২ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২০ আগস্ট ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

২ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ২০ আগস্ট ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আট বছর কেটে গিয়েছে৷ তবু একদা বিশ্বের সবচেয়ে বড় ত্রাস ওসামা বিন লাদেনকে নিয়ে চর্চার শেষ নেই৷ বিশেষত তার হত্যাকাণ্ড এখনও আলোচনার কেন্দ্রে৷ গোটা অপারেশনের কৃতিত্ব পুরোপুরি নিয়েছে মার্কিন নেভি সিল বাহিনী৷ সম্প্রতি মার্কিন সফররত পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান দাবি করে বসলেন, অ্যাবোটাবাদে লাদেনের গোপন আস্তানায় নেভি সিল বাহিনীকে নেতৃত্ব দিয়ে নিয়ে গিয়েছিল পাকিস্তানের গুপ্তচর সংস্থা৷

[আরও পড়ুন: প্রথমবার চন্দ্রপৃষ্ঠে নামবেন মহিলা নভশ্চর, তৈরি হচ্ছে চাঁদের দেবী ‘আর্তিমিস’]

২ মে, ২০১১৷ বিশ্বজুড়ে একটি খবর ছড়িয়ে পড়েছিল বিদ্যুতের গতিতে৷ নিহত বিশ্বের সবচেয়ে ভয়ংকর জঙ্গি, আল কায়দা প্রধান ওসামা বিন লাদেন৷ সৌজন্যে মার্কিন নেভি সিল৷ ভোররাতে তারাই অ্যাবোটাবাদের বাড়িতে অকস্মাৎ হানা দিয়ে হাতেনাতে ধরে ফেলেন লাদেনকে৷ তারপরই গুপ্তহত্যা এবং বিমানে দেহ নিয়ে সোজা মার্কিন মুলুকে পাড়ি৷ এই গোটা অপারেশনের মার্কিন নেভি সিলের দক্ষতা বেড়ে গিয়েছিল৷ লাদেন যে পাকিস্তানেরই নিরাপদ আশ্রয়ে ছিল, তা বারবার অস্বীকার করে এসেছে প্রশাসন৷

লাদেন বধে পাকিস্তানের ভূমিকার কথা আগ বাড়িয়ে বলতে গিয়ে এবার আত্মঘাতী গোল করে বসলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান৷ ওয়াশিংটন সফররত ইমরান এক সংবাদমাধ্যমে সোমবার বললেন, লাদেনকে ধরিয়ে দিতে পাক গুপ্তচর সংস্থাই নেভি সিল বাহিনীকে সাহায্য করেছিল৷ এই কাজে মার্কিন বাহিনীকে রাস্তা দেখানো ডাক্তার শাকিল আফ্রিদির প্রসঙ্গে ইমরান আরও বলেন, ‘বিষয়টি বেশ স্পর্শকাতর৷ কারণ, আফ্রিদি এখানে গুপ্তচর বলে চিহ্নিত হয়ে গিয়েছে৷’ তাঁর আরও বক্তব্য, ‘আমেরিকাকে আমরা সবসময়ে বন্ধু বলে মনে করি৷ আমাদের যদি আগে থেকে লাদেন সম্পর্কে তথ্য জানাত, আমরা ওকে বের করে আনতাম৷কিন্তু আমাদের আইএসআই নিজেদের যোগ্যতায় লাদেনের অবস্থান জেনেছে এবং সিআইএ-কে সাহায্য করেছে৷’

[আরও পড়ুন: কাশ্মীর নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য, দেশেই প্রবল বিরোধিতার মুখে ট্রাম্প]

তবে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞদের একাংশের মতে, লাদেন আশ্রয় নিয়েছিলেন গুপ্তচর বিভাগের প্রাক্তন অফিসার আসাদ দুরানির বাড়িতে৷ সে কথা জানত আইএসআই৷ আর লাদেনকে রীতিমতো টোপ হিসেবে ব্যবহার করতে চেয়েছিল তারা৷ দীর্ঘ বেশ কয়েকবছর ধরে পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদে লাদেন পাকাপাকি ঘাঁটি গাড়লেও, নয় এগারো হামলার প্রায় ১০ বছর পর বিশ্বত্রাস লাদেনকে ধরতে সক্ষম হয় মার্কিন সেনাবাহিনী৷ তবে সেখানে পাক গুপ্তচর সংস্থার ভূমিকা এবার প্রকাশ্যেই স্বীকার করলেন পাক প্রধানমন্ত্রী।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং