৪ শ্রাবণ  ১৪২৬  শনিবার ২০ জুলাই ২০১৯ 

Menu Logo বিলেতে বিশ্বযুদ্ধ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সমস্ত জল্পনার অবসান ঘটিয়ে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ ফিনল্যান্ডের রাজধানী হেলসিঙ্কিতে হয় দুই রাষ্ট্রপ্রধানের মধ্যে বৈঠক৷ প্রথম থেকেই এই বৈঠক নিয়ে বেশ আশাবাদী দেখা গিয়েছে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে৷ পাশাপাশি এই বৈঠকের দিকে তাকিয়ে ছিল বিশ্বের সমস্ত রাজনৈতিক মহল৷ তাঁদের ধারনা, একাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে বিবাদ মিটিয়ে এই বৈঠক থেকেই নতুন শুরুর দিকে এগিয়ে যেতে পারে রাশিয়া ও আমেরিকা৷

[সাঁড়াশি চাপে ভারতীয় প্রতিরক্ষা, পাকিস্তানকে ৮টি সাবমেরিন দেবে চিন]

জানা গিয়েছে,  প্রায় ৯০ মিনিট একান্তে বৈঠক করেন বিশ্বের দুই শক্তিধর দেশের রাষ্ট্রনায়করা৷ বৈঠকের শুরুতেই, সুন্দর একটি বিশ্বকাপ উপহার দেওয়ার জন্য রুশ প্রেসিডেন্টকে ধন্যবাদ জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট৷ তাঁর সংযোজন, সমস্ত খারাপকে দূরে রেখে তাঁদের মধ্যে আলোচনা হওয়ার মতো এমন অনেক ভাল বিষয়ও রয়েছে৷ উত্তর কোরিয়ার সর্বাধিনায়ক কিম জং উনের সঙ্গে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বৈঠকের পর থেকে এই বৈঠক নিয়েও অনেকদিন ধরে জল্পনা তৈরি হয়েছিল আন্তর্জাতিক মহলে৷ মনে করা হচ্ছে, বাণিজ্য থেকে প্রতিরক্ষা, চিন থেকে শুরু করে পারমাণবিক অস্ত্রের ব্যবহার একাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় দুই রাষ্ট্রনায়কের আলোচনায় উঠে আসতে পারে৷ সেই জল্পনা আরও উসকে দিয়েছেন ট্রাম্প৷ তিনি জানান, পুতিন ও তাঁর সঙ্গে চিনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সম্পর্ক অত্যন্ত মধুর৷ ফলে তাঁরা একমঞ্চে একসঙ্গে এলে, এর চেয়ে ভাল কিছুই হতে পারে না৷ বৈঠক শুরুর আগে, মার্কিন প্রশাসনের পূর্বতন কর্তাদের প্রতি ক্ষোভ উগরে দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট৷ টুইট বার্তায় তিনি লেখেন, আগের সরকারের ভুল পরিকল্পনা ও চিন্তাভাবনাই এতদিন আমেরিকা ও রাশিয়াকে দূরে সরিয়ে রেখেছিল৷

[এও কি সম্ভব? ইরানের ভাগের মেঘ ও বরফ চুরি করে নিচ্ছে ইজরায়েল!]

তবে, সম্পূর্ণ নিষ্কণ্টক হয়নি এই বৈঠক৷ কারণ, ২০১৬-র মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার কলকাঠি নাড়ার বিষয়টি এখনও মার্কিন আদালতে বিচারাধীন৷ কয়েকদিন আগেই ১২ জন রুশ গোয়েন্দা অফিসারকে ষড়যন্ত্র করার অপরাধে চিহ্নিত করেছে মার্কিন প্রশাসনের ডিপার্টমেন্ট অফ জাস্টিস৷ তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে, ডেমোক্রেটদের গোপন তথ্য পাচার করে এবং হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে তাঁদের সাইট থেকে তথ্য চুরি করে নির্বাচনকে ভুল পথে চালিত করেছে রাশিয়া৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং