২৬  শ্রাবণ  ১৪২৯  মঙ্গলবার ১৬ আগস্ট ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

এখনও চূড়ান্ত নয় মোহনবাগানের নতুন সভাপতির নাম, কমিটিতে এলেন বোস ও মিত্র পরিবারের সদস্য

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: April 21, 2022 3:23 pm|    Updated: April 21, 2022 5:13 pm

Mohun Bagan President name not finalized yet | Sangbad Pratidin

ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার: এখনও ঝুলে রইল মোহনবাগানের (Mohun Bagan) নতুন সভাপতির নাম ঘোষণা। এদিন কার্যকরী কমিটির মিটিংয়েও সিদ্ধান্ত হল না, মোহনবাগানের নতুন কমিটির সভাপতি কে হবেন? তবে সচিব দেবাশিস দত্ত জানালেন, ২০ বছরের সদস্যপদ আছে এরকম ৩২জনের তালিকা তৈরি হয়েছে, যাঁরা সভাপতি হওয়ার যোগ্য। এঁদের মধ্যে থেকে আপাতত সাত জনের একটা তালিকা বাছা হয়েছে। কিছুদিনের মধ্যেই এই তালিকার মধ্যে থেকে একজনকে সভাপতি হিসেবে মনোনীত করা হবে। তবে সভাপতির নাম ঘোষণা না হলেও, বোস এবং মিত্র পরিবারের দু’জন প্রতিনিধি মোহনবাগানের কার্যকরী কমিটিতে এলেন। টুটু বোসের পুত্র সৌমিক বোস মনোনীত হলেন, সহসভাপতি পদে। প্রয়াত অঞ্জন মিত্রর কন্যা সোহিনী মিত্রকে (Sohini Mitra) কোঅপ্ট করে নিয়ে আসা হল কমিটিতে। কমিটিতে আসা নতুন নামগুলি যখন শান্তিপূর্ণ ভাবে সাংবাদিক সম্মেলনে ঘোষণা করছিলেন সচিব দেবাশিস দত্ত, ঠিক তখনই নতুন গ্রাউন্ড সচিব পিন্টু বিশ্বাসের নাম নিয়ে ফুটবল সচিব স্বপন বন্দ্যোপাধ্যায় প্রকাশ্যে আপত্তি তোলায়, সাংবাদিক সম্মেলনের পুরো সুরটাই কেটে যায়। তবে শেষে আবার দেবাশিস দত্ত-র পাশে দাঁড়িয়েই স্বপন বন্দ্যাপাধ্যায় বলেন, “আমার আর দেবাশিস দা’র মধ্যে কোনও মতপার্থক্য নেই। আমরা এক সঙ্গে তিন বছর কমিটিকে ধরে রাখব।’’

২৩ এপ্রিল, মোহনবাগানের (Mohun Bagan) বার্ষিক সাধারণ সভা। তার আগে এদিনের কার্যকরী কমিটির সভায় নতুন সভাপতির নাম নিয়ে আলোচনা হয়। কিন্তু সদস্যরা সভাপতির নাম নিয়ে চূড়ান্ত কোনও সিদ্ধান্তে আসতে পারেননি। ফলে সভাপতি ছাড়াই প্রথম বার্ষিক সাধারণ সভা হবে। দেবাশিস দত্ত জানান, সাধারণ সভার পর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেরও আয়োজন থাকবে।
সৌমিক বোস (Soumik Bose) এবং সোহিনী মিত্রর পাশাপাশি আমন্ত্রিত সদস্য করে আনা হয়েছে, বর্ষীয়ান সদস্য কাশী দাসকে। কিছুদিন আগেই গ্রাউন্ড সচিব পদে নির্বাচিত হন তন্ময় চট্টোপাধ্যায়। এদিন কার্যকরী কমিটির মিটিংয়ে দেবাশিস দত্ত (Debasish Dutta) জানান, ব্যবসা সংক্রান্ত ব্যস্ততায় তন্ময় চট্টোপাধ্যায় আর গ্রাউন্ড সচিব থাকতে চাইছেন না। তিনি পদত্যাগ করেছেন। তখন নতুন গ্রাউন্ড সচিব হিসেবে পিন্টু বিশ্বাসকে মনোনীত করে পদত্যাগ করা তন্ময় চট্টোপাধ্যায়কে কোঅপ্ট সদস্য হিসেবে কার্যকরী কমিটিতে নিয়ে আসা হয়।

[আরও পড়ুন: আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর, পোলার্ডকে ছেড়ে দিতে পারে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সও]

সাংবাদিক সম্মেলনে মন্ত্রী মলয় ঘটককে পাশে বসিয়ে দেবাশিস দত্ত যখন গ্রাউন্ড সচিব হিসেবে পিন্টু বিশ্বাসের নাম ঘোষণা করছেন, হঠাৎই পাশে বসা ফুটবল সচিব স্বপন বন্দ্যোপাধ্যায় বলে ওঠেন, পিন্টু বিশ্বাসকে গ্রাউন্ড সচিব করা নিয়ে তাঁর আপত্তি আছে। ক্লাব সচিব সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে অনুরোধ করেন, সাংবাদিক সম্মেলনে এই কথা আলোচনা না করতে। কিন্তু কেন গ্রাউন্ড সচিব পদে পিন্টু বিশ্বাস নিয়ে তাঁর আপত্তি রয়েছে, তা নিয়ে ব্যাখ্যা দিতে শুরু করেন স্বপন বন্দ্যোপাধ্যায়। সঙ্গে সঙ্গে সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত অন্যতম সহ সভাপতি কুণাল ঘোষ বলেন, “এই কমিটিতে কোনও হাত তোলা সদস্য নেই। যে সিদ্ধান্তই হবে, তা অত্যন্ত গণতান্ত্রিক উপায়েই হবে। একটা প্রস্তাব আলোচনার সময় এসেছে। তাতে কেউ আপত্তি জানাতেই পারেন। এটাই তো গণতন্ত্র। তবে কমিটির অন্য সদস্যরা পিন্টু বিশ্বাসের মনোনয়নে সম্মতি প্রকাশ করেছেন।” পিন্টু বিশ্বাসের মনোনয়নকে কেন্দ্র করে যখন অনেকে বিতর্কের আঁচ পেতে শুরু করেছেন, তখন সব কিছুর শেষে কুণাল ঘোষকে পাশে রেখে একসঙ্গে ফের সাংবাদিক সম্মেলন করেন দেবাশিস দত্ত এবং স্বপন বন্দ্যোপাধ্যায়। যেখানে ফুটবল সচিব স্বপন বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “পিন্টু বিশ্বাস নিয়ে আমার যা কিছু বক্তব্য কমিটির মিটিংয়ে বলেছি। তবে দেবাশিস দত্তর সঙ্গে আমার কোথাও কোনও মতপার্থক্য নেই। আমরা একসঙ্গে এই নতুন কমিটি গঠন করেছি। একসঙ্গেই নতুন কমিটিকে তিন বছর ধরে রাখব। কমিটিতে সমস্যা হওয়ার কোনও সম্ভাবনাই নেই। যাঁরা ভাবছেন, আমাদের মধ্যে সমস্যা রয়েছে, তাঁরা ভুল ভাবছেন।” কুণাল ঘোষ (Kunal Ghosh) বলেন, “ভুলে যাবেন না, দেবাশিস দত্তর সচিব হওয়ার পিছনে স্বপন বন্দ্যোপাধ্যায়েরও বড় ভূমিকা রয়েছে।” দেবাশিস দত্তও সাংবাদিক সম্মেলনের ঘটনাকে বড় করে না দেখিয়ে বলেন, “আমরা বিভিন্ন অনুষ্ঠানেও দেখি একজন রাজনৈতিক নেতা আরেকজনের নামে বলছেন। এটা বড় ব্যাপার নয়। কেউ একজন তাঁর মতামত রাখলে, তা নিয়ে সমস্যা হবে কেন?” কমিটির মিটিংয়ের আগে স্বপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে পিন্টু বিশ্বাস ইসুতে কিছু জানানো হয়েছিল কি না জিজ্ঞাসা করা হলে দেবাশিস দত্ত বলেন, “মিটিংয়ের আলোচনা, মিটিং শুরুর আগে কীভাবে বলা সম্ভব? মিটিংয়ের আগেই যদি কী নিয়ে মিটিং হবে তা নিয়ে আলোচনা করি, তাহলে আর সবাইকে নিয়ে মিটিং ডাকা হয়েছে কেন? যা সিদ্ধান্ত হবে, সবার সামনেই হবে।”

[আরও পড়ুন: মুখোমুখি মেসি-নেইমার, বিশ্বকাপের আগে মহড়ায় ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা]

এদিন মিটিংয়ে আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় গৃহীত হয়েছে। ফুটবল দল থেকে ‘এটিকে’ শব্দটি সরানোর জন্য এদিন কার্যকরী কমিটিতে প্রস্তাব গৃহীত হয়েছে। ঠিক হয়েছে, এবার কার্যকরী কমিটির তরফে দেবাশিস দত্ত, এটিকে মোহনবাগান (ATK Mohun Bagan) ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে এটিকে নামটি সরানো নিয়ে আলোচনা করবেন।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে