×

৪ চৈত্র  ১৪২৫  বুধবার ২০ মার্চ ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও #IPL12 বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: তিনি ডেভিড বেকহ্যামের ইংল্যান্ডকে বিশ্বকাপে কোচিং করিয়েছেন। তিনিই আবার ভারতের কোচ হতে চান। তিনি স্বেন গোরান এরিকসন। এএফসি এশিয়ান কাপের পর জাতীয় দলের দায়িত্ব ছেড়েছেন স্টিভেন কনস্ট্যানটাইন। তারপর ভারতের চিফ কোচের আসন ফাঁকা। ফেডারেশনের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, তাড়াহুড়ো না করে ধীরে সুস্থে সিদ্ধান্ত নেওয়ার পথে তাঁরা হাঁটতে চান। এর মধ্যেই এরিকসনের মতো হাই প্রোফাইল কোচের ইচ্ছা প্রকাশ। এআইএফএফের স্টান্স কী? না, এখনই চূড়ান্ত কিছু হচ্ছে না।

[ঘরের মাঠে ফের পয়েন্ট নষ্ট, আই লিগের অঙ্ক আরও কঠিন হল ইস্টবেঙ্গলের]

প্রশ্ন, কী এমন ব্যাপার ঘটল যা দেখে এরিকসনের ভারতপ্রীতি বেড়ে গেল? এশিয়ান কাপে ভারত গ্রুপ পর্ব টপকাতে না পারলেও সুনীলদের খেলায় মুগ্ধ এরিকসন। তাইল্যান্ডের বিরুদ্ধে ম্যাচের পর ভারতের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেছিলেন, “ভারত পুরো ম্যাচে দাপট দেখিয়েছে। ফুটবল খেলিয়ে দেশ হিসাবে উন্নতি প্রশংসাজনক। টেকনিক্যাল তো বটেই ভারতের স্কিলফুল ফুটবলাররাও ভাল করছে।” এখানেই শেষ নয়। তিনি এমনও না কি বলেছিলেন, ফুটবলবিশ্বে ভারতের মতো দেশের দরকার আছে।

১৯৭৭ সালে কোচিং কেরিয়ার শুরু এরিকসনের। মেক্সিকোর জাতীয় দলের দায়িত্ব সামলেছেন। ২০০১ থেকে ২০০৬, ছয় বছর ইংল্যান্ড জাতীয় ফুটবল দলের দায়িত্বে ছিলেন। এর মধ্যে ইংল্যান্ড ২০০২ ও ২০০৬ বিশ্বকাপ কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে ছিটকে যায়। ২০০৪ ইউরোতেও পর্তুগালের কাছে শেষ আটের লড়াইয়ে হেরেছিল ইংল্যান্ড। তা এমন হাই প্রোফাইল কোচ দায়িত্ব নিতে চাইলে ফেডারেশন কী করবে? ফেডারেশনের সূত্রের খবর, এরিকসন সরাসরি এখনও ভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের সঙ্গে যোগাযোগ করেননি।এজেন্টের মাধ্যমে জানিয়েছেন ভারতের কোচ হওয়ার ব্যাপারে তিনি আগ্রহী। কারণ ভারত ফুটবলে উন্নতি করেছে।”

[পুলওয়ামা হামলার জের, শ্রীনগর থেকে সরল ইস্টবেঙ্গল-রিয়েল কাশ্মীর ম্যাচ]

কোচ নিয়োগের ব্যাপারটা এখনই হচ্ছে না, সেটাও জানিয়ে দিয়েছে ফেডারেশন সূত্র। এশিয়ান কাপে দুরন্ত পারফরম্যান্সের পর ভারতের কোচ হওয়ার জন্য অনেকেই সিভি জমা দিয়েছেন। আইএসএলের সৌজন্যে ভারতীয় ফুটবল সম্পর্কে গোটা বিশ্বের ধারণা আছে। ভাল বিদেশিরাও আসছে। তাই জাতীয় দলের কোচ হওয়ার দৌড়ে অনেকেই আছে।” এরিকসনের কোচ হওয়ার দৌড়ে অবশ্য সমস্যা আছে। প্রথমত তাঁর বয়স ৭১। কোচ হিসাবে পারফরম্যান্স এখন ভাল নয়। ২০১৩ তে এশিয়ায় কোচিং করাতে আসেন। ২০১৬ তে চিনের দ্বিতীয় ডিভিশন দলকে কোচিং করান। ২০১৭ তে ১৩ ম্যাচে মাত্র পাঁচটি জেতে তাঁর দল। ফলে চাকরি যায়। এরপর ফিলিপিন্সের দায়িত্বে ছিলেন। কিন্তু এশিয়ান কাপে গ্রুপ পর্যায়ে বিদায়ের পর সেই চাকরিও শেষ। ফেডারেশনের তরফে জানানো হয়েছে ভারতের কোচ কে তা চূড়ান্ত হতে পারে এপ্রিলের মাঝামাঝি। এখন ধীরে চলো নীতি।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং