১ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  সোমবার ১৮ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড পাকিস্তানের এক্সপ্রেস ট্রেনে। বৃহস্পতিবার সাতসকালে ঘটনাটি ঘটেছে করাচি-রাওয়ালপিণ্ডি তেজগাম এক্সপ্রেসে। ঘটনাস্থল লিয়াকতপুরের কাছে রহিম ইয়ার খানের কাছে। সূত্রের খবর, ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ৭৩ জন যাত্রীর মৃত্যুর খবর মিলেছে। আহত হয়েছেন বহু।

এদিন সকালে চলন্ত ট্রেনের একটি কামরায় আচমকাই আগুন ধরে যায় বলে জানা গিয়েছে। দাউদাউ করে আগুন জ্বলা অবস্থায় লাইন ধরে ছুটছিল ট্রেনটি। পরে চালক ও গার্ডের নজরে আসে ঘটনাটি। তখনই ট্রেনটি দাঁড় করিয়ে দেওয়া হয়। জানা গিয়েছে, রান্নার জন্য ব্যবহৃত গ্যাসের ট্যাঙ্ক ফেটে গিয়ে এই বিপত্তি। বিস্ফোরণের জেরে আগুন ধরে যায় ট্রেনের একটি কামরায়। তারপর সেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে আরও দুটি কামরায়।

পাঞ্জাব প্রদেশের কাছে ট্রেনটি রহিম ইয়ার খান শহরে ঢোকার মুখে আগুন নজরে আসে। তারপর ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছন দমকল কর্মী ও সরকারি আধিকারিকরা। জেলার সুরক্ষা ও উদ্ধারকার্য আধিকারিক বাকির হোসেন জানান, অন্তত ৭৩ জনের মৃত্যুর খবর মিলেছে। তবে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে উদ্ধারকার্য চলছে।

স্থানীয় সূত্রে খবর, অনেকে চলন্ত ট্রেন থেকে ঝাঁপ দিতে গিয়ে মারা গিয়েছেন। সেই সংখ্যাটা এখনও পরিষ্কার নয়। পাকিস্তানে রেল পরিষেবা এখনও ব্রিটিশ আমলের। যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আধুনিক সরঞ্জাম বা পরিকাঠামোগত উন্নয়ন হয়নি রেল পরিষেবার। উল্লেখ্য, ২০০৫ সালে সিন্ধ প্রদেশে দুটি ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে ১৩০ জন যাত্রীর মৃত্যু হয়েছিল। সেই ভয়াবহ দুর্ঘটনার এক দশক পরেও শিক্ষা নেয়নি পাক সরকার।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং