BREAKING NEWS

২ মাঘ  ১৪২৮  রবিবার ১৬ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

বিশ্বকাপে ভিনদেশিদের সঙ্গে যৌনতায় সাবধান! সুন্দরীদের সতর্ক করল রাশিয়া

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 14, 2018 2:01 pm|    Updated: June 14, 2018 2:01 pm

Don't sleep with 'different race' men during World Cup: Russian politician

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফুটবল বিশ্বকাপের উন্মাদনায় ফুটছে বিশ্ব। রাশিয়ায় ইতিমধ্যেই পৌঁছে গিয়েছেন ফুটবলপ্রেমীরা। রুশ সুন্দরীদের নীল চোখে অনেকেই হারিয়ে ফেলছেন নিজেকে। প্রেমের ব্যাপারে বেশ খোলামেলা ‘নাতাশা’রাও তা বিলিয়ে দিতে কার্পণ্য করছেন না। তবে এই ব্যাপার মেনে নিতে পারছেন না এক প্রভাবশালী রুশ নেত্রী। ‘ভিন বর্ণের বিদেশি পুরুষদের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক থেকে বিরত থাকুন।’ রুশ মহিলাদের এমনটাই আবেদন জানালেন পার্লামেন্টের সদস্য ও পুতিন সরকারের শীর্ষ নেত্রী তামারা প্লেৎনোভা। বিশ্বকাপ চলাকালীন কোনও কৃষ্ণাঙ্গ পুরুষের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপনে বৈষম্যের শিকার হতে পারেন মহিলারা। বুধবার এমনটাই বলেন সংসদের পরিবার বিষয়ক কমিটির প্রধান প্লেৎনোভা। তাঁর এই বর্ণবিদ্বেষী বক্তব্যে ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে বিতর্ক।

[আজ রাশিয়ায় শুরু মহারণ, উদ্বোধনে চাঁদের হাট]

বুধবার মস্কোয় প্লেৎনোভা বলেন, “ভিন বর্ণের বিদেশি পুরুষদের সঙ্গে সম্পর্ক সুখকর নয়। বিশেষ করে কৃষ্ণাঙ্গদের সঙ্গে। এর আগেই এর প্রমাণ পেয়েছেন অনেকেই। সম্পর্কের জেরে সন্তানসম্ভবা হয়ে পড়েন অনেকেই। এক্ষেত্রে জন্ম নেবে মিশ্র রক্তের সন্তান। তাঁদের চামড়ার রঙ অন্য হবে। এতে বৈষম্যের শিকার হতে পারে ওই শিশু ও সিঙ্গল মাদাররা। সোভিয়েত আমল থেকেই বৈষম্যের শিকার হয়ে আসছে ওই শিশুরা।” ‘চিলড্রেনস অফ অলিম্পিক্স’ নিয়ে করা সংবাদমাধ্যমের প্রশ্নের উত্তরে এই মন্তব্য করেন রুশ নেত্রী। উল্লেখ্য, ১৯৮০ সালে মস্কোয় সামার অলিম্পিক অনুষ্ঠিত হয়। সেসময় অনেক রুশ মহিলাই বিদেশিদের সঙ্গে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছিলেন। ফলে কয়েক হাজার ‘অবৈধ’ শিশু জন্ম নেয়। তাদেরই বলা হয় ‘চিলড্রেনস অফ অলিম্পিক্স’। রুশ সমাজে তাদের প্রতি বৈষম্য নতুন কিছু নয়। কৃষ্ণাঙ্গ শিশুদের প্রতি ভেদাভেদ আরও বেশি।

আজ থেকেই রাশিয়ায় শুরু ফুটবলের মহারণ। খেতাবের লড়াইয়ে নামছে ৩২টি দেশ। দুনিয়ার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসছেন হাজার হাজার ফুটবল প্রেমী। সব মিলিয়ে চাঁদের হাট বসছে মস্কোয়। আলোর রোশনাইয়ে সেজে উঠেছে মাত্র কয়েক দশক আগে বিধ্বস্ত হওয়া লেনিনগ্রাদ, স্টালিনগ্রাদ, মস্কো। শহরের প্রসিদ্ধ বারবণিতারও দিব্যি আসর জমিয়ে ফেলেছেন। নানা পসরা নিয়ে বসে পড়েছেন ব্যবসায়ীরা। মাত্র কয়েক রুবল ফেললেই মিলছে অন্য এক জগতের আনন্দ। সব মিলিয়ে ফুটবল ছাড়াও মস্কোর গলিতে একটু ঘুরলেই আজও মিলবে রোমানভদের শোষণ থেকে শুরু করে বলশেভিকদের ঘাম ও রক্তের গন্ধ।

[২০২৬ বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্বে আমেরিকা-মেক্সিকো-কানাডা, সিদ্ধান্ত ফিফার]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে