BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

চিনকে বন্দর হস্তান্তর ভুল সিদ্ধান্ত ছিল, মোহভঙ্গের পর আক্ষেপ শ্রীলঙ্কার

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: August 26, 2020 1:36 pm|    Updated: August 26, 2020 1:36 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: চিনে মোহভঙ্গ হয়েছে শ্রীলঙ্কার! সোমবার দ্বীপরাষ্ট্রটির বিদেশ সচিবের কথায় মিলল এমনই ইঙ্গিত। শুধু তাই নয়, পড়শি ভারতের সঙ্গেও যে সম্পর্ক আরও মজবুত করতে চাইছে কলম্বো সেটাও তাঁর কথায় স্পষ্ট হয়ে উঠেছে।

[আরও পড়ুন: ২০ বছরের অপেক্ষার অবসান, শেষমেশ প্রথম হিন্দু মন্দির প্রতিষ্ঠা আয়ারল্যান্ডে]

সোমবার স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে একটি সাক্ষাৎকার দেন শ্রীলঙ্কার বিদেশ সচিব জয়নাথ কলমবাগে। সেখানে তিনি সাফ বলেন, “রাষ্ট্রপতি গোতাবায়া রাজাপক্ষে আগেও বলেছেন, কৌশলগত সুরক্ষার দিক থেকে আমরা ‘ভারত প্রথম’ নীতি মেনে চলব। ভারতের কৌশলগত নিরাপত্তার ক্ষেত্রে আমরা কখনওই বিপদ ডেকে আনতে পারি না। আর আমাদের তেমন কিছু করার প্রয়োজনও নেই। বরং পড়শি দেশের নিরাপত্তার স্বার্থ রক্ষায় মদত দেব আমরা। ভারতের কাছ থেকে বেশ কিছু ক্ষেত্রে লাভ আদায় করতে হবে আমাদের। রাষ্ট্রপতি জানিয়েছেন, আমরা সবার আগে ভারতকে প্রাধান্য দেব। তবে অর্থনৈতিক উন্নয়নের কথা মাথায় রেখে অন্য পক্ষের সঙ্গেও আমাদের চলতে হবে।”

শুধু তাই নয়, চিনের ঋণের ফাঁদের কথা বুঝতে পেরে শ্রীলঙ্কা যে সচেতন হয়েছে সেটাও স্পষ্ট করে দেন সে দেশের বিদেশ সচিব জয়নাথ কলমবাগে। ৯৯ বছরের জন্য হামবানটোটা বন্দর চিনকে লিজ দেওয়া যে ভুল সিদ্ধান্ত ছিল তা তিনি সর্বসমক্ষে মেনে নেন। তাৎপর্যপূর্ণভাবে, কয়েকদিন আগেই শ্রীলঙ্কার বিদেশমন্ত্রী দিনেশ গুণবর্ধনে সঙ্গে আলোচনা করেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী এস জয়শংকর। তাছাড়া, সম্প্রতি শ্রীলঙ্কা নির্বাচনে রাষ্ট্রপতি গোতাবায়ার ভাই মাহিন্দা রাজপক্ষের দল শ্রীলঙ্কা পিপলস পার্টি (SLPP) জয় লাভ করায় পরই মাহিন্দা রাজাপক্ষে-কে ফোন করে অভিনন্দন জানান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সব মিলিয়ে কলম্বোর সঙ্গে যে সম্পর্ক মজবুত করে আগ্রহী তা স্পষ্ট করে দেয় নয়াদিল্লি। এর পরই ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে দ্বীপরাষ্ট্রটি।

উল্লেখ্য, শ্রীলঙ্কায় চিন ঘনিষ্ঠ পরিবার বলেই পরিচিত রাজাপক্ষ পরিবার। এর আগে ২০১৫ সালে গোতাবায়ার দাদা ও শ্রীলঙ্কার প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি মাহিন্দা রাজাপক্ষ যখন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনে দাঁড়িয়েছিলেন। তখন চিন প্রচুর টাকা ঢেলেছিল বলেও অভিযোগ। পরিবার ও ঘনিষ্ঠদের কাছে ‘টারমিনেটর’ নামে পরিচিত গোতাবায়া একসময়ে শ্রীলঙ্কান সেনার প্রধান কর্তাও ছিলেন। তাঁর নেতৃত্বেই ১০ বছরের এলটিটিই সাম্রাজ্যকে ধ্বংস করতে সমর্থ হয় শ্রীলঙ্কা। যদিও, তাঁর বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের বেশ কয়েকটি অভিযোগ রয়েছে। গত বছর ইস্টার সানডে’র দিনে জঙ্গি হামলার পরে সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ডাক দিয়েছিলেন তিনি। যার জেরেই দেশের বেশিরভাগ মানুষকে তাঁকে রাষ্ট্রপতি হিসেবে বেছে নিয়েছেন বলে দাবি রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের।

[আরও পড়ুন: যুদ্ধবিমান নিয়ে ‘কাজিয়া’, আমেরিকা ও ইজরায়েলের সঙ্গে বৈঠক বাতিল করল আমিরশাহী]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement