৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ফ্লয়েড কাণ্ডের পুনরাবৃত্তি? নিরস্ত্র কৃষ্ণাঙ্গকে গুলি মার্কিন পুলিশের, উত্তপ্ত উইসকনসিন

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: August 24, 2020 2:11 pm|    Updated: August 24, 2020 3:14 pm

An Images

ছবি: প্রতীকী

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: জর্জ ফ্লয়েড হত্যাকাণ্ডের রেশ এখনও কাটেনি মার্কিন মুলুকে। ইতি পড়েনি ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ (Black Lives Matter) আন্দোলনেও। তারই মধ্যে আমেরিকায় ফের কৃষ্ণাঙ্গ যুবককে গুলি করে খুনের চেষ্টার অভিযোগে কাঠগড়ায় পুলিশ। উইসকনসিন প্রদেশের রাস্তায় জ্যাকব ব্লেক নামে নিরস্ত্র এক যুবককে লক্ষ্য করে একাধিকবার গুলি চালান পুলিশ অফিসার। গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন ব্লেক। প্রতিবাদ রাতভর উইসকনসিনের রাস্তায় বিক্ষোভ দেখান বাসিন্দারা। চাপের মুখে তড়িঘড়ি তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন সেখানকার গভর্নর।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল একটি ভিডিওতে দেখা গিয়েছে, জ্যাকব ব্লেক একটি গাড়িতে ওঠার চেষ্টা করছিলেন। সেসময়ই তাঁর শার্টের কলার ধরে টানে পুলিশ এবং গাড়ি লক্ষ্য করে অন্তত ৭বার গুলি চলে, যাতে আহত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন ব্লেক। কিন্তু কী কারণে গুলি চালাতে হল পুলিশকে, তার কোনও সদুত্তর মেলেনি। উইসকনসিন পুলিশ এ ব্যাপারে মুখে কুলুপ এঁটেছে। রবিবার বিকেলের এই ঘটনার জেরে শোরগোল পড়ে গিয়েছে সেখানে। রাতভর রাস্তায় বিক্ষোভ দেখান স্থানীয় বাসিন্দারা, পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তি হয়। উইসকনসিন পুলিশের সদর দপ্তরের সামনে গিয়ে গাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া হয়, পালটা টিয়ার গ্যাস ছোঁড়ে পুলিশও। পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ বুঝে রাতেই কারফিউ জারি করে প্রশাসন।

[আরও পড়ুন: প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফকে ‘পলাতক’ ঘোষণা করল পাকিস্তান]

উইসকনসিনের গভর্নর টোনি এভারস টুইটারে ঘটনার নিন্দা করেন। তিনি এও জানান যে ওই যুবক নিরস্ত্র ছিল। কী কারণে গুলি চালাতে হল, তা নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে। অবিলম্বে অভিযুক্ত পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেন গভর্নর। ড্যামেজ কন্ট্রোলে নেমে তিনি আরও লেখেন, উইসকনসিনের নিরীহ কৃষ্ণাঙ্গদের উপর অকারণ পেশিশক্তি প্রয়োগের সম্পূর্ণ বিরোধী প্রশাসন। জ্যাকবের দ্রুত আরোগ্য কামনা করে তিনি পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে চান।

মে মাসে, উইসকনসিনের পাশের প্রদেশ মিনেসোটার রাস্তায় এমনই এক নিরস্ত্র যুবক জর্জ ফ্লয়েডকে মাটিতে ফেলে মারধরের পর হাঁটু দিয়ে ঘাড়ে আঘাত করে নৃশংসভাবে খুনের অভিযোগ ওঠে এক পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে। তা নিয়ে শোরগোল পড়ে প্রায় গোটা বিশ্বে। আমেরিকার গণ্ডি পেরিয়ে ফ্রান্স, জার্মানি, ইংল্যান্ডেও ছড়িয়ে পড়ে ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ বিক্ষোভ। সেই আঁচ নিভতে না নিভতেই ফের মার্কিন পুলিশের আরেক নৃশংসতা সামনে এল। জর্জ ফ্লয়েডের পর জ্যাকব ব্লেকের জল কতদূর গড়ায়, সেদিকে নজর থাকবে সকলের।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement