BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ডেঙ্গু, সিন্ডিকেট ইস্যুতে সল্টলেকের কাউন্সিলরদের ভর্ৎসনা মুখ্যমন্ত্রীর

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 19, 2016 3:38 pm|    Updated: August 19, 2016 3:43 pm

An Images

স্টাফ রিপোর্টার: সুপারিশের নামে বিল্ডিং প্ল্যান, জলের লাইন, নিকাশির মতো অত্যাবশ্যকীয় নাগরিক পরিষেবায় আর নাক গলাতে পারবেন না দলীয় কাউন্সিলররা৷ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে রীতিমতো ছাপার অক্ষরে এই নির্দেশিকা জানিয়ে দেওয়া হল দলের সমস্ত কাউন্সিলরকে৷ রীতিমতো ক্লাস নিয়ে বুঝিয়ে দেওয়া হল, কাউন্সিলরা পুর আইন মেনে কী কী করতে পারবেন আর কী কী পারবেন না৷ আইন ভেঙে এবং দলীয় অনুশাসন বিরোধী কিছু পদক্ষেপ নিলে অভিযুক্ত কাউন্সিলরদের বিরুদ্ধে যে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে, তাও এদিন বুঝিয়ে দিয়েছেন তৃণমূল সুপ্রিমো৷ কর্মশালায় মুখ্যমন্ত্রী সল্টলেক কর্পোরেশনের কাউন্সিলরদের রীতিমতো ভর্ৎসনা করেন৷ বলেন, “সিন্ডিকেট কথাটা আপনাদের কাছ থেকেই রাজ্য শিখছে৷ যাদের ভোটে জিতেছেন, তাদের উপরই জুলুম করছেন টাকার জন্য৷ ঠিক করে নিন, নোটে থাকবেন, না ভোটে থাকবেন৷ কোনও জনবিরোধী কাজ বরদাস্ত করা হবে না৷”

ডেঙ্গু নিয়েও সল্টলেক পুরসভার কাউন্সিলরদের ভূমিকায় অসন্তোষ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী৷ এরপর রাজ্যের অন্যান্য পুরসভার কাউন্সিলরদের উদ্দেশে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “জনতার সঙ্গে থাকব, জনবিরোধী কোনও কাজে নিজেকে যুক্ত করব না, এমন শপথ নিন৷ মনে রাখবেন, জনতার জন্যই আপনারা-আমরা আজ এখানে পৌঁছেছি৷ জনতাকে সঙ্গে নিয়ে আরও বেশি করে উন্নয়নের কাজে মন দিন৷ কয়েকজন কাউন্সিলরের জন্য গোটা দলের বদনাম হচ্ছে৷ আগে দল, পরে কাউন্সিলর৷ এটা মাথায় রাখবেন৷ কোনওরকম বেআইনি কাজ দল অনুমোদন করবে না৷”

শুক্রবার দলের কাউন্সিলরদের নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ কর্মশালা করে তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্ব৷ মুখ্য বক্তা হিসাবে হাজির ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ কলকাতার নজরুল মঞ্চে এই উপলক্ষে রাজ্যের প্রায় ১১৫টি পুরসভার ২২০০ তৃণমূল কাউন্সিলর এই কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন৷ ছিলেন রাজ্যস্তরের সমস্ত শীর্ষ নেতা৷ কর্মশালার শুরুতেই কাউন্সিলরদের হাতে পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের স্বাক্ষর সম্বলিত পুস্তিকা তুলে দেওয়া হয়৷ তাতেই ছাপার অক্ষরে রয়েছে কাউন্সিলরদের ‘ডু’স অ্যান্ড ডোন্টস’-এর তালিকা৷ পুস্তিকায় বলা হয়, বিল্ডিং প্ল্যান, নিকাশি এবং জলের লাইনের ব্যাপারে কাউন্সিলররা আর নাক গলাতে পারবেননা৷ করতে পারবেন না সুপারিশ৷ এদিনের কর্মশালায় জানানো হয়েছে, পারিবারিক বিবাদ, বাড়িওয়ালা-ভাড়াটিয়ার ঝামেলার মতো ‘ব্যক্তিগত’ বিষয়ে নাক গলাতে পারবেন না জনপ্রতিনিধিরা৷ দলীয় অনুশাসন মেনে মানুষের স্বার্থে কাজ করতে হবে৷ মুখ্যমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমকে পুস্তিকার আকারে আচরণবিধি প্রকাশ করার নির্দেশ দেন৷ ফিরহাদের তৈরি করা পুস্তিকা এদিন সকলের হাতে তুলে দেওয়া হয়৷ একজন ভাল কাউন্সিলরের কী কী ভূমিকা থাকা আবশ্যিক, সেই বার্তাও দেওয়া হয়৷ বেলা এগারোটা থেকে শুরু হয় কর্মশালা৷ মুখ্যমন্ত্রী ছাড়াও এদিনের কর্মশালায় কাউন্সিলরদের করণীয় বিষয় নিয়ে রীতিমতো ‘ক্লাস’ নেন শোভন চট্টোপাধ্যায়, পার্থ চট্টোপাধ্যায়, সুব্রত বক্সিরা৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement