২২ চৈত্র  ১৪২৬  রবিবার ৫ এপ্রিল ২০২০ 

Advertisement

ভারতের উসেইন বোল্ট! মোষের লাগাম হাতে প্রাণপণ দৌড়ে ভাইরাল কন্নড় যুবক

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: February 15, 2020 3:22 pm|    Updated: February 15, 2020 3:22 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ইনি শ্রীনিবাস গৌড়া। কর্ণাটকের কন্নড় জেলার এই যুবক নাকি বিশ্বের দ্রুততম দৌড়বীর উসেইন বোল্টের থেকেও বেশি জোরে দৌড়াতে পারেন! দক্ষিণ ভারতের প্রথাগত ‘কাম্বালা’ দৌড়ে অংশ নিয়ে শ্রীনিবাস এখন ইন্টারনেটের ‘হট টপিক’। নেটিজেনরা বলছেন ‘কাম্বালা’ প্রতিযোগিতায় জোড়া মোষের লাগাম হাতে বিশ্বের দ্রুততম স্প্রিন্টার উসেইন বোল্টের চেয়েও জোরে দৌড়েছেন ২৮ বছরের ওই যুবক।

[আরও পড়ুন: করোনার কোপ! অলিম্পিকের ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তায় আয়োজকরা]

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, কাদামাটি ভরা রাস্তায় মোষের লাগাম ধরে প্রাণপণ ছুট দিচ্ছেন এক যুবক। আর তাতেই নাকি তিনি উসেইন বোল্টকে টপকে গিয়েছেন গতিতে। প্রায় ১৪৩ মিটার লম্বা দৌড়ে তাঁর সময় লেগেছে মাত্র ১৩.৬২ সেকেন্ড। সেইমতো হিসেব করলে ১০০ মিটার দৌড়াতে তাঁর সময় লাগার কথা ৯.৫৫ সেকেন্ড। যা কিনা উসেইন বোল্টের বিশ্বরেকর্ডের থেকেও ৩ সেকেন্ড কম। বোল্ট (Usain Bolt) করিয়ারের সেরা সময়ে ১০০ মিটার দৌড়েছেন ৯.৫৮ সেকেন্ডে। 

নেটিজেনরা বলছেন, বোল্টের থেকে শ্রীনিবাস শুধু কম সময় নিয়েছেন তাই নয়, জামাইকার স্প্রিন্টারের তুলনায় তাঁর চ্যালেঞ্জটাও কঠিন ছিল। কারণ, তাঁকে দৌড়তে হয়েছে কাদা-জলের মধ্যে। কোনও প্রশিক্ষণ ছাড়াই তাঁর এই দৌড় নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। শ্রীনিবাসের এই দৌড়ের ভিডিও এতটাই ভাইরাল হয়েছে যে, তা নজরে পড়েছে খোদ ক্রীড়া দপ্তরের স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী কিরেণ রিজিজুরও (Kiren Rijiju)।

[আরও পড়ুন: সরকারকে অন্ধকারে রেখেই টুর্নামেন্টে অংশ নিতে পাকিস্তানে ভারতীয় দল, তুঙ্গে বিতর্ক]

ক্রীড়ামন্ত্রী বলছেন, “শ্রীনিবাস গৌড়াকে সাইয়ের তরফে ফোন করা হয়েছে। আমি চাই সাইয়ের সেরা কোচেদের তত্ত্বাবধানে ও ট্রায়াল দিক। ওঁর টিকিটও কাটা হয়ে গিয়েছে। নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে আমরা নিশ্চিত করতে চাই, কোনও প্রতিভাই যেন সুযোগের অভাবে নষ্ট না হয়।” শ্রীনিবাস নিজে অবশ্য বোল্টের সঙ্গে নিজের তুলনা মেনে নিতে পারছেন না। তিনি বলছেন, “আমাকে বোল্টের সঙ্গে তুলনা করার কোনও মানেই হয় না। ও তো বিশ্বচ্যাম্পিয়ন। আমি কাদা-মাটিতে দৌড়েছি মাত্র।”

Advertisement

Advertisement

Advertisement