BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

চার বছরেই বৃদ্ধ, ধন্দে চিকিৎসকরা

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 10, 2016 4:27 pm|    Updated: August 10, 2016 4:27 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বয়স মাত্র চার৷ অথচ দেখে ৬০ বছরের বৃদ্ধ বলে ভুল হতে পারে৷ আসলে দুরারোগ্য ব্যাধিতে ভুগছে বাংলাদেশের শিশু বায়েজিদ শিকদার৷

বৃদ্ধ বয়সে যেমন কোনও ব্যক্তির চামড়া ঝুলে যায়, ঠিক তেমনই মুখ এবং শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ থেকে অতিরিক্ত চামড়া নিয়েই জন্মেছিল এই শিশু৷ শুধু তাই নয়, চোখে দেখতে ও কানে শুনতেও সমস্যা হয় তার৷ সঙ্গে রয়েছে হৃদরোগও৷ নানা জায়গা ঘুরে অবেশেষে চিকিৎসার জন্য ছেলেকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান তার বাবা লাবলু শিকদার৷ কিন্তু ছেলের ঠিক কী হয়েছে, তা এখনও কোনও চিকিৎসকই বিস্তারিত জানাতে পারেননি৷ তবে দরিদ্র পরিবারের লাবলুকে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে, যে হাসপাতাল বিনামূল্যে তার ছেলের চিকিৎসা করবে৷ কয়েকমাস আগে হাতে শিকড় গজিয়ে উঠেছিল এক বাংলাদেশি ব্যক্তির৷ সেই অদ্ভূত রোগের চিকিৎসা হয়েছিল এই হাসপাতালেই৷

ছোট্ট বায়েজিদের বাবা জানান, “জমি বিক্রি করে স্থানীয় হাসপাতালে ছেলের চিকিৎসা করিয়েছিলাম৷ মন্দির থেকে কবিরাজ, সব জায়গাতেই ছেলেকে নিয়ে গিয়েছি৷ কিন্তু কোনও লাভ হয়নি৷ ঢাকার এই হাসপাতালই আমাদের শেষ ভরসা৷ আমাদের আশা এখানকার ডাক্তাররা আমার ছেলেকে আর পাঁচটা শিশুর মতোই সুস্থ স্বাভাবিক করে তুলতে পারবেন৷”

চিকিৎসকদের প্রাথমিক ধারণা, প্রোজেরিয়া রোগে আক্রান্ত বায়েজিদ৷ যে রোগে অল্প বয়সেই শরীর বুড়োটে হয়ে যায়৷ এই রোগ নিয়েই বলিউডে তৈরি হয়েছিল ‘পা’ ছবিটি৷ অভিনয় করেছিলেন বিগ বি৷ সঠিকভাবে রোগ চিহ্নিত করার জন্য এই শিশুর বেশ কিছু পরীক্ষা করতে হবে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা৷ কারণ দেহ থেকে অতিরিক্ত চামড়া সরিয়ে ফেললে বাচ্চাটির দৃষ্টি ও শ্রবণ শক্তিতে এবং যৌনাঙ্গেও খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে৷ পরিবার বা আত্মীয়দের মধ্যে বিয়ে হলে অনেক সময় শিশুরা এই ধরনের রোগে আক্রান্ত হতে পারে বলে মত চিকিৎসকদের৷

আর পাঁচজনের মতো বায়েজিদও খেতে, পড়তে, খেলতে ভালবাসে৷ খুব তাড়াতাড়ি সুস্থ জীবন পাবে সে, আশায় বুক বেঁধেছে তার পরিবার৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement