৩০ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মুখে মাস্ক। মাথায় ফেট্টি। আমেরিকার বাস্তায় এ যেন ঠিক প্রফুল প্যাটেল হেঁটে যাচ্ছেন। যার জীবন অবলম্বন করে বলিউডে কঙ্গনা রানাওয়াত অভিনয় করেছিলেন ‘সিমরন’ ছবিতে। এবার সেই প্রফুল প্যাটেলের মতোই এক ‘ডাকাত রানি’কে গ্রেপ্তার করল মার্কিন পুলিশ। ৪৪ বছরের ওই মহিলা ডাকাতদের গ্যাং চালাত। ইন্দো-মার্কিনদের বাড়িতে ডাকাতি করত ওই গ্যাং।

[আরও পড়ুন: রানির প্রশ্নে বেকুব ট্রাম্প, পরিস্থিতি সামাল দিলেন মেলানিয়া]

জানা গিয়েছে, ২০১১ থেকে ২০১৪ সালের মধ্যে চাকা কাস্ত্রো নামের ওই মহিলা নিউইয়র্ক, জর্জিয়া, মিশিগান, টেক্সাসের অনেক শহরের অনেক বাড়িতে চুরি করেছে। আর বেছে বেছে ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন মহিলাদের বাড়িগুলিকেই নিশানা করত তাঁর গ্যাং। ২০১৭ সালে মুক্তি পাওয়া ‘সিমরন’ ছবি যাঁরা দেখেছেন তাঁদের প্রফুল প্যাটেলের কথা মনে থাকতে পারে। কারণ, আমেরিকার লাস ভেগাসের বারে প্রফুল প্যাটেল সব খুইয়ে ব্যাংক ডাকাতির পেশা নিয়েছিলেন। কারণ, ধারের টাকা মেটাতে আর কোনও রাস্তাই খোলা ছিল না। পরে অবশ্য নিজেই সব কথা স্বীকার করেছেন আদালতে। তবে প্রফুল পুরো ব্যাপারটা একা সামলালেও চাকা কাস্ত্রোর পুরো গ্যাং ছিল। চাকা পুলিশের কবলে আসতেই গ্যাংয়ের কেউ ছাড়া পায়নি। আপাতত সেপ্টেম্বর মাস অবধি চাকা অ্যান্ড কোম্পানির ঠিকানা শ্রীঘর। কীভাবে ডাকাতির পরিকল্পনা করতেন? প্রশ্ন শুনে চাকার জবাব, প্রতিদিন দলের সভা বসত। কাকে টার্গেট করা হচ্ছে সে ব্যাপারে আগেই বলে দেওয়া হত। সকলেই নিজের মতো করে রিসার্চ চালাত। আসল দিন এলে পুলিশের চোখে ধুলো দিতে সকলেই একজোট হয়ে কাজ করত। পরে ডাকাতির টাকা-গয়না বা ইলেকট্রনিক সামগ্রীও ভাগ করে নিত সবাই। যে কারণে কারও মধ্যেই কোনও ক্ষোভ ছিল না কখনও।

তবে বেশিদিন এই কুকর্ম চালিয়ে যেতে পারেননি চাকা। তাঁর উপর নজর রেখেছিলেন গোয়েন্দারা। বিশেষ করে ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন অগরিকদের বাড়িগুলির উপর নজরদারি চালাতে শুরু করে পুলিশ। আর এভাবেই আসে সাফল্য। অবশেষে গ্রেপ্তার করা হয় ডাকাত রানি চাকাকে। তাঁর গ্রেপ্তারির সঙ্গে ওই কুখ্যাত গ্যাংও প্রায় ভেঙে গিয়েছে। যদিও পুলিশ মনে করছে এখনও ওই ডাকাত দলটির অনেক সদস্য বাইরে রয়েছে। তাদের ধরতে অভিযান শুরু করেছে পুলিশ।

[আরও পড়ুন: অসহ্য মানসিক যন্ত্রণা, মুক্তি পেতে স্বেচ্ছামৃত্যুর সিদ্ধান্ত ধর্ষিতার]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং