BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

পরিবর্তনের ডাক দিয়ে আজ ত্রিপুরায় মমতা

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 8, 2016 9:01 am|    Updated: August 8, 2016 9:01 am

An Images

বিশেষ সংবাদদাতা: বাংলায় যদি পরিবর্তন হয়, তবে ত্রিপুরায় হবে না কেন? বাংলার মানুষ যদি সিপিএমকে হারাতে পারে, তা হলে ত্রিপুরার জনতা কেন পিছিয়ে থাকবে৷

মূলত এই স্লোগানকে সামনে রেখে আজ আগরতলায় পা রাখবেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ কাল, মঙ্গলবার ৯ আগস্ট শহিদ দিবস৷ স্থানীয় আস্তাবল ময়দানে মমতার জনসভা৷ এই সভা ঘিরে ত্রিপুরা উত্তাল৷ প্রবল চিন্তায় সিপিএম৷ মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার দেখার চেষ্টা করছেন, মমতার সফরকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক সমীকরণ কোন দিকে যায়৷ বাংলা থেকে সূর্যকান্ত মিশ্রও ত্রিপুরায় যাচ্ছেন৷ আজ, সোমবার রবীন্দ্রভবনে তাঁর কর্মসূচি৷ হঠাত্‍ মমতার সফরের আগেই সূর্যবাবুর আগরতলা যাওয়া থেকেই স্পষ্ট কতটা চিন্তায় পড়েছে সিপিএম৷

অন্যদিকে, মমতা যাওয়ার আগেই রবিবার সন্ধ্যায় আগরতলা পৌঁছে গিয়েছেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি মুকুল রায়৷ নেত্রীর কর্মসূচি তিনি চূড়ান্ত করছেন৷ এখনও পর্যন্ত যা ঠিক আছে, সোমবার বিকেলে মমতা ত্রিপুরা পৌঁছবেন৷ এর পর স্থানীয় নেতৃত্বের সঙ্গে তাঁর বৈঠক হতে পারে৷ জানা গিয়েছে, নেত্রীর উপস্থিতিতে বামফ্রণ্ট ভেঙে আরও দুই বিধায়ক তৃণমূলে যোগ দিতে পারেন৷

বিধানসভা ভোটে বিপুল গরিষ্ঠতা নিয়ে মমতা বাংলায় দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পরই ত্রিপুরায় তৃণমূলের নতুন করে জমি তৈরি হয়েছে৷ কংগ্রেস চূর্ণ৷ বিরোধী দলনেতা সুদীপ রায়বর্মন-সহ ছয় কংগ্রেস বিধায়ক তৃণমূলে যোগ দেওয়ায় পূর্ব ভারতের ছোট্ট অঙ্গরাজ্য ত্রিপুরায় কংগ্রেসের অস্তিত্ব সংকটে৷ তৃণমূলই এখন সেখানে প্রধান বিরোধী দল৷ বিধানসভা ভোটের পর মমতার জনপ্রিয়তা বেড়েছে, তা বোঝা যাচ্ছে জেলা সফরগুলিতে৷ এর প্রভাব পড়েছে ত্রিপুরাতেও৷ যা খবর, মমতার কথা শোনার জন্য অধীর অপেক্ষায় রয়েছেন এলাকার মানুষ৷ কংগ্রেস দলের বিরাট অংশ তৃণমূল হয়ে যাওয়ায় এই জনসভা নিয়ে কৌতূহল তুঙ্গে৷ তৃণমূল কংগ্রেস গঠনের পর ত্রিপুরাতেও সংগঠন তৈরি করেন মমতা৷ ১৯৯৯ সালের লোকসভা ভোটে কংগ্রেসকে সরিয়ে তৃণমূলই দ্বিতীয় শক্তি হিসাবে উঠে আসে৷ মমতার জনপ্রিয়তার প্রভাব পড়ে অঙ্গরাজ্যেও৷ বিশেষ করে উপজাতিগুলির মধ্যে সিপিএমের যে সংগঠন রয়েছে তাতেও ভাঙন দেখা দেয়৷ কিন্তু শেষ অবধি তৃণমূল জমি ধরে রাখতে পারেনি স্থানীয় নেতৃত্বের গাফিলতিতে৷ এবারও যাতে সেই পরিস্থিতি না হয়, সেদিকেই বিশেষ জোর দিতে চান মুখ্যমন্ত্রী৷ গোটা ত্রিপুরা রাজ্যে সংগঠন বিস্তারের দায়িত্ব তিনি মুকুল রায়ের উপর দিয়েছেন৷ রবিবার তিনি পৌঁছেই তাই আস্তাবল মাঠ পরিদর্শন করেন৷ একপ্রস্ত বৈঠক সারেন স্থানীয় নেতৃত্বের সঙ্গে৷ ২০১৮ সালের শুরুতেই ত্রিপুরার বিধানসভা নির্বাচন৷ হাতে দেড় বছরও সময় নেই৷ তাই এখন সংগঠনকে তৈরি করার কাজে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন মমতা৷ ওই নির্বাচনে ত্রিপুরা থেকে বামফ্রণ্ট সরকারের পরিবর্তনের ডাক দেবেন তিনি৷ গত ২১ জুলাই ধর্মতলার সমাবেশে ৯ আগস্ট শহিদ দিবসের বাৎসরিক কর্মসূচি আগরতলায় করবেন বলে ঘোষণা করেছিলেন মমতা৷ সেদিনই বলেছিলেন, “এবার ত্রিপুরায় পরিবর্তন আনবে তৃণমূল৷” সেই লক্ষ্যেই তাঁর আগরতলা যাত্রা৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement