৩ ভাদ্র  ১৪২৬  বুধবার ২১ আগস্ট ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আজ কলকাতা লিগের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে কাস্টমসের বিরুদ্ধে নামছে মোহনবাগান। লিগের প্রথম ম্যাচে হারের পর বুধবার জয়ে ফিরতে মরিয়া সবুজ-মেরুন। স্বাভাবিকভাবেই ঘরের মাঠে নামার আগে অতিরিক্ত সতর্ক কোচ কিবু ভিকুনা।

[আরও পড়ুন: লাল-হলুদ জার্সি গায়ে পরোক্ষে তথাগত রায়কে খোঁচা মীরের!]

মঙ্গলবার অনুশীলন শেষে নিজেই নিজের চোট নিয়ে দুঃশ্চিন্তা দূর করলেন সালভা চামোরো। তিনি যা বললেন, তা শুনে নিশ্চিন্তে থাকতে পারেন মোহনবাগান সমর্থকরা। মহামেডানকে দু’গোল দিয়ে অভিষেকটা দুর্দান্ত হয়েছিল। তারপর পিয়ারলেস ম্যাচ হার। এটিকের বিরুদ্ধে শেষদিকে চোট থেকে উঠে আসা চামোরাকে নামিয়েছিলেন কোচ ভিকুনা। এখন সুস্থ। বললেন, “অসুবিধা হচ্ছে না। এখন ফিট। চেষ্টা করব গোল করে দলকে জেতানো।”

বুধবার কাস্টমস ম্যাচ নিয়ে ভিকুনার চিন্তা থাকার কথা নয়। তিন বিদেশি থাকলেও আহামরি দল নয় কাস্টমস। কিন্তু বাস্তব অন্য কথা বলছে। কাস্টমসের বিরুদ্ধে নামার আগে বাগান কোচ শুধু সতর্ক বললে কম বলা হয়। ভিকুনা বলছেন, “লিগ খুব কঠিন। প্রত্যেক টিমেই ভাল মানের বিদেশি আছে। ওরা বেশ কয়েকবছর এই কন্ডিশনে খেলছে। তাই সব ওদের জানা”

বাগানে বেশ কিছু পরিবর্তন আসছে, সেটা বলে দেওয়া যায়। চামোরো ফেরায় এক বিদেশিকে বসতে হচ্ছে। সেটা সম্ভবত ফ্রান গঞ্জালেজ। এটিকের বিরদ্ধে দুই ফ্রান (মোরান্তে আর গঞ্জালেজ) ডিফেন্স সামলেছিলেন। কাস্টমসের বিরুদ্ধে ডিফেন্সে নতুন জুটি দেখা যেতে পারে। মোরান্তে আর কিমকিমা। দুই সাইডব্যক গুরজিন্দর-আশুতোষ মেহতা। মঙ্গলবার চুলোভার রেজিস্ট্রেশন হলেও তিনি শুরুতে নেই। ভিকুনা বলছিলেন, “চুলোভা দু’সপ্তাহ ট্রেনিং করছে। টিমের সঙ্গে মানিয়ে নিতে সময় লাগবে।” প্রয়োজনে তাঁকে শেষ পনেরো-কুড়ি মিনিট নামানো হতে পারে। সাহিলের চোট চিন্তায় রাখবে কিবুকে। মরশুমের শুরু থেকে তিনি নজর কেড়েছেন। তাঁর খেলার সম্ভাবনা যে কম, সেটা স্বীকার করে নিয়েছেন কিবু।

[আরও পড়ুন: মহামেডানে সংবর্ধিত ‘বাদশাহ’, সুব্রতকে দেখে আপ্লুত মজিদ]

মোহনবাগানকে কোচকে প্রশ্ন করা হয়, আপনার টিম তো শেষ দুটো ম্যাচে চার গোল খেয়েছে। ডিফেন্স নিয়ে চিন্তা তো থাকছেই? ভিকুনা বললেন, “তিনটে ম্যাচে তিনরকম ডিফেন্স ছিল। আমরা এ নিয়ে খাটাখাটনি করছি। আপনারা চার গোল খাওয়ার কথা বলছেন। আমরা তিন ম্যাচে চার গোল করেছি।” আর একটা জিনিস ভাবাচ্ছে মোহনবাগানকে। সেটা হল মাঠ। বৃষ্টির জন্য মাঠ ভারী হয়ে যাচ্ছে। কোচ বলে গেলেন, এই কন্ডিশনে মানিয়ে নিতে সময় লাগবে।
কাস্টমস নিয়ে রীতিমতো হোমওয়ার্ক হয়েছে। ভিডিও দেখা হয়েছে। কোচের মনে হয়েছে, পিয়ারলেসের মতো শক্তিশালী নয় কাস্টমস। বলছিলেন, “ওদের ভিডিও দেখেছি। টিমে ভাল বিদেশি হয়েছে। তবে ওরা পিয়ারলেস নয়।”হতে পারে কাস্টমস পিয়ারলেস এক নয়। কিন্তু কিবু বেশি সতর্ক।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং