৪ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

আলোচনার মাধ্যমেই কাশ্মীর সমস্যার সমাধান চাইছে কেন্দ্র

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 23, 2016 9:56 am|    Updated: August 23, 2016 9:56 am

An Images

নন্দিতা রায় ও জ্যোতির্ময় কর্মকার: আলোচনার মাধ্যমেই কাশ্মীর সমস্যার চিরস্থায়ী সমাধানসূত্র খুঁজতে সরকার বদ্ধপরিকর বলে ফের বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ আর এক্ষেত্রে রাজনীতির রং না দেখে সব দলকেই একজোট হয়ে কাজ করার আবেদন জানালেন তিনি৷ সোমবার জম্মু-কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লার নেতৃত্বে রাজ্যের বিরোধীদলগুলির ২০ সদস্যের এক প্রতিনিধিদল দেখা করে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে৷ এই বৈঠকেই উপত্যকার সাম্প্রতিক পরিস্থিতি নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “নিরাপত্তারক্ষী হোক বা সাধারণ মানুষ, অশান্তিতে যাঁদের প্রাণ গিয়েছে তাঁরা সকলেই আমাদেরই দেশের যুবক৷ পুরো ঘটনায় আমরা মর্মাহত৷” দীর্ঘ প্রায় এক ঘণ্টা পনেরো মিনিটের বৈঠকের পর প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে বিবৃতি জারি করে বলা হয়, জম্মু-কাশ্মীরের বিরোধীদলের প্রতিনিধিদের গঠনমূলক প্রস্তাবকে স্বাগত জানাচ্ছে সরকার৷ সাংবিধানিক পরিকাঠামোর মধ্যে থেকেই নিয়মিত আলোচনার মাধ্যমে উপত্যকা সমস্যার চিরস্থায়ী সমাধান করতে বদ্ধপরিকর আমরা৷
প্রসঙ্গত, কাশ্মীর অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠার পর থেকেই কেন্দ্র এবং কাশ্মীরের পিডিপি-বিজেপি সরকারের কঠোর মনোভাবকে বারবার কাঠগড়ায় তুলেছে কংগ্রেস-সহ বিরোধীরা৷ পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য সরকার বিরোধীদের সঙ্গে আলোচনা করছে না বলে একাধিকবার অভিযোগ তুলেছে কংগ্রেসের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব৷ সেই প্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রীর এদিনের মন্তব্যকে যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷ এদিন বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন, “সরকার এবং দেশ জম্মু-কাশ্মীরের পাশে আছে৷” একইভাবে সব রাজনৈতিক দলকেও উপত্যকার সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে এই বার্তা দেওয়ার জন্য আবেদন করেন তিনি৷
প্রধানমন্ত্রীর এহেন ইতিবাচক অবস্থানকে স্বাগত জানিয়েছেন ওমর আবদুল্লাও৷ এদিনের বৈঠকে কাশ্মীরের চিরকালীন অস্থির পরিস্থিতিকে স্বাভাবিক করার জন্য একটি রাজনৈতিক সমাধানসূত্র বের করতে প্রধানমন্ত্রীকে আবেদন করেন ন্যাশনাল কনফারেন্সের কার্যকরী সভাপতি৷ বৈঠক শেষে বলেন, “শুধু উন্নয়নের মাধ্যমেই যে কাশ্মীরের সমস্যার সমাধান হবে না, এই বক্তব্যে সহমত হয়েছেন প্রধানমন্ত্রীও৷ আমরা জোরের সঙ্গে বলেছি, কাশ্মীর সমস্যা পুরোদস্তুর রাজনৈতিকই নয়, সেখানে আরও অনেক বিষয় রয়েছে৷ থেকে থেকেই এ ধরনের অস্থির পরিস্থিতি তৈরি হয়৷ কিন্তু আমরা যদি এর রাজনৈতিক সমাধান করতে না পারি, তবে আমরা আমাদের পুরনো ভুলের পুনরাবৃত্তি করেই যাব৷” এই প্রেক্ষিতে আগে সমস্যার মূল জায়গাগুলিকে ভালভাবে বুঝে নিয়ে তবেই সমাধানের রাস্তার দিকে হাঁটার কথা প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরেন তিনি৷

kashmir1_web
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠকে ওমর আবদুল্লার নেতৃত্বাধীন বিরোধী দলগুলির প্রতিনিধিরা৷ সোমবার নয়াদিল্লিতে৷ ছবি: পিটিআই।

বস্তুত সংসদের সদ্য সমাপ্ত বাদল অধিবেশনেও কাশ্মীর সমস্যা সমাধানে বিরোধীদলগুলিকে পাশে নিয়েই পদক্ষেপ করার কথা বারবার বলেছে সরকারপক্ষ৷ এদিন কার্যত সেই সুরই ধরে রেখেছিলেন প্রধানমন্ত্রী৷ রাজনৈতিক মহলের ব্যাখ্যা, পিডিপির সঙ্গে ওমর আবদুল্লার ন্যাশনাল কনফারেন্সের রাজ্য-রাজনীতির বিরোধ যাতে কোনও পরিস্থিতিতেই অশান্তি নিয়ন্ত্রণে প্রতিবন্ধক হয়ে না দাঁড়ায়, পরোক্ষে সেই বার্তাও স্পষ্ট করে দিয়েছেন মোদি৷ এদিন ওমর আবদুল্লার সঙ্গে ২০ সদস্যের প্রতিনিধিদলে ছিলেন জম্মু-কাশ্মীর প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি জি এ মির এবং সিপিএম বিধায়ক মহম্মদ ইউসুফ তারিগামি৷ বিকেলে দিল্লিতে সিপিএমের সদর দফতর এ কে গোপালন ভবনে গিয়েও সীতারাম ইয়েচুরি, প্রকাশ কারাত-সহ সিপিএম নেতৃত্বর সঙ্গে আরও একপ্রস্থ বৈঠক করেন ওমর আবদুল্লা৷ তাঁর সঙ্গে ছিলেন জম্মু-কাশ্মীরের কংগ্রেস নেতৃত্বও৷
উল্লেখ্য, শনিবার থেকেই বিরোধী প্রতিনিধিদলকে সঙ্গে নিয়ে রাজধানীতে বিভিন্ন দলের সঙ্গে দেখা করতে শুরু করেছেন ন্যাশনাল কনফারেন্সের কার্যকরী সভাপতি৷ রবিবার দেখা করেছেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধীর সঙ্গেও৷ এমনকী, উপত্যকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারকে চাপ দেওয়ার জন্য রাইসিনা হিলসে গিয়ে রাষ্ট্রপতিকেও আবেদন করে এসেছেন আবদুল্লা৷ এদিন সিপিএম অফিস থেকে বেরিয়ে তাৎপর্যপূর্ণভাবে তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রী বলেছেন তিনি সমস্যার স্থায়ী সমাধানসূত্র বের করতে চান৷ কিন্তু যখন সমস্যা হয়, আমরা উঠে-পড়ে লাগি৷ তার পর সব ভুলে যাই৷ এবার যে কোনও মূল্যে আমরা এই ইস্যুকে তাজা রাখব৷ তাই সব বিরোধীদলের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছি আমরা৷”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement