Advertisement
Advertisement

অবশেষে লন্ডনে গ্রেপ্তার পিএনবি ব্যাংক জালিয়াতিতে অভিযুক্ত নীরব মোদি

আজই তোলা হবে আদালতে৷

Major diplomatic win for India, Nirav Modi arrested in London
Published by: Tanujit Das
  • Posted:March 20, 2019 3:12 pm
  • Updated:March 20, 2019 10:03 pm

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  অবশেষে বুধবারই লন্ডনে গ্রেপ্তার হলেন পিএনবি ব্যাংক জালিয়াতি মামলায় অভিযুক্ত পলাতক হীরে ব্যবসায়ী নীরব মোদি৷ ওই দিনই তাকে তোলা হয় লন্ডনের ওয়েস্টমিনস্টার কোর্টে৷ জামিনের জন্য আদালতের কাছে আপিল করেন ১৪ হাজার কোটি টাকার ব্যাংক জালিয়াতিতে অভিযুক্ত নীরব মোদি৷ কিন্তু সেই আবেদন খারিজ করে দেন বিচারপতি৷ উলটে ২৯ মার্চ পর্যন্ত নীরব মোদিকে পুলিশি হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন বিচারপতি৷

সূত্রের খবর, এই নির্দেশ ঘোষণার সময় বিচারপতি নীরব মোদির আত্মসমর্পণের বিষয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন৷ জানান, জামিন পেয়ে গেলে নীরব মোদি আত্মসমর্পন নাও করতে পারেন৷ এবং তথ্য-প্রমাণ নষ্ট করতে পারেন তিনি৷ এক্ষেত্রে তাকে ভারতে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া আরও দীর্ঘায়িত হবে বলেই মত ওয়াকিবহার মহলের৷ পাশাপাশি, তাকে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য সব ধরনের চেষ্টা শুরু করেছে ভারত সরকারও৷ 

Advertisement

[ভোটপ্রচারে বেরিয়ে বিপাকে, লোকাল ট্রেনে আটকে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট ]

Advertisement

কিছুদিন আগেই লন্ডনের রাস্তায় বহুমূল্য জ্যাকেট পরে ঘুরতে দেখা গিয়েছিল নীরব মোদিকে। সেই সময় ব্রিটেনের ‘দ্য টেলিগ্রাফ’ পত্রিকার এক সাংবাদিক তাঁর সঙ্গে কথা বলারও চেষ্টা করেন। তবে সব প্রশ্ন এড়িয়ে যান নীরব মোদি। ‘দ্য টেলিগ্রাফ’ সূত্রে জানা যায়, লন্ডনের অভিজাত এলাকায় ফের হীরের ব্যবসা শুরু করেছিলেন নীরব। এমনকী লন্ডনেরই সেন্টার পয়েন্ট টাওয়ার ব্লকে মাসে প্রায় ১৭ হাজার পাউন্ড ভাড়া দিয়ে বিলাসবহুল এক ফ্ল্যাটও ভাড়া নিয়েছিলেন তিনি।

[ভারতে ভোট, রোড শোয়ে ইংল্যান্ডের রাস্তা কাঁপাচ্ছে কংগ্রেস-বিজেপির সমর্থকরা]

২০১৮ সালের আগস্ট মাসে পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংকে ১৪ হাজার কোটি টাকা কেলেঙ্কারি মামলায় নীরব মোদির প্রত্যর্পণের জন্য ব্রিটিশ সরকারকে অনুরোধ করে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। নীরবকে লন্ডনে দেখা যাওয়ার পরেই তাঁকে দেশে ফেরাতে সচেষ্ট হয় ভারত। হীরে ব্যবসায়ী নীরবকে ভারতে প্রত্যর্পণ করার বিষয়টি আদালতে পাঠান ব্রিটিশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ। নীরব এবং তাঁর আত্মীয় মেহুল চোকসির বিরুদ্ধে পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংকের মুম্বইয়ের ব্র্যাডি হাউস শাখা থেকে থেকে প্রায় ১৪ হাজার কোটি টাকার জালিয়াতি করার অভিযোগ উঠেছে। ওই মামলার তদন্ত শুরু হওয়ার আগেই দেশ ছাড়েন দু’জনেই। এই মামলায় এখনও নীরব মোদির এক হাজার ৮৭৩ কোটি টাকার সম্পত্তি বাজেয়াপ্তও করেছে ইডি। বিরোধীরা অভিযোগ করেছে, মেহুল ও নীরবকে দেশ ছেড়ে পালাতে সাহায্য করেছে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার। এই নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে কটাক্ষও করেন তাঁরা।

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ