BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

কাশ্মীরে হামলাকারীদের রেয়াত নয়, হুঁশিয়ারি জেটলির

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 22, 2016 12:45 pm|    Updated: August 22, 2016 12:45 pm

An Images

নন্দিতা রায়: চুয়াল্লিশ দিন পার৷ তবু এখনও কাশ্মীরে অস্থির পরিস্থিতি অব্যাহত রয়েছে৷ এরই মধ্যে রবিবার কুপওয়ারায় অনুপ্রবেশকারী তিন জঙ্গি ভারতীয় নিরাপত্তাবাহিনীর গুলিতে মারা যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে৷ এদিকে শুক্রবারও পাথরবর্ষণের ঘটনাকে কেন্দ্র করে পরিস্থিতি আবার উত্তপ্ত হয়েছে৷

গত শনিবার রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল ন্যাশনাল কনফারেন্সের নেতা ওমর আবদুল্লা ও প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি জি এ মির সদলবলে দিল্লিতে এসে রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠক করে কাশ্মীর নিয়ে তাঁর হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন৷ এরপরই রবিবার কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে বিরোধীদের সমস্ত অভিযোগের জবাব দিতে আসরে নামেন৷ আজ সোমবার কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে রাজ্যের সব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে বৈঠকে বসতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷

এদিন জম্মুতে ‘তেরঙ্গা যাত্রা’-র সূচনা করার পর এক জনসভায় অর্থমন্ত্রী বলেন, কাশ্মীরে যারা হিংসা ছড়াচ্ছে, তাদের প্রতি নরম মনোভাব দেখানোর কোনও প্রশ্নই ওঠে না৷ তবে গত ৬০ বছরে কাশ্মীর যে উন্নয়ন পায়নি তার জন্য যাবতীয় প্রচেষ্টা চালানো হবে৷ তিনি আরও বলেন, কাশ্মীরে যারা পাথর ছুড়ছে তারা মোটেই সত্যাগ্রহী নয়, বরং আগ্রাসনকারী ও হামলাকারী৷ তাদের আক্রমণের লক্ষ্য পুলিশ ও নিরাপত্তাবাহিনী৷ ২ হাজার মানুষ যদি একটি থানায় পাথর বর্ষণ করে, যেখানে মাত্র ১০ জন পুলিশকর্মী রয়েছে, তবে তাকে হামলাই বলে৷ কিন্তু কিছু লোক সেটা বুঝতে পারছে না৷ তাদের দৃষ্টি সীমাবদ্ধ৷ ক’দিন আগেই বিরোধীরা অভিযোগ তোলে যে, কাশ্মীরের অস্থির পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদি সরকারের কোনও নীতিই নেই৷ জেটলি এদিনের মন্তব্যকে বিরোধীদের অভিযোগের জবাব বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷

কাশ্মীরের অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি নিয়ে এদিন পাকিস্তানকেও ফের কাঠগড়ায় তুলেছেন জেটলি৷ তিনি বলেন, ১৯৪৭-এ দেশভাগের পর থেকে যুদ্ধ করে, অশান্তিতে ইন্ধন জুগিয়ে জম্মু ও কাশ্মীর ছিনিয়ে নিতে ব্যর্থ হয়ে এবার ভারতের ঐক্য ও সংহতিতে নতুন করে আঘাত হানতে চাইছে ওরা৷ যুদ্ধ করে জম্মু ও কাশ্মীর ছিনিয়ে নেওয়া যাবে না, বুঝতে পেরে প্রশিক্ষণ দিয়ে সশস্ত্র জঙ্গিদের ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ জঙ্গিরাও খতম হওয়ার পর নতুন কৌশল– নিরাপত্তাবাহিনী ও পুলিশকে লক্ষ্য করে ওরা পাথর ছোড়া শুরু করেছে৷ বইয়ের পরিবর্তে স্কুল পড়ুয়াদের হাতে পাথর তুলে দেওয়া হয়েছে৷ কিন্তু যাঁদের দৃষ্টিভঙ্গি সীমিত, তাঁরা শুধু আক্রমণকারীদের গ্রেফতারিটাই বড় করে দেখছেন৷ হাজার হাজার পুলিশ, নিরাপত্তাবাহিনীর জওয়ান যে আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি সেটা তাঁরা দেখতে পাচ্ছেন না৷ এদিনই আবার বিজেপির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে, কাশ্মীরে আগুন জ্বালাতে বিরোধীরা ইন্ধন জোগাচ্ছে৷ দলের সাধারণ সচিব শ্রীকান্ত শর্মা রবিবার এই অভিযোগ করেছেন৷ অভিযোগ পাল্টা অভিযোগের তরজা ছড়িয়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতেও৷ বিজেপির সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব ও ওমর আবদুল্লা টুইটারে কাশ্মীর নিয়ে একে অপরকে বিঁধেছেন৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement