১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

শীঘ্রই চিনকে বড়সড় ‘শাস্তি’ দেবে আমেরিকা! লাদাখে অশান্তির মধ্যেই ‘হুমকি’ ট্রাম্প প্রশাসনের

Published by: Subhajit Mandal |    Posted: July 9, 2020 9:19 am|    Updated: July 9, 2020 9:32 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিশ্বের কোনও দেশের উপর চিনের (China) দাদাগিরি বরদাস্ত করা হবে না। বুধবারই এই বার্তা দিয়েছিলেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেনাকর্তারা। চিন-ভারত যুদ্ধ বাঁধলে আমেরিকা ভারতের পাশে থাকবে, সেই বার্তাও মিলেছিল মার্কিন সেনার তরফে। এবার খাস হোয়াইট হাউসের তরফে ঘোষণা করা হল, খুব শীঘ্রই চিনের বিরুদ্ধে বড়সড় পদক্ষেপ করতে চলেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র (USA)।

করোনা মহামারী ছড়ানোর অভিযোগে একেবারে শুরু থেকেই চিনের বিরুদ্ধে খড়গহস্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট। বারবার তিনি অভিযোগ করেছেন, করোনা মহামারী ছড়িয়ে দিয়ে আমেরিকা এবং বিশ্বের বহু ক্ষতি করে দিয়েছে ড্রাগন। চিনের বিরুদ্ধে কিছু পদক্ষেপও করা হয়েছে। আমেরিকা সরকার চিনা কূটনীতিক বা চিনের কমিউনিস্ট পার্টির সদস্যদের আমেরিকার ভিসা দেওয়া পুরোপুরি বন্ধ করে দিয়েছে। চিনের সঙ্গে আমেরিকার কূটনৈতিক এবং বাণিজ্যিক সম্পর্কও কার্যত শেষ। এমনকী ভারতের পথ ধরে সমস্ত চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করা নিয়েও আলোচনা শুরু হয়েছে মার্কিন প্রশাসনে। এবার আরও বড় কোনও পদক্ষেপের ইঙ্গিত দিলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। জানিয়ে দিলেন, দ্রুত চিনের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক পদক্ষেপ করবে আমেরিকা।

[আরও পড়ুন: চিনের সঙ্গে যুদ্ধ বাঁধলে ভারতের পাশে থাকবে মার্কিন ফৌজ, ইঙ্গিত হোয়াইট হাউসের]

হোয়াইট হাউসের (White House) সংবাদ সচিব কেলি ম্যাকেনি বুধবার জানিয়েছেন, “চিনের বিরুদ্ধে আমরা কিছু কড়া পদক্ষেপ করতে চলেছি। খুব শীঘ্রই আপনারা জানতে পাবেন। কী পদক্ষেপ? সে বিষয়ে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আপনাদের আরও তথ্য দেবেন। আমি প্রেসিডেন্টের আগে কিছু বলব না।” আমেরিকার জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা রবার্ট ও ব্রায়েনও একই কথা বলেছেন। তাঁর দাবি, “চিনের বিরুদ্ধে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মতো কড়া অবস্থান আর কোনও মার্কিন প্রেসিডেন্ট নিতে পারেননি। আগামী কয়েকদিনে বড়সড় পদক্ষেপ করতে চলেছি আমরা।”

[আরও পড়ুন: জিনপিংয়ের জাপান সফরে আপত্তি, প্রধানমন্ত্রী আবের উপর চাপ বাড়াল শাসকদল]

গালওয়ান উপত্যকায় চিনা আগ্রাসনকে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে দেখছে আমেরিকা। অতি আগ্রাসী মনোভাবের জন্য আন্তর্জাতিক মঞ্চে কার্যত একঘরে হয়ে পড়েছে বেজিং। আমেরিকার সঙ্গে জাপান, অস্ট্রেলিয়া, এমনকী ন্যাটো (NATO) জোটও চিনকে (China) সতর্ক করেছে। এহেন পরিস্থিতিতে হোয়াইট হাউসের এই ‘হুমকি’ বেজিংকে আরও চাপে ফেলবে। 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement