BREAKING NEWS

১৭ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  রবিবার ৩১ মে ২০২০ 

Advertisement

পাকিস্তানের আশায় জল, আফগানিস্তান থেকে সরছে না মার্কিন ফৌজ

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: August 22, 2019 11:40 am|    Updated: August 22, 2019 3:09 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আফগানিস্তান থেকে সম্পূর্ণভাবে সেনা প্রত্যাহার করা হবে না৷ আগের অবস্থান থেকে একশো আশি ডিগ্রি ঘুরে নিজের সিদ্ধান্ত স্পষ্ট জানালেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ ফলে অদূর ভবিষ্যতে তালিবানের সঙ্গে শান্তি আলোচনা সফল হলেও, পাহাড়ি দেশটিতে মার্কিন নজরদারি থাকছেই৷   

[আরও পড়ুন: ভারতীয় দূতাবাসে হামলা, মোদিকে ফোন করে  দুঃখপ্রকাশ ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর]

মঙ্গলবার হোয়াইট হাউসের ওভাল অফিসে তালিবানের সঙ্গে শান্তিপ্রক্রিয়া প্রসঙ্গে ট্রাম্প বলেন, ‘পুরোপুরিভাবে আফগানিস্তান থকে সেনা প্রত্যাহার করা হবে না৷  সেখানে নজর রাখার জন্য সবসময় আমাদের কেউ না কেউ থাকবে৷’ প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সঙ্গে নানা বিষয়ে মতভেদ থাকলেও, আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার নিয়ে কার্যত একসুরেই কথা বলেছিলেন ট্রাম্প। প্রেসিডেন্ট পদের নির্বাচনেও আমেরিকার ইতিহাসে দীর্ঘতম যুদ্ধে ইতি টেনে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা ফরত আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন ট্রাম্প৷  তারপর দফায় দফায় যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশটি থেকে সৈন্য সংখ্যা কমিয়েছে ওয়াশিংটন৷      

এবার পুরোপুরিভাবে সেনা প্রত্যাহারের সম্ভাবনা খারিজ করে ট্রাম্প একাধিক বিকল্পের কথা বলেন। তাঁর কথায়, ‘একটি বিকল্প এখন কার্যকর হয়েছে। আমরা একটি পরিকল্পনার কথা বলেছি। জানি না, তালিবান  এটা মানবে কি না। আমাদের আলোচনা এখন ইতিবাচক। আগের প্রেসিডেন্টরা যা করেছিলেন, তার থেকে এটা ভাল।’ আফগানিস্তান নিয়ে যে কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া যে কঠিন, তা মেনে নিয়েছেন ট্রাম্প। তাঁর কথায়, ‘আফগানিস্তানের জন্যই সোভিয়েত ইউনিয়ন রাশিয়া হয়েছে।’ ১৮ বছর ধরে আফগানিস্তানে মোতায়েন রয়েছে মার্কিন সেনা। সেখানে সেনা কোনও যুদ্ধ করছে না, কার্যত পুলিশের কাজ করছে বলে উল্লেখ করে একে হাস্যকর বলেছেন তিনি।     

উল্লেখ্য, বর্তমানে পাহাড়ি দেশটিতে রয়েছে ৭ হাজার মার্কিন সেনা৷ তালিবানের বিরুদ্ধে লড়াই চালাচ্ছে তাঁরা৷ যদিও প্রায় এক দশকের বেশি লড়াই চললেও তালিবান জঙ্গিদের শায়েস্তা করা যায়নি৷ ফলে আপাতত আলোচনার পথেই হাঁটতে চাইছে আমেরিকা৷ কিন্তু আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা সরে গেলে তালিবান জঙ্গিদের কাশ্মীরের দিকে পাঠাতে সক্ষম হবে পাকিস্তান৷ সেক্ষেত্রে বিপদ বাড়বে ভারতের৷ ট্রাম্পের এই ঘোষণায় আপাতত পাকিস্তানের পরিকল্পনা বানচাল হয়ে গিয়েছে৷  একই সঙ্গে স্বস্তি পেয়েছে ভারত৷      

[আরও পড়ুন: ‘ভয়ানক সমস্যা চলছে’, কাশ্মীর ইস্যুতে ফের মধ্যস্থতার প্রস্তাব ট্রাম্পের]

     

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement