২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৬ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

অমানবিক! উইঘুরদের পর এবার উতসুল মুসলিমদের উপর অত্যাচার চালাচ্ছে চিন

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: September 29, 2020 3:13 pm|    Updated: September 29, 2020 3:13 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: শিনজিয়াং প্রদেশে বসবাসকারী উইঘুর মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষদের উপর দীর্ঘদিন ধরে অকথ্য অত্যাচার চালাচ্ছে চিন। এই নিয়ে আন্তর্জাতিক মহলের সমালোচনার মুখেও পড়তে হয়েছে তাদের। কিন্তু, বেজিং যে তাতে কোনও গুরুত্ব দিচ্ছে না ফের তার প্রমাণ পাওয়া গেল। উইঘুরদের পর এবার তারা হাইনান প্রদেশে বসবাসকারী উতসুল মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষদের উপরে অত্যাচার চালাচ্ছে বলে জানা গেল।

আন্তর্জাতিক একটি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে জানা গিয়েছে, শিনজিয়াং প্রদেশ থেকে ১২ হাজার কিলোমিটার দূরে চিনের হাইনান (Hainan) প্রদেশে বসবাস করেন উতসুল সম্প্রদায়ের ১০ হাজার মানুষ। জিনপিংয়ের প্রশাসন নানাভাবে তাঁদের উপর নির্যাতন চালাচ্ছে বলে অভিযোগ। মূলত ওই সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষদের ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরা নিয়েই আপত্তি রয়েছে শি জিনপিং প্রশাসনের। এর জন্য ওই সম্প্রদায়ের কিশোরী, যুবতী ও মহিলাদের হিজাব পরে স্কুল, কলেজ ও অফিসে যাওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এর প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন উতসুল (Utsuls) সম্প্রদায়ের মানুষরা।

[আরও পড়ুন: থামছে না আজারবাইজান-আর্মেনিয়ার যুদ্ধ, শান্তি ফেরাতে মধ্যস্থতার প্রস্তাব সুইজারল্যান্ডের]

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা গিয়েছে, হাইনানের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বাইরে একদল মেয়ে হিজাব পরে নিজেদের পড়ার বই পড়ছে। আর চারিদিক দিয়ে তাদের ঘিরে রয়েছে চিনের পুলিশ। হিজাব পরে থাকার জন্য তাদের স্কুলে ঢুকতে বাধা দেওয়া হচ্ছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরেই চিন থেকে সংখ্যালঘু মুসলিমদের তাড়ানোর চক্রান্ত চলছে। বর্তমানে অত্যাচারের পরিমাণও বহুগুণে বেড়েছে। চিনের কোনও এলাকায় আরবীয় সংস্কৃতির কোনও নিদর্শন না রাখার জন্য নির্দেশ দিয়ে কমিউনিস্ট পার্টির সরকার। তাই দেশজুড়ে ছড়িয়ে থাকা মুসলিম সংস্কৃতির উদাহরণগুলি ধ্বংস করা হচ্ছে। ২০১৭ সাল থেকে গত তিন বছরে শুধুমাত্র শিনজিনাং প্রদেশেই ১৬ হাজার মসজিদ ধ্বংস করা হয়েছে। বন্দিশিবিরে পাঠানো হয়েছে ১০ লক্ষের বেশি মানুষকে।

[আরও পড়ুন: ব্যবসায় লাভই হচ্ছে না! অজুহাতে এক দশক ধরে কর ফাঁকি দিয়েছেন ট্রাম্প, রিপোর্টে ফাঁস]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement