২৬ আষাঢ়  ১৪২৭  শনিবার ১১ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

আমেরিকায় অব্যাহত বিপ্লবের আঁচ, বিক্ষোভকারীদের ‘জঙ্গি’ তকমা ট্রাম্পের!

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: June 6, 2020 10:35 am|    Updated: June 6, 2020 10:35 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সপ্তাহ পেরিয়ে গেছে। কিন্তু আমেরিকায় বিক্ষোভের আঁচ এখনও মধ্য গগনে। সঙ্গে থেমে নেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের (Donald Trump) একের পর এক কুরুচিকর মন্তব্য। ‘গুলি করা’, ‘সেনা নামানো’-র হুঁশিয়ারির পর এবার নতুন হল ‘জঙ্গি’। বিক্ষোভকারীদের ‘জঙ্গি’ তকমা দিলেন তিনি। আর তাতেই ঘৃতাহুতি হল বিক্ষোভে।

‘ব্ল্যাক লাইফ ম্যাটার্স’ আমেরিকাবাসীদের মুখে মুখে এখন এই বাণী। প্রতিবাদের এই নতুন ভাষাকে চাক্ষুস করাতে মার্কিন প্রেসিডেন্টের হোয়াইট হাউসের সামনের রাস্তার নামও পরিবর্তন করা হয়। রাস্তার নাম পরিবর্তন করলেন ওয়াশিংটন (Washington) মেয়র মুরিয়েল বোউজার (Muriel Bowser)। প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে গিয়ে প্রতিবাদীদের সপক্ষে থাকতে হোয়াইট হাউসের সামনের এই রাস্তার নাম পরিবর্তন করে রাখলেন ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার প্লাজা’ (Black Lives Matter Plaza)। তবে শুধু রাস্তার নাম পরিবর্তন নয়, রাস্তায় বেরোলেই যাতে তা চোখে পড়ে সেই ব্যবস্থাও করা হয়। কালো পিচের রাস্তায় হলুদ রং করে লিখে রাখা হয় প্রতিবাদের ভাষা। যাতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট হোয়াইট হাউসের বাইরে বেরিয়ে নিজের ক্ষমতার আস্ফালন দেখাতে গেলেই প্রতিবাদের বাণী তাঁর চোখের সামনে জ্বলজ্বল করে।

[আরও পড়ুন:ফের একদিনে রেকর্ড বৃদ্ধি, করোনা সংক্রমণের নিরিখে ইটালিকে টপকে গেল ভারত]

তবে বিক্ষোভের আঁচ দেখেও নিজের অবস্থানে অনড় থাকতে চান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। এর আগেও প্রতিবাদীদের সম্পর্কে একাধিকবার ঘৃণ্য মন্তব্য করার পরও থেমে থাকেননি তিনি। বিক্ষোভকারীদের ‘গুলি করা’, ‘সেনা নামানো’-র হুঁশিয়ারির পর এবার তাঁদের ‘জঙ্গি’ তকমা দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। এ বার এমন একটি চিঠি তিনি শেয়ার করলেন যেখানে বিক্ষোভকারীদের ‘জঙ্গি’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে! প্রেসিডেন্টের এই আচরণের পর পরিস্থিতি আরও জটিল রূপ নেবে বলেই মনে করছেন অনেকে।

[আরও পড়ুন:করোনা মোকাবিলায় ব্যর্থ লকডাউন! ‘প্রমাণ’ হিসেবে পরিসংখ্যান দিলেন রাহুল]

ট্রাম্পের এক প্রাক্তন অ্যাটর্নি জন ডাউড একটি চিঠি লেখেন ট্রাম্পের প্রাক্তন প্রতিরক্ষা সচিব জিম ম্যাটিসকে। সেই চিঠিতেই প্রতিবাদকারীদের জঙ্গি তকমা দিয়ে লেখা হয়, “এই বিক্ষোভ একেবারেই শান্তিপূর্ণ নয়। কিছু জঙ্গি ছাত্রদের ব্যবহার করছে ধ্বংসলীলা চালানোর জন্য।” এই চিঠি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়তেই ফের বিক্ষোভের আগুন দাবানলের আকার ধারণ করে। অনেকে প্রেসিটডেন্টের দায়িত্বজ্ঞানহীনতা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement