BREAKING NEWS

১৪ কার্তিক  ১৪২৭  শনিবার ৩১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

‘চিনে ধর্মীয় স্বাধীনতা নেই’, ফের বেজিংয়ের সমালোচনায় সরব মার্কিন বিদেশসচিব

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: September 30, 2020 7:50 pm|    Updated: September 30, 2020 7:50 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ইটালি সফরে রোমে গিয়ে ফের চিনের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন মার্কিন বিদেশ সচিব মাইক পম্পেও। চিনের মানুষের ধর্মীয় স্বাধীনতা নেই বলে অভিযোগ জানিয়ে ভ্যাটিকান কেন বেজিংয়ের সঙ্গে চুক্তি পুনর্নবীকরণের পরিকল্পনা করছে তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি।

বুধবার ভ্যাটিকানের হোলি সি (Holy See)-তে মার্কিন দূতাবাসের তরফে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে চিনের শাসকদলকে তীব্র আক্রমণ করেন মাইক পম্পেও (Mike Pompeo)। চিনের ধর্মীয় স্বাধীনতা নেই এই অভিযোগ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘চিনে মানুষের ধর্মীয় স্বাধীনতা (religious freedom) যেভাবে কেড়ে নেওয়া হয় তা বিশ্বের আর কোথাও হয় না। চিনের কমিউনিস্ট পার্টির নেতৃত্বে ধর্মীয় স্বাধীনতার আলোকে যেভাবে নেভানোর চেষ্টা চলে তা একথায় ভয়ানক।’

[আরও পড়ুন: আচমকা বিস্ফোরণের শব্দ প্যারিসে! ফের জঙ্গি হামলা? আতঙ্কে কাঁটা শহরবাসী ]

খ্রিস্টান ধর্মে বিশ্বাসী পম্পেও নিজেকে ধর্মীয় অধিকার রক্ষার একজন সৈনিক বলে দাবি করে চিন যেভাবে উইঘুর (Uighur) মুসলিম সম্প্রদায়ের উপর অত্যাচার চালাচ্ছেন তার তীব্র সমালোচনা করেন। বলেন, ‘চিনের উইঘুর মুসলিম-সহ সমস্ত সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষদের উপরেই অত্যাচার চালানো হয়। শুধু তাই নয়, চিনের কমিউনিস্ট পার্টির দমন নীতির ফলে সেখানে বসবাসকারী সমস্ত ধর্মীয় সম্প্রদায়ের মানুষদের জীবনই দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে। প্রোটেস্ট্যান্ট হাউস চার্চ ও তিব্বতীয় বৌদ্ধ-সহ বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষরা প্রায় প্রতিদিনই অকথ্য অত্যাচারের শিকার হচ্ছেন।’

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, আগামী সপ্তাহেই এশিয়া সফরে আসছেন মার্কিন বিদেশ সচিব মাইক পম্পেও। জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার পাশাপাশি মঙ্গোলিয়াও যাওয়ার কথা রয়েছে তাঁর। চিন ও উত্তর কোরিয়া নিয়ে আলোচনা করার জন্যই মার্কিন বিদেশ সচিবের এই সফর। জাপানে সফর করার সময় আগামী ৬ অক্টোবর পম্পেও সেখানকার বিদেশমন্ত্রীর পাশাপাশি অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের বিদেশমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করবেন বলে জানা গিয়েছে।

[আরও পড়ুন: আলোচনায় নারাজ আজারবাইজান ও আর্মেনিয়া, নাগর্নো-কারাবাখে চলছে ভয়াবহ যুদ্ধ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement