BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ঢাকার রেস্তোরাঁয় আইএস হানা, হত ৪

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: July 2, 2016 9:47 am|    Updated: July 2, 2016 10:14 am

An Images

সুকুমার সরকার: ভোরবেলায় ঝিনাইদহে মন্দিরের পুরোহিত খুনের দায় স্বীকার করেছিল আইএস৷ ফের সন্ধ্যারাতে রাজধানী ঢাকার অভিজাত গুলশন এলাকার রেস্তোরাঁয় দেশি-বিদেশি অতিথিদের পণবন্দি করল সশস্ত্র আইএস জঙ্গিরা৷ ঈদের আগে শেষ ছুটির দিন, শুক্রবার এমনভাবে রক্তাক্ত সন্ত্রাসের সাক্ষী হল বাংলাদেশ৷ প্রাথমিক পাওয়া খবরে জানা গিয়েছে, ঘটনায় চারজন নিহত হয়েছেন৷ এদের মধ্যে তিনজন বিদেশি নাগরিকও রয়েছেন৷ তবে অসমর্থিত সূত্রের খবর, প্রাণ হারিয়েছেন প্রায় ২০ জন৷ আহতের সংখ্যা কমপক্ষে ৩০৷ বেশিরভাগই পুলিশকর্মী৷ রেস্তোরাঁর ভিতরে অন্তত ৬৫ জনকে পণবন্দি করে রেখেছে জঙ্গিরা৷ র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন, বর্ডার গার্ড অফ বাংলাদেশ এবং পুলিশ যৌথভাবে জঙ্গি মোকাবিলায় ঘটনাস্থলে রয়েছে৷ জঙ্গিদের সঙ্গে গুলিবিনিময় চলছে৷ সম্প্রতি কয়েক দশকে বাংলাদেশে এমন ভয়ঙ্কর জঙ্গি হামলার ঘটনা ঘটেনি৷ ভারতের বিদেশমন্ত্রক জানিয়েছে, ঢাকায় এই সময় অবস্থানরত ভারতীয়রা নিরাপদে রয়েছেন৷ তবে ঘটনার জেরে হাই অ্যালার্ট জারি হয়েছে কলকাতায়৷
এদিন ২৬/১১ মুম্বই তাজ হোটেলে জঙ্গি হামলার সেই আতঙ্ক ফিরল ঢাকায়৷ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান হত্যাকাণ্ডের পর এতবড় সন্ত্রাসের সাক্ষী হয়নি ওপার বাংলা৷ বিদেশি কূটনীতিকদের পাশাপাশি দেশের পুলিশ কর্তাদের হত্যা করে গোটা বিশ্বের সন্ত্রাসী হানার তালিকায় ঢাকার নাম তুলে দিল জঙ্গিরা৷ ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷
শুক্রবার, ঈদের আগের শেষ ছুটির দিন গুলশনের ৭৯ রোডের স্প্যানিশ রেস্তোরাঁ হলে আর্টিসান বেকারিতে যথেষ্ট অতিথি সমাগম হয়েছিল৷ এই রেস্তোরাঁয় আসা অতিথিদের মধ্যে বিদেশিরাই বেশি৷ এদিন স্থানীয় সময় রাত ৮.৪৫ নাগাদ সাত-আটজন মুখোশধারী সশস্ত্র জঙ্গি আচমকা রেস্তোরাঁর ভিতর ঢুকে পড়ে৷ এই এলাকাটিতে ভারত-সহ অনেকগুলি বিদেশী দূতাবাস রয়েছে৷ সেখানে বিদেশি কূটনীতিকদের বাস৷ গোয়েন্দাদের অনুমান, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নজর কাড়ার জন্যই জঙ্গিরা এই হামলা চালিয়েছে৷
জঙ্গিদের দখল নেওয়া রেস্তোরাঁ থেকে কোনওক্রমে পালিয়ে আসতে পেরেছেন কয়েকজন কর্মী৷ তাঁদের মধ্যে রেস্তোরাঁর সুপারভাইজার সুমন রেজা দাবি করেন, হামলাকারীদের একজনের হাতে তরোয়াল ছিল, বাকিদের হাতে রয়েছে স্বয়ংক্রিয় আগ্নেয়াস্ত্র৷ তারা রেস্তোরাঁয় ঢুকেই বোমা ফাটাতে শুরু করে৷ কয়েক রাউন্ড গুলিও চালায় তারা৷ হামলাকারীরা ‘আল্লা হু আকবর’ ধবনি দিচ্ছিল৷
সঙ্গে সঙ্গে নিরাপত্তাবাহিনী এলাকাটি ঘিরে ফেলে৷ শুরু হয় জঙ্গিদের সঙ্গে গুলি বিনিময়৷ পুলিশকে লক্ষ্য করে গ্রেনেড ছোড়ে জঙ্গিরা৷ এলাকাটির উপর র‍্যাবের হেলিকপ্টার চক্কর দিচ্ছে৷ র‍্যাবের ডিজি বেনজির আহমেদ জানিয়েছেন, মৃতদের মধ্যে রয়েছেন বনানী থানার ওসি শেখ সালাউদ্দিন আহমেদ ও রবিউল ইসলাম নামে গোয়েন্দা পুলিশের এক অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিশনার৷ তবে সেখানে জমায়েত হওয়া প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, আরও আট-দশজনকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা গিয়েছে৷
অসংখ্য আহত৷ আহতদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ এবং ইউনাইটেড মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি করা হয়েছে৷ তাদের মধ্যে বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক৷ আহতদের মধ্যে রয়েছেন পুলিশের এডিজি মামুন হাসান৷
ঢাকা শহরে লাল সতর্কতা জারি করা হয়েছে৷ টিভিতে জঙ্গি-দমন অভিযানের সরাসরি সম্প্রচার নিষিদ্ধ করা হয়েছে৷ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উচ্চ পদস্থ আধিকারিকও সেনাপ্রধানকে নিয়ে জরুরি বৈঠকে বসেছেন৷ প্রধানমন্ত্রী জঙ্গি দমনে কঠোর পদক্ষেপের নির্দেশ দিয়েছেন৷
প্রথমদফায় জঙ্গিগোষ্ঠীর সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করতে চেয়েচিল বাংলাদেশ প্রশাসন৷ কিন্তু জঙ্গিগোষ্ঠীর সঙ্গে আলোচনার কোনও পথ খুঁজে পাওয়া যায়নি৷  তাই শুক্রবার রাতে আলোচনা এবং মধ্যস্থতার ভাবনা থাকলেও শনিবার প্রায় ভোরবেলা থেকেই জঙ্গি নিকেশে উদ্যত হয় বাংলাদেশ প্রশাসন৷ সকাল পৌনে আটটা নাগাদ  রেস্তোরাঁয় সেনাবাহিনী অভিযান শুরু করে৷ শেষ পাওয়া খবরে জানা গিয়েছে রেস্তোরাঁ থেকে ১৩ জন বন্দিকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে৷ সূত্রের খবর, তাঁদের মধ্যে ১২ জন জাপানের এবং একজন ভারতের বাসিন্দা৷ কিন্তু জঙ্গিরা এখনও বেশকিছু মানুষকে আটক করে রেখেছে বলে খবর৷ কিন্তু  ঠিক  কত জন ব্যক্তি জঙ্গিদের কবলে রয়েছে, সে বিষয়ে সঠিক কোনও তথ্য এখনও পাওয়া যায়নি৷
পাশাপাশি, এক প্রত্যক্ষদর্শী দাবি করেছেন, জঙ্গি-পুলিশ সংঘর্ষের পর একজন জঙ্গিকে জীবিত অবস্থায় আটক করেছে র‍্যাব৷

 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement