BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

এই শহরে স্মার্টফোনের চেয়েও সস্তা বন্দুক!

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: July 28, 2016 12:28 pm|    Updated: July 28, 2016 3:41 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সস্তার বন্দুক, চোরাই গাড়ি, নকল ডিগ্রি, যা চাইবেন, এই বাজারে সব পাবেন৷ না, কোনও ছবির দৃশ্য নয়, পাকিস্তানের আদিবাসী শহর দারা আদামখেলের বাজারে বেআইনি সব ধরনের জিনিস অত্যন্ত সস্তায় বিক্রি হয়৷

বলিউড ছবি ‘রামলীলা’য় বন্দুকের বাজারের দৃশ্য দেখানো হয়েছিল৷ দেদার বিকোচ্ছে ছোট বড় নানা মাপের পিস্তল৷ বন্দুক ঠিকঠাক চলছে কি না, আকাশে গুলি ছুড়ে পরীক্ষাও করে নেওয়া যায়৷ পাক মুলুকের এই শহরের ছবিটাও এক৷ পেশোয়ার থেকে ৩৫ কিলোমিটার দক্ষিণের এই বাজারটির রমরমা অবশ্য এখন অতীত৷ ১৯৮০’র শুরুর দিকে অভিভক্ত রাশিয়ার সেনার বিরুদ্ধে আফগানিস্তানের লড়াইয়ের সময় মুজাহিদিনরা এই বাজার থেকেই হাতিয়ার কিনত৷ পরবর্তীকালে পাকিস্তানি তালিবানিদের কাছে বন্দুকের বাজারটি একপ্রকার অস্ত্রাগারে পরিণত হয়৷ বর্তমানে অবশ্য বেআইনি কারবার প্রায় পুরোটাই বন্ধ করা সম্ভব হয়েছে৷ বন্দুক নির্মাতা খিতাব গুল জানিয়েছেন, নজরদারির জন্য শহরের প্রতিটি কোণে চেকপয়েন্ট বসিয়ে দিয়েছেন পাক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ৷ ফলে ব্যবসা বন্ধ করে দিতে হয়েছে৷

২০০৭ পর্যন্ত গোপনে বন্দুক তৈরি ও বিক্রির কাজ চলত৷ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে বন্দুক রপ্তানিও হত৷ গুল জানাচ্ছেন, গত দশ বছরে প্রায় 10 হাজার বন্দুক বিক্রি করেছেন তিনি৷ একটির বিরুদ্ধেও অভিযোগ ওঠেনি৷ MP5, কালাশনিকভের মতো বন্দুকগুলো স্মার্টফোনের থেকেও কম দামে বিক্রি হত৷ এখন সবই বন্ধ৷ বারুদের গন্ধ নাকে এলেও বন্দুকের চাহিদার ছিটে-ফোঁটাও আর নেই এখানে৷ বন্দুকের দোকান পরিণত হয়েছে মুদিখানায়৷ কাজের অভাবে ভুগছেন স্থানীয় বাসিন্দারা৷ এর জন্য প্রধানমন্ত্রীকে দোষারোপ করতেও ছাড়ছেন না তাঁরা৷ স্থানীয়দের ভয়, সরকার শীঘ্রই কোনও পদক্ষেপ না নিলে দারা আদামখেল নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement