরেই। এফএসডিএল কর্তারা বলছেন, “ধরেই নিচ্ছি, অনলাইনে বিড পেপার তুলেছে। তাহলে সেই ওয়েবসাইট কিংবা বিড পেপার ডাউনলোড করার লিংকটাও দয়া করে জানান। আর যদি কেউ দাবি করেন, রিলায়েন্স অফিসে গিয়ে আইএসএলের বিড পেপার তুলে এনেছেন, তাঁদের উদ্দেশে বলছি, করোনার কারণে রিলায়েন্স অফিস আপাতত বন্ধ । তাছাড়া আমরা যদি বিড-এর দিন ঘোষণা করি, তার জন্য সংবাদপত্রে তো একটা বিজ্ঞাপন দিতে হত। আজ পর্যন্ত কেউ কোথাও দেখেছে এরকম বিজ্ঞাপন! তাহলে ইস্টবেঙ্গল বিড পেপারটা তুলল কী করে?”

 

East-Bengal

ঘটনা হচ্ছে, আজকের দিন পর্যন্ত আইএসএলে দল অন্তর্ভুক্তি নিয়ে এফএসডিএলের পক্ষ থেকে কোনও চিঠি এখনও পর্যন্ত আসেনি লাল-হলুদ তাঁবুতে। আইএসএলে খেলতে চেয়ে ইস্টবেঙ্গল তাঁবু থেকেও এখনও পর্যন্ত কোনও আবেদন পৌঁছয়নি মুম্বইয়ের এফএসডিএল অফিসে। তাহলে সামনের মরশুমের আইএসএলে ইস্টবেঙ্গলের খেলার উপায়টা কী? ফেডারেশন সচিব কুশল দাস বললেন, “ব্যাপারটি অতি সিম্পল। আইএসএল খেলার জন্য ইস্টবেঙ্গল যেদিন প্রতিযোগিতার যাবতীয় অর্থনৈতিক শর্ত মেনে আবেদন করবে, সেই আবেদন সঙ্গে সঙ্গে আমরা এফএসডিএলের কাছে পাঠিয়ে দেব। মোহনবাগান আইএসএলে চলে এসেছে। আমরা চাইছি, ইস্টবেঙ্গলও আইএসএলে খেলুক। কিন্তু তার জন্য শর্তগুলি তো পালন করতে হবে।” যার অর্থ, আইএসএল খেলার জন্য এখনও কোনও আবেদনই করেনি ইস্টবেঙ্গল। ফেডারেশনের এক কর্তা বললেন, “ইস্টবেঙ্গল আইএসএল (Indian Super league) খেলতে চাইলে সমর্থক কিংবা সংবাদ মাধ্যমের কাছে দাবি না করে ফেডারেশন কিংবা এফএসডিএলের কাছেই তো করা উচিত।”

[আরও পড়ুন: কিবুকে অভিনব ফেয়ারওয়েল গিফ্ট, মোহনবাগান ভক্তদের ভালবাসায় আপ্লুত স্প্যানিশ কোচ]

ভারতীয় ফুটবলের রোডম্যাপ নিয়ে এএফসির তরফে অনেক আগেই যা প্রকাশিত হয়েছে, তাতে ২০২৩-২৪ সালের আই লিগ চ্যাম্পিয়ন দল কোনও ফ্র‌্যাঞ্চাইজি ফি না দিয়ে সরাসরি খেলতে পারবে আইএসএলে। তার আগে একমাত্র মোহনবাগান—ইস্টবেঙ্গলের কথা ভেবে এএফসি জানিয়েছে, ভারতীয় ফুটবলের প্রাচীন এই দুই ক্লাব যদি আইএসএল খেলার জন্য যাবতীয় শর্ত পূরণ করে, তাহলে সামনের মরশুমেই নিয়ে নেওয়া হবে। এভাবেই চলে এসেছে মোহনবাগান। এবার পালা ইস্টবেঙ্গলের। এফএসডিএলের মতো ফেডারেশন কর্তারাও অপেক্ষা করে আছেন, কবে নতুন ইনভেস্টরের নাম জানিয়ে আইএসএল খেলার আবেদন করবে ইস্টবেঙ্গল।

[আরও পড়ুন: মানবিক, করোনা যুদ্ধে মানুষের পাশে দাঁড়ালেন মোহনবাগান সমর্থকরা]

আইএসএল নিয়ে বুধবার এফএসডিএলের তরফে যে মিটিংয়ের কথা বলা হচ্ছে, তা ছিল আসলে ভারতীয় ফুটবলের কোর কমিটির মিটিং। যে কমিটিতে ফেডারেশনের তরফে রয়েছেন কুশল দাস আর সুনন্দ ধর। আর এফএসডিএলের তরফে সিইও মার্টিন, চিরাগ তান্না, রৌচক এবং প্রীতি। যে মিটিংয়ে আলোচনা হয়, করোনার প্রকোপে সামনের মরশুমে কবে ফের শুরু হতে পারে ফুটবল। বিদেশি ফুটবলারদের জন্য ভিসাই বা কবে পাওয়া যাবে? বলাই বাহুল্য, এসবের কোনও উত্তরই এই মুহূর্তে নেই ভারতীয় ফুটবল কর্তাদের কাছে। তাই আইএসএল কিংবা আই লিগ কবে শুরু হতে পারে কেউ জানে না। তবে সেই মিটিংয়ে ইস্টবেঙ্গল নিয়ে কোনও আলোচনাই হয়নি।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement