BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘বিপদ কাটতে অনেক দেরি’, করোনা নিয়ে নতুন আশঙ্কার কথা শোনাল WHO

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: April 28, 2020 9:47 am|    Updated: April 28, 2020 9:47 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা নামক মারক ব্যাধি থেকে এখনই নিস্তার নেই। এখনও অনেক অপেক্ষা করতে হবে। এ বিপদ এত সহজে কাটার নয়। COVID-19 নিয়ে নতুন আশঙ্কার কথা শোনাল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (World Health Organization )। WHO-এর ডিরেক্টর-জেনারেল টেড্রোস আধানম ঘেব্রিয়েসুস (Tedros Adhanom Ghebreyesus) বলছেন, করোনার ফলে স্বাভাবিক স্বাস্থ্য পরিষেবায় যে সমস্যা হচ্ছে, তাতে তাঁরা উদ্বিগ্ন। বিশেষ করে শিশুদের স্বাস্থ্য নিয়ে।

WHO

সোমবার WHO-এর দৈনিক বিবৃতিতে ঘেব্রিয়েসুস বলেন, “এই মহামারি বিদায় নিতে এখনও অনেক সময় বাকি। আমাদের সামনে অনেক পথ বাকি। আরও অনেক কাজ করা বাকি।” আফ্রিকা, পূর্ব ইউরোপ, ল্যাটিন আমেরিকা এবং এশিয়ার কিছু দেশে করোনার প্রভাব বৃদ্ধি উদ্বেগে রাখছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে। কিন্তু করোনার থেকেও এই মুহূর্তে WHO-কে চিন্তায় রাখছে অন্য এক আশঙ্কা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা মনে করছে করোনার জন্য চিকিৎসা পরিষেবা দিতে গিয়ে বিঘ্নিত হচ্ছে অন্যান্য চিকিৎসা পরিষেবা। যা কিনা ভয়াবহ রূপ নিতে পারে। ম্যালেরিয়ার মতো মারাত্মক রোগের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বাধা হতে পারে করোনা। WHO বলছে, করোনা রুখতে যে লকডাউন হচ্ছে তার জেরে ইতিমধ্যেই ২১টি দেশে ম্যালেরিয়া-সহ কয়েকটি মারক রোগের টিকার ঘাটটি পড়েছে। যা আগামী প্রজন্মের জন্য ভয়ঙ্কর হতে পারে। WHO বলছে, তাঁরা শিশুদের জন্য বিশেষভাবে চিন্তিত।

[আরও পড়ুন: করোনা সংক্রমণের নিরিখে চিনকে টপকে গেল রাশিয়া, উদ্বিগ্ন পুতিন প্রশাসন]

এর আগেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সতর্ক করেছিল, করোনা পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে। প্রাণঘাতী করোনা এখানেই থামবে না। ভয়ানক পরিস্থিতি দেখা এখনও বাকি। আফ্রিকা ও অন্য দেশ, যেখানে স্বাস্থ্য পরিষেবা উন্নত নয়, সেখানে ভবিষ্যতের ভাইরাস ছড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কায় আগেই চিন্তা ব্যক্ত করে WHO। উল্লেখ্য,  গত শুক্রবারই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (World Health Organization) করোনায় বেশি ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলিকে নিয়ে একটি বৈঠক ডাকে। তাতে উপস্থিত ছিলেন ফ্রান্সের প্রসিডেন্ট, জার্মান চ্যান্সেলার, দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্টের মতো রাষ্ট্রনায়কেরা। বৈঠকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ডিরেক্টর-জেনারেলটেড্রোস আধানম ঘেব্রিয়েসুস বলেন, ‘এই সমস্যা আমাদের ঐক্যবদ্ধভাবে সমাধান করতে হবে। সহানুভূতির সঙ্গে পদক্ষেপ করতে হবে।’

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement