BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ছাত্রদের পাকিস্তানের বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্ররোচনা প্রাক্তন সেনাকর্তার

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 14, 2016 9:41 am|    Updated: August 14, 2016 10:10 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামকে ব্যঙ্গ করে, প্রতিবেশী পাকিস্তানের বিরু‌দ্ধে উস্কানিমূলক ভাষণ দিয়ে বিতর্কে এক প্রাক্তন সেনাকর্তা৷ বৃহস্পতিবার মাদ্রাজ আইআইটি-তে দেওয়া সেই ভাষণ ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে পরিবেশ৷ এমনকী, পঞ্চম বর্ষের এক ছাত্র সরাসরি অধিকর্তার কাছে চিঠি লিখে প্রতিবাদও জানিয়েছেন৷
চিঠিতে পঞ্চম বর্ষের ছাত্র অভিনব সূর্য জানান, “মাদ্রাজ আইআইটি-র মতো একটি প্রতিষ্ঠান স্বাধীনতা দিবসের প্রাক্কালে বিশেষ অনুষ্ঠানের নামে যে এমন বিদ্বেষপূর্ণ, ছাত্রদের মধ্যে হিংসা ছড়ানোর ভাষণ দেওয়ার মঞ্চ তৈরি করে দিয়েছে, সেটাই আমি মেনে নিতে পারছি না৷ ওই ভাষণে মানবতার অপমান ও শত্রুতায় ইন্ধন দেওয়া হয়েছে৷ মহিমাণ্বিত করা হয়েছে নৃশংসতাকে৷” যুক্তিহীন উগ্র স্বদেশপ্রেমকে উস্কে দিয়ে মেজর জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) জি ডি বক্সি শ্রোতাদের পাকিস্তানের বিরু‌দ্ধে যু‌দ্ধে প্ররোচনা দিয়েছেন বলে অভিনব অভিযোগ করেন৷ তাঁর দাবি, “বিদ্বেষ ছড়াতে গিয়ে জেনারেল বক্সি সমস্ত সীমা অতিক্রম করে গিয়েছিলেন৷ তিনি বলেন, আমাদের প্রজন্মে পাকিস্তানকে দু’টুকরো করেছি৷ তোমাদের প্রজন্ম ওদের চার টুকরো করে দাও৷ তাহলেই আমরা শান্তিতে থাকতে পারব৷”
ওই ছাত্রের অভিযোগ, জেনারেল বক্সির বক্তৃতার সবচেয়ে কুরুচিপূর্ণ অংশ ছিল স্বাধীনতা সংগ্রামকে অসম্মান করা৷ তিনি নাকি দাবি করেন, সেনাবাহিনীতে থাকা ভারতীয়রাই দেশকে স্বাধীন করেছেন৷ অহিংসার নামে বাকি যা হয়েছে, সে সমস্তই ছিল অর্থহীন বোকামি৷ হিংসার বিরু‌দ্ধে পাল্টা হিংসার তত্ত্ব প্রচার করে ছাত্রদের আগ্রাসী আচরণের জন্য জেনারেল উস্কানি দিয়েছেন বলেও ছাত্রটির দাবি৷ এই চিঠির কথা প্রকাশ হতেই সোশ্যাল মিডিয়ায় পক্ষে-বিপক্ষে মন্তব্যের ঝড় শুরু হয়৷ অনেকেই জেনারেল বক্সির বক্তৃতার বিরু‌দ্ধে কড়া মন্তব্য করেন৷ অনেকেই আবার তাঁর পক্ষ নিয়ে পাল্টা আক্রমণ করেন অভিনবকে৷
যদিও শুক্রবার একটি অনলাইন পোস্টে নিজের বক্তব্যের সমর্থনে মুখ খুলেছেন ওই অবসরপ্রাপ্ত সেনাকর্তা৷ তিনি জানান, “জম্মু ও কাশ্মীর নিয়ে তিনি বলার সময় উপস্থিত কয়েকজন ছাত্র চিৎকার করে তাঁকে থামিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছিল৷ তবে আনন্দের বিষয়, শ্রোতাদের অধিকাংশই তাদের বিদ্রুপ করে বসিয়ে দেয়৷ আইআইটি ছাত্রছাত্রীদের সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশের আচরণে আমি গর্বিত৷ ওঁরা নির্বিঘ্নে বক্তৃতা শেষ করার জন্য ঠিক কাজই করেছিলেন৷”
জেনারেল বক্সি আরও জানান, পাকিস্তানের উপদ্রব অনেক সহ্য করা হয়েছে৷ সম্প্রতি জম্মু ও কাশ্মীরে পাকিস্তান যেভাবে হিংসায় মদত দিচ্ছে, তা আর সহ্য করা উচিত নয়৷ এবার ভারতকেও পাল্টা জবাব দিতে হবে৷ পাশাপাশি, পাকিস্তানকে মদত দেওয়ায় কড়া জবাব দিতে হবে চিনকেও৷ আম্বেদকর পেরিয়ার স্টাডি সার্কেলের সদস্য ও প্রতিবাদী ছাত্র অভিনব মেনে নিয়েছেন যে, জম্মু ও কাশ্মীরে অসামরিক ব্যক্তিদের উপর আক্রমণ নিয়ে জেনারেল বক্সির বক্তব্যে আহত হন প্রায় জনা দশেক কাশ্মীরি ছাত্র৷ অন্য ছাত্ররা তাঁদের হুমকি দিয়ে চুপ করিয়ে দেন৷ তাঁর আরও দাবি, ওই বিদ্বেষপূর্ণ বক্তৃতা শুনে তাঁরা অনেকেই আতঙ্কিত হয়ে পড়েন ও হল ছেড়ে বেরিয়ে যেতে চেয়েছিলেন৷
এ বিষয়ে মাদ্রাজ আইআইটি-র অধিকর্তা ভাস্কর রামমূর্তি জানান, ‘একস্ট্রা ম্যুরাল লেকচার’ (ইএমএল) কর্মসূচির অংশ হিসাবে ওই বক্তৃতার ব্যবস্থা করা হয়েছিল৷ “এটা কোনও সরকারি অনুষ্ঠান নয়৷ আমাদের সংস্থার ভাবমূর্তি নিয়েও তাই কোনও প্রশ্ন নেই,” বলেন রামমূর্তি৷ তবে বক্তৃতায় কোনও বেআইনি বিষয় ছিল কি না, তা ইএমএল টিমকে খতিয়ে দেখতে বলেছেন অধিকর্তা৷ মাদ্রাজ আইআইটি-র প্রোজেক্ট অ্যাসিস্ট্যান্ট চিরাগ খালদে ও গবেষক ছাত্র দীপক ওঝা বিবৃতি দিয়ে জানান, “ওই বয়সের ও মর্যাদার এক ব্যক্তিকে যেভাবে অসম্মান করা হচ্ছে, তা কোনও মতেই মেনে নেওয়া যায় না৷ একটা সুন্দর বক্তৃতাকে বিদ্বেষমূলক বলে প্রচার করা হচ্ছে৷”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement