BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ভাঙল নদীবাঁধ, উত্তরবঙ্গে বাড়ছে বন্যার প্রকোপ

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: July 26, 2016 9:43 am|    Updated: July 26, 2016 9:43 am

An Images

স্টাফ রিপোর্টার: এবার পাকা বাঁধ ভাঙল আগ্রাসী ডায়না নদী৷ ভেসে গেল নাগরাকাটার খেরকেট্টা গ্রাম৷ অন্যদিকে, প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে গিয়ে আশ্রয় নিলেন কোচবিহারের গীতালদহের জারিধল্লা-দড়িবসের বানভাসিরা৷ জলদাপাড়ায় ডুবে গেল বন্যপ্রাণীদের নজরদারিতে তৈরি ওয়াচ টাওয়ার৷ আলিপুরদুয়ারে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ৷ জল ঢুকছে শহরে৷ নিচু এলাকা থেকে বাসিন্দাদের সরে যেতে সোমবার মাইকিং করা হয় প্রশাসনের তরফে৷ আলিপুরদুয়ারবাসীর মনে ’৯৩-এর ভয়াবহ বন্যার স্মৃতি ফিরে এসেছে৷ সন্ধ্যায় মাইকিং করা হয় জলপাইগুড়ি শহরে৷ বন্যা পরিস্থিতির জেরে সোম ও মঙ্গলবার কোচবিহারের সব স্কুলে ছুটি ঘোষণা করে দিয়েছে জেলা প্রশাসন৷ উত্তরের প্রায় সব নদীই বিপদসীমার উপর দিয়ে বইছে৷ নিজেদের প্রাণ বিপন্ন করে ঘিস নদীতে ভেসে আসা বিরল বন্যপ্রাণীকে উদ্ধার করেন বানভাসিরা৷ চুম্বকে এই হল উত্তরবঙ্গের দুর্যোগের চিত্র৷ সোমবার দিল্লি যাওয়ার আগে উত্তরবঙ্গের পরিস্থিতি নিয়ে বিস্তারিত খোঁজ নেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ বিপর্যয় মোকাবিলা ও সেচ দফতরকে প্রয়োজনীয় নির্দেশ দিয়ে যান তিনি৷
জল বাড়ছে তিস্তা, তোর্সা, জলঢাকা, রায়ডাক, সঙ্কোশ, মানসাই, কালজানি নদীতে৷ মামার বাড়িতে বেড়াতে এসে জলপাইগুড়ি শহর সংলগ্ন পাঙ্গা নদীতে ডুবে এদিন মৃত্যু হল সমীর দাস (২০) নামে বিহারের এক যুবকের৷ রাজ্য সড়কের উপর দিয়ে জল বইছে ডুয়ার্সের বীরপাড়া-লঙ্কাপাড়া এলাকায়৷ ফলে বন্ধ যান চলাচল৷ গীতালদহেও রাস্তার উপর দিয়ে বইছে জলের স্রোত৷ ডুয়ার্সের পদমতী এলাকার বন্যা পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর৷ সোমবার সরেজমিনে পরিস্থিতি পরিদর্শন করেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ, পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব, শিলিগুড়ি-জলপাইগুড়ি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান, বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তী৷ নবান্ন সূত্রের খবর, উত্তরবঙ্গের ১৫০টি গ্রামের ৫৭ হাজার মানুষ জলবন্দি৷ বিপর্যয় মোকাবিলা দফতর থেকে ১৯৬০ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে৷
সেচমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় এদিন বলেন, “কুড়ি বছরের মধ্যে এত বৃষ্টি হয়নি৷ টানা দশদিন ধরে বৃষ্টি চলছে৷ এছাড়া ভুটান ও সিকিম থেকে জল নিচের দিকে নামায় পরিস্থিতি আরও জটিল হয়েছে৷” দফতর সূত্রের খবর, পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে উত্তরবঙ্গে যেতে পারেন সেচমন্ত্রী৷
এদিকে পাহাড়ে ধস অব্যাহত৷ ধসের জেরে এদিন বন্ধ হয়ে যায় রোহিণীর রাস্তা৷ ফলে শিলিগুড়ি থেকে পাঙ্খাবাড়ি হয়ে ঘুরপথে দার্জিলিং যেতে হয়েছে নিত্যযাত্রী ও পর্যটকদের৷ জলবাহিত রোগ ঠেকাতে জনস্বাস্থ্য কারিগরি দফতরকে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী গৌতম দেব৷ ত্রাণ না পেয়ে এদিন মেখলিগঞ্জের নিজতরফ এলাকায় ক্ষুব্ধ বাসিন্দারা তালা ঝুলিয়ে দেন গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসে৷ এরই মধ্যে নদী থেকে বালি-পাথর তুলতে না দেওয়ার প্রতিবাদে এদিন অবরোধ হয় শিলিগুড়ির মাটিগাড়ায়৷ জল জমার ঘটনায় অবরোধ হয় আলিপুরদুয়ারের শোভাগঞ্জেও৷
করলা নদীর জল তিস্তায় পড়তে পারছে না৷ উল্টে তিস্তার জল করলায় ঢুকে পড়ছে৷ এতে জলপাইগুড়ি শহর ভাসার আশঙ্কা৷ বানারহাটে হাসপাতাল, থানায় জল ঢুকেছে৷ জলপাইগুড়ি সদর হাসপাতালেও জল ঢুকছে৷ ধূপগুড়ির গাদং মুন্ডাবস্তিতে এদিন আটকে পড়ে ৭০টি পরিবার৷ তাঁদের উদ্ধার করে অসামরিক প্রতিরক্ষা বাহিনী৷ ময়নাগুড়ির বাসুসুবা এলাকায় কংক্রিটের বাঁধে আছড়ে পড়ছে তিস্তা৷ ফলে এবার সংরক্ষিত এলাকায় প্লাবনের আশঙ্কা৷ মেখলিগঞ্জেও শহর সংলগ্ন তিস্তার তিন ও চার নম্বর স্পার বাঁধ ভাঙছে৷ জলঢাকা নদীর জলে প্লাবিত হয়েছে সাকুয়াঝোরা, মল্লিকপাড়া, গদেহারকুঠি, দেউমালি৷ এনএইচপিসি-র জল ছাড়া অব্যাহত৷ এদিনও তিস্তা ব্যারেজ থেকে তিন হাজার কিউসেক জল ছাড়া হয়েছে৷ প্রশাসনের কাছ থেকে পর্যাপ্ত ত্রাণ মিলছে না বলে তোপ দেগেছেন জলপাইগুড়ির পুরপ্রধান মোহন বসু৷ আলিপুরদুয়ারে সেচ দফতরের কাজ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তী৷ এদিন জেলাশাসকের ডাকা বৈঠকে ওই ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি৷ এমনিতে বিচ্ছিন্ন টোটোপাড়া৷ তার উপর এদিন রাতে ভুটান পাহাড়ে ধসের খবর মিলেছে৷ ফলে ভুটান পাহাড় লাগোয়া ডুয়ার্সের জনপদে নতুন করে বিপর্যয়ের আশঙ্কা৷ বাসরা নদীর জলে প্লাবিত জয়গাঁ, মঙ্গলবাড়ি৷ তোর্সার বাঁধ ভেঙেছে তেলিবস্তিতে৷ বন্যা পরিস্থিতির জেরে কোচবিহারের দশটি ব্লক ক্ষতিগ্রস্ত বলে জেলা প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement