BREAKING NEWS

২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ২৩ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

‘দারুণ লাগছে’, হোয়াইট হাউসে মাস্ক খুলে সমর্থকদের সম্বোধন ‘করোনামুক্ত’ ট্রাম্পের

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: October 11, 2020 12:21 pm|    Updated: October 11, 2020 12:21 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা আক্রান্ত হওয়ার প্রায় ন’দিন পর স্বমহিমায় ফিরলেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প (Donald Trump)। শনিবার, সুস্থ হয়ে ওঠার খুশিতে হোয়াইট হাউসে একটি কমব্যাক অনুষ্ঠানে সমর্থকদের জন্য বক্তব্য রাখেন তিনি। তবে, সাদা বাড়ির ব্যালকনিতে এসে মাস্ক খুলে তিনি বলেন, ‘দারুণ লাগছে’। তাঁর এহেন কাণ্ডে ফের দেখা দিয়েছে বিতর্ক।

[আরও পড়ুন: ক্ষণস্থায়ী সংঘর্ষবিরতি শেষে ফের লড়াই শুরু আজারবাইজান ও আর্মেনিয়ার মধ্যে]

সংবাদ সংস্থা AFP সূত্রে খবর, এদিন হোয়াইট হাউসে জড়ো হওয়া ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থকদের মধ্যে সামাজিক দূরত্বের বলাই ছিল না। অধিকাংশেরই মাথায় ছিল ‘মেক আমেরিকা গ্রেট এগেইন’ লেখা টুপি। তুমুল হর্ষধ্বনির মধ্যে ‘সাদা বাড়ি’র ব্যালকনিতে বেরিয়ে সমর্থকদের উদ্দেশে রিপাবলিকান প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, “আমি আপনাদের ভালবাসি। বেরিয়ে আসুন, ভোট দিন। আমি ভাল আছি। দারুণ লাগছে।” প্রায় মিনিট বিশেকের এই অনুষ্ঠানে সমর্থকরাও প্রবল উচ্ছ্বাসে ফেটে পড়েন। ‘আরও চার বছর’ স্লোগানে মুখরিত হয়ে ওঠে চারপাশ।

তবে হাসপাতাল থেকে মুক্তি পেলেও কোভিড গাইডলাইন না মানার অভিযোগ উঠেছে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে।অভিযোগ, পুরোপুরি সুস্থ হয়ে ওঠার আগেই হাসপাতাল থেকে একপ্রকার জোর করেই চলে এসেছেন তিনি। যা নিয়ে রীতিমতো উত্তাল মার্কিন রাজনীতি। তারপরই ভারচুয়াল প্রেসিডেন্সিয়াল ডিবেটে অংশ না নেওয়ার কথা ঘোষণা করেন তিনি। প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার একটি সাংবাদিক বৈঠকে পেলোসিকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া এবং তাঁর সুস্থতা সম্পর্কে করা হয়। এর উত্তরে ন্যান্সি জানান, আপনারা আগামিকাল আসুন। আমরা মার্কিন কংগ্রেসে সংবিধানের ২৫তম সংশোধনীর অধীনে একটি কমিশন গঠন করতে চলেছি। যার দ্বারা প্রেসিডেন্ট তাঁর যাবতীয় দায়িত্ব থেকে মুক্তি দেওয়া হবে। কারণ, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প করোনা থেকে সুস্থ হওয়ার জন্য যে সমস্ত ওষুধ খেয়েছেন তাতে তাঁর মানসিক স্বাস্থ্যের ক্ষতি হয়েছে বলেই মনে হচ্ছে।

[আরও পড়ুন: ভারচুয়াল বিতর্কে ‘না’ ট্রাম্পের, বাতিল হয়ে গেল আমেরিকার দ্বিতীয় প্রেসিডেন্সিয়াল ডিবেট]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement