BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

তোলাবাজির অভিযোগে ধৃত তৃণমূল কাউন্সিলর অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: July 12, 2016 1:24 pm|    Updated: July 12, 2016 5:43 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: তোলাবাজির অভিযোগে গ্রেফতার বিধাননগর পুরনিগমের তৃণমূল কাউন্সিলর অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়৷ বাড়ি সম্প্রসারণের জন্য বেআইনিভাবে টাকা চাওয়ার অভিযোগ ওঠে তাঁর বিরুদ্ধে৷ সেই সুত্র ধরেই মঙ্গলবার সকালে বিধাননগর উত্তর থানায় তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা হয়৷ জিজ্ঞাসাবাদের সময় অনিন্দ্যর কথায় অসঙ্গতি পাওয়া যায়৷ পুরো বিষয়টি বিধাননগর কমিশনারেটের কর্তারা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জানান৷ মুখ্যমন্ত্রীর কড়া নির্দেশেই গ্রেফতার কর হয় তৃণমূলের কাউন্সিলরকে৷

অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায় বিধাননগর পুরসভার ৪১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর৷ এই নিয়ে দ্বিতীয়বার জয়ী হন৷ গত পুরভোটেও ৪১ নম্বর ওয়ার্ডে ব্যাপক অশান্তি হয়েছিল৷ সেই সময়ই নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন৷ দলীয়স্তরেও তাঁর বিরুদ্ধে বহু সময় অভিযোগ এসেছে৷ ওয়ার্ডে কোনও বাড়ি তৈরি বা বাড়ি সম্প্রসারণের সময় অনিন্দ্যকে টাকা দিতে হত৷

সম্প্রতি বিসি ব্লকের এক বাসিন্দাকে অনিন্দ্য নানাভাবে হেনস্তা করছেন বলে অভিযোগ আসে৷ ওই বাসিন্দা আবার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওয়াজেদের আত্মীয়৷ ঢাকার গুলশানে হামলার পর মমতা ও হাসিনার মধ্যে কথোপকথনের সময় হাসিনা সেই প্রসঙ্গ তোলেন৷ মুখ্যমন্ত্রী হাসিনার কাছ থেকে ওই ব্যক্তির ফোন নম্বর নেন৷ তখনই ওই ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলেন৷ তারপরই পুলিশকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলেন৷

এছাড়াও এই ব্লকের এক বাসিন্দার অভিযোগ পেয়ে লোকসভায় তৃণমূলের নেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ও মমতাকে জানান বলে দলীয় সূত্রে খবর৷ জানা গিয়েছে, এ ই ব্লকের বাসিন্দা সন্তোষ লোধ অভিযোগ করেন, বিডি ব্লকে বাড়ি মেরামতির জন্য ইমারতি দ্রব্য ফেলার পর থেকেই গোলমাল শুরু করে অনিন্দ্যর দলবল৷ গত বছরের ২৮ মার্চ গুন্ডাবাহিনী সেগুলি রাস্তায় ফেলে দেয়৷ ১২ লক্ষ টাকা দাবি করে বলে অভিযোগ৷ প্রবীণ সন্তোষবাবু তারপর থেকে বাড়ির কাজ করতে পারেননি৷ তিনি আবার তৃণমূলের শীর্ষ নেতাদের পরিচিত৷ সূত্রের খবর, সোমবারই মুখ্যমন্ত্রী পুলিশকে বিষয়টি তদন্ত করে দেখতে বলেন৷

উল্লেখ্য, বেশ কয়েকজন কাউন্সিলরের কার্যকলাপে মুখ্যমন্ত্রী এর আগে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন৷ অনিন্দ্যর গ্রেফতারির মাধ্যমে দলের সর্বস্তরের জনপ্রতিনিধিদের কড়া বার্তা দিলেন মমতা৷ কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৮৪, ৩৮৫, ৩৮৬, ৩৮৭, ৩৮৮, ৩৮৯ ও ৩৪ নম্বর ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে৷ পাঁচটিই জামিন অযোগ্য ধারা৷ এদিন ময়ূখ ভবনে বিধাননগর আদালতে তোলা হলে ১৪ দিনের জেল হেফাজত দেওয়া হয় তাকে৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement