৯ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

স্যামুয়েলের অ্যাকাউন্টে বিপুল টাকা, বাড়ছে রহস্য

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: July 23, 2016 12:28 pm|    Updated: July 23, 2016 12:28 pm

An Images

স্টাফ রিপোর্টার: কলকাতায় স্টিং অপারেশন চালানোর আগে ‘নারদ নিউজ’-এর সিইও ম্যাথু স্যামুয়েলের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে বেশ কয়েক কোটি টাকা ঢুকেছিল৷ ওই টাকা ম্যাথুর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে পাঠিয়েছিলেন এক রাজনৈতিক নেতা৷ নারদ স্টিং কাণ্ডের তদন্তে নেমে এই তথ্যই পেয়েছেন ‘সিট’-এর তদন্তকারী গোয়েন্দারা৷ স্টিং অপারেশনের আগে ওই রাজনৈতিক নেতা কেন ম্যাথু স্যামুয়েলকে এই বিশাল অঙ্কের টাকা দিয়েছিলেন, তাই নিয়ে তদন্ত শুরু করেছেন গোয়েন্দাকর্তারা৷ স্টিং অপারেশন চালানোর আগে ২০১৪ সালে দু’বার কলকাতায় এসেছিলেন ম্যাথু স্যামুয়েল৷ নিজের নাম ও পরিচয় গোপন করে ছিলেন মধ্য ও দক্ষিণ কলকাতার দু’টি হোটেলে৷ নাম-পরিচয় গোপন করার জন্য তিনি ভোটার কার্ড ও ড্রাইভিং লাইসেন্স জাল করেছিলেন৷ কলকাতায় এসে ম্যাথু নজরুল ইসলাম ওরফে বেচু নামে এক চালকের লাক্সারি ট্যাক্সি ব্যবহার করেছিলেন৷ বেচুর সঙ্গে ম্যাথুর পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন রিপন স্ট্রিটের ব্যবসায়ী তারজাদ আলি মির্জা৷ এই তারজাদের সন্ধানেও তল্লাশি শুরু করেছে পুলিশ৷

স্টিং অপারেশন চালানোর আগে যে রাজনৈতিক নেতা ম্যাথুর অ্যাকাউন্টে  টাকা পাঠিয়েছিলেন, তার ব্যবসা রয়েছে ভিন রাজ্যে৷ ওই রাজনৈতিক নেতাকেও লালবাজারে ডেকে জেরা করতে চান গোয়েন্দারা৷ অন্যদিকে, এক সপ্তাহের মধ্যে ম্যাথু স্যামুয়েলকে জেরার জন্য লালবাজারে হাজির হতে হবে বলে নির্দেশ দিয়েছে ব্যাঙ্কশাল আদালত৷ লালবাজারের গোয়েন্দাকর্তারা জানিয়েছেন, ম্যাথুকে জেরার জন্য আসতে বলে দু-দু’বার নোটিস পাঠানো হয়েছে৷ তবু এখনও পর্যন্ত তাঁর কাছ থেকে কোনও উত্তর আসেনি৷ গোয়েন্দাদের মতে, স্টিং কাণ্ডের তদন্তে অনেক ‘মিসিং লিঙ্ক’ রয়ে গিয়েছে৷ তার কিনারা করতে ম্যাথু স্যামুয়েলকে ভালভাবে জেরা করা প্রয়োজন৷ আদালতের নির্দেশেও তিনি যদি লালবাজারে হাজিরা না দেন, তাহলে ব্যবস্থা নিতে আইনজ্ঞদের পরামর্শ নেওয়া হবে৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement