BREAKING NEWS

১৭ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  রবিবার ৩১ মে ২০২০ 

Advertisement

শারীরিক অবস্থার অবনতি, হাসপাতালে ভরতি করোনা আক্রান্ত বরিস জনসন

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: April 6, 2020 9:30 am|    Updated: April 6, 2020 9:43 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: হোম আইসোলেশনে থাকার পরও শারীরিক অবস্থার কোনও উন্নতি হচ্ছিল না। ছাড়ছিল না জ্বরও। বাধ্য হয়ে রবিবার রাতে ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে লন্ডনের একটি হাসপাতালে ভরতি করা হল। সেখানে তাঁর বিভিন্ন শারীরিক পরীক্ষা করা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে। এই খবর প্রকাশ্যে আসার পর বরিস জনসনকে অন্যতম ভাল বন্ধু বলে উল্লেখ করে, তিনি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন বলে আশাপ্রকাশ করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

ব্রিটেনের প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ২৭ মার্চ ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের শরীরে করোনা (Corona Virus) ভাইরাসের হদিশ পাওয়া যায়। আর তারপরই একটি ভিডিও বার্তায় এই খবর জানিয়ে ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিটের বাসভবনে হোম আইসোলেশনে চলে যান তিনি। পরে তাঁর প্রেমিকা অন্তঃসত্ত্বা ক্যারি সেমন্ডসের শরীরেও করোনা বাসা বেঁধেছে বলে খবর ছড়ায়। যদিও পরে তিনি সুস্থ হয়ে ওঠায় করোনার পরীক্ষা করা হয়নি। কিন্তু, গত ১০ দিন জ্বর কমেনি বরিসের। এমনকী করোনার অন্যান্য উপসর্গগুলিও দেখা যাচ্ছে বলে ঘনিষ্ঠদের সূত্রে খবর। তবে এই অবস্থাতেই ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ব্রিটেনের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সরকারি বৈঠক থেকে সাংবাদিক বৈঠক সবটাই সামলেছেন তিনি। শুক্রবার দেশের নাগরিকদের উদ্দেশে একটি ভিডিওবার্তায় করোনার উপসর্গগুলি এখনও তাঁর শরীরে রয়েছে বলে জানান। এরপর শনিবার পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়। কোনওভাবেই জ্বর না কমায় বাধ্য হয়ে রবিবার রাতে তাঁকে হাসপাতালে ভরতি করার সিদ্ধান্ত নেন প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক।

[আরও পড়ুন: মানুষের পর এবার করোনায় আক্রান্ত বাঘ! উপসর্গ চিড়িয়াখানার অন্য পশুর শরীরেও ]

এর কিছুক্ষণ পরেই আমেরিকার করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সাংবাদিক বৈঠক করার সময় ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রীর হাসপাতালে ভরতি হওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। তাঁর দ্রুত সুস্থ হয়ে ওঠার বিষয়ে প্রার্থনা করে বলেন, ‘আলোচনা শুরু করার আগে আমাদের দেশ যে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের দ্রুত সুস্থতার কামনা করছে তার উল্লেখ করতে চাই। এই ভাইরাসের সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবে তিনি যে লড়াই করছেন তাতে আমরা সবাই পাশে আছি। আমেরিকার সমস্ত নাগরিক তাঁর জন্য প্রার্থনা করছেন। বড়মাপের একজন নেতা হওয়ার পাশাপাশি তিনি আমার খুব ভাল বন্ধু এবং দারুণ একজন মানুষ। আপনারা সবাই জানেন তিনি আজ হাসপাতালে ভরতি হয়েছেন। কিন্তু, আমি আশাবাদী তিনি খুব তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে উঠবেন। কারণ, তিনি একজন শক্তিশালী ও শক্ত মনের মানুষ।’

[আরও পড়ুন: নিজামুদ্দিনের ধর্মীয় অনুষ্ঠানে আসার পরিণাম! করোনায় মৃত দক্ষিণ আফ্রিকার মুসলিম ধর্ম প্রচারক]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement