৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ইলিশ-চিংড়ির ডার্বি। ঘটি-বাঙালের ডার্বি। বাঙালির চিরন্তন এই লড়াই যেন এখন আর বাঙালির নয়। বিশ্বজনীন হয়ে উঠেছে। বলা ভাল স্প্যানিশ হয়ে উঠেছে। ডার্বি থেকে বাঙালিয়ানা যেন হারিয়ে যাচ্ছে।

[আরও পড়ুন: মরশুমের প্রথম ডার্বিতে পাল্লা ভারী ইস্টবেঙ্গলের, একগুচ্ছ চমকের অপেক্ষায় দর্শকরা]

একটা সময় ছিল, যখন ময়দানের দুই প্রধান ক্লাবেই দাপিয়ে খেলতেন বাংলার ফুটবলাররা। ভাস্কর গঙ্গোপাধ্যায়, মনোরঞ্জন ভট্টাচার্য, কৃশানু দে থেকে শুরু করে সুব্রত ভট্টাচার্য, প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়, অলোক মুখোপাধ্যায় পর্যন্ত। সেসময় বাংলার ফুটবল ছিল বাঙালি অন্ত প্রাণ। মনোরঞ্জন-প্রসূন থেকে শুরু করে মেহেতাব-নবি পর্যন্ত। ডার্বিতে বিদেশিদের সঙ্গে সমানে তাল মিলিয়ে খেলতেন বাঙালিরাও। কিন্তু, এবারে হয়তো আর তেমনটা হচ্ছে না। বাংলার দুই প্রধানের কোনও দলেই দু’একজন ছাড়া সে অর্থে প্রতিষ্ঠিত বাঙালি ফুটবলার নেই। পরিস্থিতি এমনই যে, বাঙালির থেকে বাংলার দুই বড় ক্লাবে স্প্যানিশদের আধিপত্য বেশি দেখা যাচ্ছে।

কলকাতার দুই প্রধানেরই কোচ স্প্যানিশ। স্বাভাবিকভাবেই তাঁরা স্প্যানিশদের উপর বেশি বিশ্বাস রাখছেন। এখনও পর্যন্ত লিগে যেভাবে দুই প্রধান দল সাজিয়েছে, তাতে দু’দলের প্রথম একাদশে পাঁচজন স্প্যানিশ ফুটবলারের খেলা নিশ্চিত। মোহনবাগান মোট চারজন স্প্যানিশ ফুটবলারের রেজিস্ট্রেশন করিয়েছে। এঁরা হলেন ফ্রান মোরান্তে, ফ্রান গঞ্জালেজ, বেইতিয়া এবং সালভা চামোরো। এদের মধ্যে প্রথম তিনজনের প্রথম একাদশে খেলা একপ্রকার নিশ্চিত। পরিবর্ত হিসেবে সালভা চামোরোও নামতে পারেন। অন্যদিকে, ইস্টবেঙ্গল তিনজন স্প্যানিশ ফুটবলারের রেজিস্ট্রেশন করিয়েছে। এঁরা হলেন মার্তি, কোলাডো এবং মার্কোস। এদের মধ্যে কোলাডো এবং মার্তির প্রথম একাদশে খেলা নিশ্চিত। খেলানো হতে পারে মার্কোসকেও।

[আরও পড়ুন: ডার্বির আগে দুরন্ত ছন্দে ইস্টবেঙ্গল, কোলাডোর জোড়া গোলে পরাস্ত এরিয়ান]

এবার দেখা যাক, দুই প্রধানের বাঙালি ফুটবলারদের তালিকা। মোহনবাগানের গোলে খেলবেন দেবজিৎ মজুমদার কিংবা শিল্টন পাল। সেই সঙ্গে আরও দুই বাঙালি ফুটবলার প্রথম একাদশে থাকতে পারেন। তাঁরা হলেন শেখ সাহিল এবং সুরাবুদ্দিন মল্লিক। তবে, এদের দুজনের কেউই প্রথম একাদশে নিশ্চিত নন। অন্যদিকে, ইস্টবেঙ্গলের বাঙালিদের প্রথম একাদশে খেলার সম্ভাবনা শুধুমাত্র মনোজ মহম্মদ এবং সামাদ আলি মল্লিকের। অর্থাৎ, মেরেকেটে জনা পাঁচেক বাঙালি ফুটবলার খেলতে পারেন দুই প্রধানের হয়ে। তবে, সেটা নিশ্চিত নয়।শুধু তাই নয়, দুই দলের অধিনায়কও অবাঙালি।
এ তো গেল মাঠের ভিতরের কথা। এরপর আসা যাক ডাগআউটের কথায়। ডাগআউটে দেখা যাবে দুই দাপুটে স্প্যানিশ কোচকে। শুধু তাই নয়, ইস্টবেঙ্গলের সহকারী কোচ এবং ফিজিশিয়ানও স্প্যানিশ।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং