৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

দুলাল দে: সত্যি সত্যিই দেখছি তো! সাদা টি-শার্ট আর ধূসর কটন ট্রাউজার দমদম বিমানবন্দরের বাইরে বেরিয়ে আসছেন।

মজিদ বাসকর! আশির বাদশা-র পা ফের শহরে। তিন দশক বাদে আবার।
যিনি দোহা টু কলকাতা উড়ান ধরার কিছুক্ষণ আগে তেহরান এয়ারপোর্টের লাউঞ্জে বসে তাঁর এবারের ময়দান আবির্ভাবে প্রথম কোনও ভারতীয় সংবাদপত্রে দীর্ঘ সাক্ষাৎকার দিলেন ‘সংবাদ প্রতিদিন’-কে। কলকাতায় নামার পরেও ফোনে উত্তর দিলেন একটা প্রশ্নের।

[আরও পড়ুন: কোফির পাঁচ গোলে ডুবল নেভি, ডুরান্ডে বড় জয় মহামেডানের]

প্রশ্ন: শেষ পর্যন্ত ফিরলেন কলকাতায়?
মজিদ: আমি একাই নই। আমার দুই ভাইপো ফরিদ আর আহমেদ-ও এসেছে। তো দমদম এয়ারপোর্ট থেকে হোটেলে আসার মধ্যেই ওদের বলছিলাম, আরে এ কোন কলকাতা? পঁয়ত্রিশ বছর আগে আমি যে শহরটা ছেড়েছি তার কোনও মিলই নেই। কোনও কিছুই তো চিনতে পারছি না।
(এর আগে সব প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন তেহরান বিমানবন্দর থেকে)
প্রশ্ন: কেমন লাগছে আবার কলকাতায় আসতে?
মজিদ: জানেন কলকাতা জার্নিতে শেষ মুহূর্তে যাতে কোনও সমস্যায় না পড়ি তার জন্য কাল রাতেই খোরামশর থেকে তেহরানে চলে এসেছি। ভাইপো বলছিল, সকালে তেহরান পৌঁছলেও হবে। আমি ঝুঁকি নিতে চাইনি। কোনও কারণে ডোমেস্টিক ফ্লাইট যদি না উড়ত!
প্রশ্ন: ফোনেই গলা শুনে মনে হচ্ছে আপনি দারুণ উত্তেজিত?
মজিদ: কিন্তু সেই তো মুশকিলে পড়ে গেলাম।
প্রশ্ন: কেন? কী হল আবার?
মজিদ: ইমিগ্রেশন মিটিয়ে-টিটিয়ে যখন বোর্ডিংয়ে এগোচ্ছি ঘোষণা হল, দোহার ফ্লাইট চার ঘন্টা লেট। তবে ওখান থেকে কলকাতার ফ্লাইট অনেক দেরিতে থাকায় যা রক্ষে। নইলে কী হত কে জানে!

[আরও পড়ুন: চট্টগ্রামে শেখ কামাল কাপ খেলবে মোহনবাগান, সম্মতি ক্লাবকর্তাদের]


প্রশ্ন: আপনার সফর সঙ্গী তো তিন জন।
মজিদ: দেখুন ইরানে মনে হয় সবাই চায় একবার ভারত ঘুরে দেখতে। ইস্টবেঙ্গল সেন্টেনারিতে যে মুহূর্তে আমার কলকাতায় আসা ফাইনাল হল, ভাইপো ফরিদ বায়না ধরল, আমার সঙ্গে যাবে। ওর খুড়তুতো ভাই সেটা শুনে বলল, সেও আসতে চায় ভারতে। আর ইয়েজদানি হচ্ছে ফরিদের বন্ধু। আসলে ইস্টবেঙ্গল ফের আমাকে কলকাতায় চায় সেটা ইয়েজদানিই আমাকে জানিয়েছিল।
প্রশ্ন: আপনি বেঁচে আছেন কি না, সেটাই কলকাতায় আমরা একটা সময় পর্যন্ত জানতাম না। আর সেই আপনি মজিদ বাসকর আবার কলকাতায়!
মজিদ: আমিও আশা করিনি ফের ইস্টবেঙ্গল ক্লাবে যাওয়ার সুযোগ পাব। জানতামই না, আমাকে ওরা এখনও মনে রেখেছে। কত সব পুরনো স্মৃতি মনে পড়ছে। আচ্ছা, অরুণ ভট্টাচার্য এখনও ক্লাবে আসেন?
প্রশ্ন: আপনাকে যে ইস্টবেঙ্গল কর্তা আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নিয়ে এসেছিলেন তাঁর কথা বলছেন?
মজিদ: হুম।
প্রশ্ন: উনি মারা গিয়েছেন। ওঁর অবশ্য ছেলে আছেন।
মজিদ: আমি তো এখন ইস্টবেঙ্গলের প্রায় কাউকেই চিনব না। তো ও এলে দেখা হবে।
প্রশ্ন: হোয়াটসঅ্যাপে দেখছি আপনি সাদা টি-শার্ট। আপনার ভাইপোর গায়েও তাই। সাদা রঙের কোনও বিশেষ কারণ রয়েছে কি?
মজিদ: সাদা রং ভাল লাগে। একটা শুদ্ধতার ব্যাপার আছে। আসলে কত দিন পর আবার কলকাতা! দুর্দান্ত অনুভূতি হচ্ছে। ইস্টবেঙ্গল যখন বলল আমাকে নিয়ে যেতে চায়, শুরুতে আমি খুব একটা আগ্রহী ছিলাম না। এখন কারা ক্লাবে আছেন জানি না। কলকাতায় জামশিদ (নাসিরি) ছাড়া আর কোনও ইরানি বন্ধুও নেই আমার। জামশিদের সঙ্গেও তো প্রায় বছর পঁচিশ দেখাসাক্ষাৎ নেই। তা হলে কাদের ভরসায় যাব? তারপর ভাইপো ফরিদ সমস্ত খোঁজখবর নিয়ে বলল, আমার জন্য ইস্টবেঙ্গল ফ্যানরা নাকি এখনও পাগল। ওরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছে ইস্টবেঙ্গলে আমাকে আবার একবার দেখতে। তখন মনে হল আমার আর একবার ইস্টবেঙ্গল ক্লাবে যাওয়াটা দরকার। আচ্ছা, পিকে কেমন আছেন?

প্রশ্ন: অসুস্থ । তবে ১ অগাস্ট ইস্টবেঙ্গলের শতবার্ষিকী অনুষ্ঠানে এসেছিলেন।
মজিদ: ইস্টবেঙ্গলে আমার কোচের সঙ্গে এতদিন পর দেখা হলে খুব ভাল লাগবে। মনোরঞ্জনের (ভট্টাচার্য) সঙ্গে এর মধ্যে একদিন ফোনে কথা হয়েছে। ওরা সবাই হয়তো এত বছরে কত না বদলে গিয়েছে! কী জানি এখন গিয়ে চিনতে পারব কি না। সেই পুরনো ইস্টবেঙ্গল ক্লাব এখন কীরকম হতে পারে মনে মনে কল্পনা করছি।

প্রশ্ন: আপনি কি কলকাতায় নেমেই ইস্টবেঙ্গল ক্লাবে যেতে চান?
মজিদ: প্রথমে সেরকমই ভেবেছিলাম। পরে ক্লাবকে জানিয়েছি, সারারাত জেগে কলকাতা পৌঁছব। তাই রবিবার বিশ্রাম নিয়ে সোমবার আমার পুরনো ক্লাবে যেতে চাই। আমার সেই ১২ নম্বর জার্সি পরে অন্তত কিছুক্ষণের জন্য মাঠেও নামতে চাই। তেহরান এয়ারপোর্ট থেকে যে ছবিগুলো আপনাকে হোয়াটসঅ্যাপ করেছি, দেখলেই বুঝতে পারবেন আমার বয়স হয়েছে। চুলে পাক ধরেছে। এই বয়সে সারারাত বিমানযাত্রা করে কলকাতা পৌঁছে পরের দিনই বল নিয়ে মাঠে নামতে পারব না (হাসি)।
প্রশ্ন: চুলে পাক ধরেছে। কিন্তু ছবি তো বলছে আপনার শরীর এখনও টানটান।
মজিদ: ইরানের একটা ছোট ক্লাবে এখনও ট্রেনিং করাই। তাই ফিট আছি। তবে কলকাতায় আমি ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের কন্ট্রোলে। ওরা যখন যেখানে যেতে বলবে, সেটাই ফলো করব।

[আরও পড়ুন: উত্তপ্ত আবহেই আজ লিগ অভিযান শুরু ইস্টবেঙ্গলের, দল নিয়ে চিন্তায় আলেজান্দ্রো]


প্রশ্ন: তা হলে কলকাতায় পুরনো স্মৃতি ঝালাতে কোথায় কোথায় যাবেন কিছু ঠিক করেননি?
মজিদ: না। তবে ভাইপোদের ইচ্ছে একবার গোয়া ঘুরতে যাবে। কলকাতার কাজ শেষ করে দিনকয়েকের গোয়া যাব। আমার সফরসঙ্গীরা সব সলমন খানের ফ্যান। ওদের ইচ্ছে গোয়া যাওয়ার পথে একবার মুম্বই ঘোরারও। দেখা যাক কী হয়।
প্রশ্ন: তাই? ডিসেম্বরে ইস্টবেঙ্গলের অনুষ্ঠানে সলমন খানের আসার কথা আছে।
মজিদ: ইস্! এখন এলে আমার ভাইপোরা দেখা করতে পারত। আচ্ছা, মঙ্গলবার যে অনুষ্ঠানে আমি যাব সেখানে আমাকে দেখতে লোক আসবে তো?
প্রশ্ন: কী বলছেন? আপনাকে এক ঝলক দেখার জন্য এখানে সবাই মুখিয়ে রয়েছে।
মজিদ: জানেন আমি শুধু ইস্টবেঙ্গল ক্লাবের কাছে জানতে চেয়েছিলাম, কোন হোটেলে আমি থাকব? ওরা যে নাম-ঠিকানা পাঠিয়েছে, মনে হচ্ছে আমি যে হোটেলটার কথা ভাবছি এটা সেটাই। আমার চেনা হোটেল। কলকাতায় খেলার সময় বহুবার সেটার পাশ থেকে গিয়েছি। ওইটুকুই এখনও আমার যা চেনা মনে হচ্ছে এত বছর বাদে কলকাতার (হাসি)!

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং