৪ মাঘ  ১৪২৬  শনিবার ১৮ জানুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo ফিরে দেখা ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

স্টাফ রিপোর্টার: ভারতীয় ফুটবলে খুলে গেল নতুন দিগন্ত। গতবারের ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ তথা ইপিএল চ্যাম্পিয়ন ম্যাঞ্চেস্টার সিটি এগিয়ে এল ভারতীয় ক্লাব তথা মুম্বই সিটি এফসি-কে অধিগ্রহণ করতে। ভারতীয় ফুটবলে এর আগে কখনও এমন ঘটনা ঘটেনি। বিশেষ করে ইপিএল-এ খেলা দল সরাসরি মালিকানা স্বত্ত্ব কিনছে যা এককথায় কল্পনার অতীত।

কানাঘুষো শোনা যাচ্ছিল। অবশেষে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলল ম্যাঞ্চেস্টার সিটি। বৃহস্পতিবার ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে খেলা দলটি জানিয়ে দিল, মুম্বই সিটি দলের ৬৫ শতাংশ মালিকানা স্বত্ত্ব এখন তাদের হাতে। সিটি ফুটবল গ্রুপ বা সিএফজি হল ম্যাঞ্চেস্টার সিটি ক্লাবের দায়িত্বে। সিএফজির দ্বারাই ম্যাঞ্চেস্টার সিটি ক্লাব নিয়ন্ত্রিত হয়। এই গ্রুপের হাতে এতদিন ছিল সাতটা ক্লাব। এবার থেকে সেখানে সংযোজিত হল আরও একটি। অর্থাৎ সারা বিশ্ব জুড়ে আটটি ক্লাবের দায়িত্বে তারা এল। যারমধ্যে ম্যাঞ্চেস্টার সিটি, মেজর লিগ সকারের দল নিউইয়র্ক সিটি, অস্ট্রেলিয়া এ লিগে খেলা দল মেলবোর্ন সিটির মতো দলকে সরাসরি কিনে নিয়েছে।

এরসঙ্গে চিন, স্পেন, উরুগুয়ে, জাপানের ক্লাব কিনলেও পুরোপুরি স্বত্ব তাদের নেই। সেই সঙ্গে আমেরিকার সংস্থা এও জানিয়ে দিয়েছে, ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৩৬০ কোটি টাকা লগ্নি করতে চলেছে। যা ভারতীয় ফুটবলে তো বটেই, এশিয়া স্তরে বহু ধনী ক্লাব এত বিপুল পরিমাণ অর্থ নিয়ে আসে না। শুধু অর্থ নয়, ম্যাঞ্চেস্টার সিটির কোচ অবসর সময়ে সরাসরি কাজ করবেন মুম্বই সিটিতে। অর্থাৎ বর্তমান সিটির কোচ পেপ গুয়ার্দিওলা চাইলে মুম্বই দলের কোচ জর্জ কোস্তাকে ডেকে নিয়ে কোচিংয়ের ব্যাপারে কথা বলতে পারেন। ৬৫ শতাংশ মালিকানা স্বত্ব কিনে নিলেও বাকি ৩৫ শতাংশ অবশ্য থাকছে বলিউড তারকা রণবীর কাপুর ও তাঁর সঙ্গী বিমল পারেখের হাতে।

[আরও পড়ুন: শতবর্ষে চমক! ইস্টবেঙ্গলের সঙ্গে প্রদর্শনী ম্যাচ খেলতে পারে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড]

আইএসএল খেলা মুম্বই সিটি এফসি-তে অতীতে বহু নামী ফুটবলার খেলে গিয়েছেন। ঘটনাচক্রে ম্যাঞ্চেস্টার সিটির পিটার রেইড, নিকোলাস আনেলকা যেমন রয়েছেন। সঙ্গে ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের দিয়েগো ফোরলানও খেলেছেন। গতবার আইএসএলে তৃতীয় স্থান পেয়েছিল। এবার অবশ্য পাঁচ ম্যাচের শেষে রয়েছে সপ্তম স্থানে। কিন্তু এই ঘটনা প্রভাবিত করেনি সিএফজিকে। সংস্থার চেয়ারম্যান খালদুন আল মুবারক এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, “আমরা আশা করছি এই লগ্নি ভবিষ্যতে শুধু মুম্বই সিটি এফসি-কে এগিয়ে নিয়ে যাবে না। উন্নতি ঘটাবে ভারতীয় ফুটবলকেও।”

ম্যাঞ্চেস্টার সিটির এগিয়ে আসাকে সাধুবাদ জানিয়েছেন আইএসএলের চেয়ারম্যান নীতা আম্বানি। উচ্ছ্বসিত কন্ঠে তিনি জানিয়েছেন, “ভারতীয় ফুটবলে আজ এক যুগান্তকারী দিন। এবার নতুন পথে চলতে শুরু করবে ভারতীয় ফুটবল। দেশের তরুণরা ফুটবল নিয়ে আরও আগ্রহী হবে। বিশ্বের দরবারে পৌঁছে গেল আমাদের দেশের ফুটবল। এরচেয়ে আনন্দের আর কী থাকতে পারে।” প্রশ্ন হল, ভারতীয় ফুটবলে হঠাৎ কেন আগ্রহ দেখাল ম্যাঞ্চেস্টার সিটি ক্লাব? আসলে সিএফজি পর্যবেক্ষণ করে দেখেছে, ক্রোয়েশিয়ান কোচ ইগর স্টিমাচ আসার পর ভারতীয় ফুটবলের ক্রমন্নোতি হচ্ছে। তাছাড়া উন্নতি ঘটছে আইএসএলের। ভারতে ফুটবলের বাজার যথেষ্ট ভাল। তাই তারা ভারতীয় ফুটবলে লগ্নি করতে এগিয়ে এল।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং