BREAKING NEWS

১ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

৩ রাজাকারের ফাঁসি, ৫ জনের আমৃত্যু কারাদণ্ড

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: July 18, 2016 2:21 pm|    Updated: July 18, 2016 2:30 pm

An Images

সুকুমার সরকার, ঢাকা: একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বাধীনতা ও মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় জামালপুর জেলার আট আসামির বিরুদ্ধে রায় ঘোষণা করল আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। তিন রাজাকারের মৃত্যুদণ্ড ও পাঁচজনের আমৃত্যু কারাদণ্ড দিল ট্রাইব্যুনাল। সোমবার বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এই রায় ঘোষণা করে।

জামালপুরে আলবদর বাহিনীর প্রতিষ্ঠাতা মহম্মদ আশরাফ হোসাইন, মহম্মদ আবদুল মান্নান ও মহম্মদ আবদুল বারিকে ফাঁসির দণ্ড দেওয়া হয়েছে। আমৃত্যু কারাদণ্ডের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে জামালপুর জেলা জামাতের প্রাক্তন আমির অ্যাডভোকেট শামসুল আলম ওরফে বদর ভাই ও প্রাক্তন জামাত নেতা এস এম ইউসুফ আলি, অধ্যাপক শরিফ আহমেদ ওরফে শরিফ হোসেন, মহম্মদ হারুন ও মহম্মদ আবুল হাসেমকে। আসামিদের মধ্যে শামসুল ও ইউসুফ ইতিমধ্যেই কারাবন্দী। রায় ঘোষণার জন্য আজ তাঁদের ট্রাইব্যুনালে আনা হয়।

এদিন সকাল পৌনে ১১টা নাগাদ ২৮৯ পৃষ্ঠার রায়ের প্রথম অংশ পড়ে শোনান বিচারপতি শাহিনুর ইসলাম। পরে রায়ের মূল অংশ অর্থাৎ আসামিদের সাজা ঘোষণা করেন চেয়ারম্যান বিচারপতি আনোয়ারুল হক। রায় শোনাতে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ট্রাইব্যুনালের এজলাসকক্ষে হাজির করা হয় ধৃত বদর ভাই ও ইউসুফ আলিকে। অন্য ছয় আসামি পলাতক। গ্রেফতার হওয়া এই দুই ব্যক্তি মুক্তিযুদ্ধে রাজাকার বাহিনীর সদস্য ছিল বলে খবর। পলাতক বাকি ছয়জন ছিল আলবদর বাহিনীর সদস্য। মামলাটির প্রধান আসামি পলাতক আশরাফ হোসেন আলবদর বাহিনীর জামালপুর মহকুমা কম্যান্ডার ছিল।

ইসলামি ছাত্রসংঘের বাছাই করা কর্মীদের নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে জামাতের কিলিং স্কোয়াড আলবদর বাহিনী গঠিত হয়। আট রাজাকার-আলবদরের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগগুলি হল একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধে জামালপুরে রাজাকার-আলবদর বাহিনী ও শান্তি কমিটি গঠন, স্থানীয় সাধনা ঔষধালয় দখল করে আলবদর বাহিনী ও শান্তি কমিটির কার্যালয় স্থাপন এবং সিংহজানি হাইস্কুলে আলবদরদের প্রশিক্ষণ প্রদান। এছাড়া ছিল পিটিআই হস্টেল ও আশেক মাহমুদ কলেজের ডিগ্রি হোস্টেল দখল করে নির্যাতন কেন্দ্র গড়ে তোলা। ১০ হাজারের বেশি মানুষকে হত্যা-গণহত্যা, আটক, অপহরণ, নির্যাতন ও গুম করার অভিযোগ রয়েছে জামালপুরের এই আট রাজাকারের বিরুদ্ধে। গত বছরের ২৬ অক্টোবর অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে ট্রাইব্যুনালে এই আটজনের বিচার শুরু হয়।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement