Advertisement
Advertisement

OMG! রাশিয়ায় বিশ্বকাপের জন্য কাজ হারিয়েছেন কয়েক হাজার শ্রমিক

স্টেডিয়ামে প্ল্যাকার্ড নিয়ে বিক্ষোভের হুমকি শ্রমিক সংগঠনগুলির।

FIFA WC2018: thousand loss job after Putin's diktat
Published by: Sangbad Pratidin Digital
  • Posted:June 19, 2018 6:38 pm
  • Updated:June 19, 2018 6:38 pm

প্রীতিকা দত্ত: ব্যালের দেশের ফুটবলের বিশ্বযুদ্ধ। বিশ্বকাপ উপলক্ষে সেজে উঠেছে রাশিয়া। প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কড়া নির্দেশ, বিশ্বের সামনে সেদেশের কোনও খারাপ দিক যেন ফুটে না ওঠে। রাস্তার কুকুর তাড়ানো থেকে রেড স্কোয়ারে লেজার শো। আয়োজনেই কোনও খামতি নেই। কিন্তু প্রদীপের নিচেই যেন অন্ধকার! বিশ্বকাপের জাঁকজমক দিয়েও রাশিয়ায় দুর্নীতি আর করফাঁকির মতো ঘটনাকে আড়াল করা যাচ্ছে না। আম রুশিদের ভাল থাকাটাও যে কেবলই লোক দেখানো, তা স্পষ্ট।

[জার্মানরা হারতেই বান্ধবীকে বিয়ের প্রস্তাব মেক্সিকান যুবকের, তারপর…]

Advertisement

সামরিক অস্ত্র তৈরিতে রাশিয়ার বিশ্বজোড়া খ্যাতি। ইস্পাত শিল্পেও স্ট্যালিনের দেশের সাফল্যও কম নয়। কিন্তু, বিশ্বকাপের জন্য এখন রাশিয়ায় বন্ধ অস্ত্র ও ইস্পাত তৈরির কারখানা। পুতিনের যুক্তি, অস্ত্রের রমরমায় বিশ্বকাপ দেখতে আসা পর্যটকদের সন্ত্রাসবাদের কথা মনে হতে পারে। খোদ প্রেসিডেন্টের নির্দেশ! ভলগার তীরে বন্ধ হয়ে গিয়েছে বেশ কয়েকটি কারখানা। সাময়িক ছুটি দিয়ে দেওয়া হয়েছে কয়েক হাজার শ্রমিককে। রাশিয়ার একটি ছোট ইস্পাত কারখানা কাজ করেন মিখাইল প্রিভালভ। তাঁর আক্ষেপ, ‘এখনই যদি এই অবস্থা হয়, তাহলে দেশের ভবিষ্যৎ কী! খেলার দুনিয়ায় বিশ্বের সবথেকে বড় ফুটবল ইভেন্টের জন্য চাকরি গেল কত মানুষের।‘ রুশ সংবাদমাধ্যমের হিসেব, বিশ্বকাপের জন্য কাজ হারিয়েছেন প্রায় সাড়ে তিন হাজার শ্রমিক। বিশ্বকাপ চলাকালীন শ্রমিকের ক্ষোভের আগুন ছড়িয়েছে রাশিয়ায়। ৭ জুন থেকে আন্দোলন চালাচ্ছেন কর্মহীন ৭০ জন শ্রমিক। আন্দোলনকারীদের বক্তব্য, ‘বিশ্বকাপটাই এদের কাছে আসল, দেশের মানুষের কষ্ট গৌণ।‘ আন্দোলনকারীদের পাশে দাঁড়িয়েছে শ্রমিক সংগঠনগুলি। পরিস্থিতি কথা জানিয়ে প্রেসিডেন্ট পুতিনকে চিঠি দিয়েছে তারা। স্টেডিয়ামে প্ল্যাকার্ড হাতে বিক্ষোভ দেখানোর হুমকি নড়েচড়ে বসেছে রাশিয়া সরকার। মৌখিকভাবে জানানো হয়েছে, বিশ্বকাপ চলাকালীন কাজ না করলেও, দৈনিক মজুরি পাবেন শ্রমিকরা। এদিকে আবার সংবাদসংস্থা এপি-র দাবি, বিশ্বকাপটা উপলক্ষ মাত্র। রাশিয়ার ইস্পাত শিল্প অনেক দিন আগেই শেষ হয়ে দিয়েছে। বিদেশি বিনিয়োগ না এলে, রুশ অর্থনীতির আর ঘুরে দাঁড়ানোর সম্ভাবনা নেই।

Advertisement

পাকিস্তানেই সম্ভব! বিশেষ নিরাপত্তায় নমাজ পড়ল ‘জঙ্গি’ হাফিজ সইদ]

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ