BREAKING NEWS

১ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

নাছোড় চোটে নাকাল সোনি, ছাড়ছেন মোহনবাগান

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 19, 2018 3:50 pm|    Updated: January 19, 2018 3:57 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: নাছোড়বান্দা চোট। সেরেও সারছে না। সমর্থকদের প্রত্যাশার পাহাড় তাঁর কাঁধে। অথচ মাঠের বাইরে বসে দিনের পর দিন দলের অবনমন দেখতে হচ্ছে। অধিনায়ক হিসেবে তা দেখতে আর রাজি নন সোনি নর্ডি। ক্লাবকর্তাদের কাছে তাই তিনি নিজেই এবার রিলিজ চেয়েছেন। ফলে মোহনবাগানে তো নয়ই, আপাপত ভারতের ক্লাব ফুটবলে আর দেখা যাবে না সনিকে।

বেশ কিছুদিন হল হাঁটুতে চোট পেয়েছেন। অনেকদিন মাঠের বাইরে। এর মধ্যে বাগানে বড় পরিবর্তন ঘটে গিয়েছে। হারের দায় নিজের কাঁধে নিয়ে দল ছেড়েছেন সঞ্জয় সেনশংকরলাল জমানায় শুরুটা ভাল হয়েছিল। কিন্তু এক ম্যাচ পেরতে না পেরতেই আবার দিশাহীন ফুটবল গঙ্গাপারের ক্লাবের। ক্রোমাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। ডিকারও ফর্মে ভাটা। আক্রম মোগরাভি এসেও কতটা উত্তরণ হবে বোঝা যাচ্ছে না। আই লিগে ফেরার আশা কাগজে কলমে থাকলেও, সমর্থকরা জানেন তা ক্ষীণ আশা মাত্র। এই পরিস্থিতিতে দলের পরিত্রাতা হয়ে উঠতে পারতেন সোনি। কিন্তু চোট যেন কিছুতেই সারছে না। আপ্রাণ চেষ্টা করেছেন অধিনায়ক। প্র্যাকটিসে ম্যাচে নামবেন ঠিক করেছিলেন। কিন্তু শেষমেশ তাও হয়ে উঠল না। এরপরই দল ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেন এই হাইতিয়ান তারকা। জানা যাচ্ছে, ১২ সপ্তাহ মাঠের বাইরে থাকতে হবে। তাই দেশে ফিরে যাচ্ছেন তিনি। ২৩ বা ২৪ তারিখেই দেশের বিমান ধরতে পারেন সনি।

আই লিগে গড়াপেটার ছায়া! মিনার্ভার ২ ফুটবলারকে ৩০ লক্ষ টাকার প্রস্তাব ]

সমর্থকদের একটাই প্রশ্ন, দলের প্রাণভোমরাকে কি আর সবুজ মেরুন জার্সিতে দেখা যাবে না? একটা আশা অবশ্য আছে। ২১ তারিখের ডার্বিতে খেলার প্রবল ইচ্ছে সোনির। যদি সম্ভব হয় তাহলে এ মরশুমে শেষবারের মতো তিনি মাঠে নামতে চাইছেন। ক্লাবের সহ-সচিব সৃঞ্জয় বোসের বক্তব্য, “২১ তারিখের পরই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে ক্লাব। তবে সোনি নিজে যখন ছেড়ে দিতে চাইছেন, তখন তাঁকে ছেড়ে দেওয়াই ভাল। এক্ষেত্রে খেলোয়াড়ের সিদ্ধান্তকে সম্মান জানানো ছাড়া আর কোনও উপায় নেই।”

ভারতীয় ক্লাব ফুটবলে খুব বেশিদিন খেলেননি সোনি। কিন্তু যে কয়জন বিদেশি খেলেছেন, তাঁর মধ্যে তিনি অন্যতম। ইতিমধ্যেই আদরের বিদেশিদের তালিকায় নাম লিখিয়ে ফেলেছেন তিনি। নেতৃত্ব দেওয়ার ক্ষমতা, ফুটবল স্কিল মিলিয়ে সনি যেন এক আবেগের নাম। কাটসুমির হাত থেকে অধিনায়কত্বের দায়িত্বও তাই তাঁর উপরেই দিয়েছিলেন ক্লাবকর্তারা। দলকে এগিয়েও নিয়ে যাচ্ছিলেন। এক সময় আই লিগে মোহনবাগান শীর্ষে ছিল। কিন্তু তারপরই ছন্দপতন হতে শুরু করে। চোট-আঘাত যে এতবড় অভিশাপ হয়ে উঠবে মোহনবাগানের ভাগ্যে, তা বোধহয় কেউই অনুমান করতে পারেননি। তবে এটাই কঠিন বাস্তব। তিনি নিজেও তাই বোঝেন। তাই নিজে বসে থেকে প্রিয় দলকে বিপদে ফেলতে নারাজ তারকা। বরং দলকে ভালবেসেই দল ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে সনি বুঝিয়ে দিলেন, ভারতের মাটিতে ফুটবল বলতে তিনি সবুজ-মেরুন আবেগকেই বুকে আগলে রাখেন। তাঁকে যে মিস করবে সভ্য-সমর্থকরা, তা আর নতুন করে বলার অপেক্ষা রাখে না।

মোহনবাগানের এখনও অাই লিগ জয় সম্ভব, শহরে এসেই জানালেন অাক্রম ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement