BREAKING NEWS

১৯ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ৫ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

ল্যাবে রয়েছে তিনটি সক্রিয় করোনা ভাইরাস, চাঞ্চল্যকর স্বীকারোক্তি চিনের

Published by: Monishankar Choudhury |    Posted: May 26, 2020 4:26 pm|    Updated: May 26, 2020 4:26 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আন্তর্জাতিক চাপের মুখে চাঞ্চল্যকর স্বীকারোক্তি চিনের। এবার বেজিং জানিয়েছে, তাদের গবেষণাগারে রয়েছে বাদুড় থেকে সংগৃহীত তিনটি সক্রিয় করোনা ভাইরাস। তবে সেগুলির সঙ্গে মারণ কোভিড-১৯-এর কোনও মিল নেই। কিন্তু সাফাই দিলেও অনেক কিছুই যে এখনও গোপন করছে দেশটি তা স্পষ্ট বলেই মত বিশ্লেষকদের।

[আরও পড়ুন: ‘প্রয়োজনে যুদ্ধ হবে’, সীমান্ত বিবাদ নিয়ে ভারতকে হুমকি পুঁচকে নেপালের]

আমেরিকা ও ইউরোপের বিভিন্ন দেশের অভিযোগের জবাবে চিন জানিয়েছে, ইউহানের ভাইরোলজি ল্যাবে বাদুড় থেকে সংগ্রহ করা তিনটি করোনা ভাইরাস রয়েছে। তবে সেগুলির সঙ্গে কোভিড-১৯-এর কোনও মিল নেই। ইউহান ভাইরোলজি ইনস্টিটিউটের ডিরেক্টর ওয়াং ইয়ানই সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, চিনের বিরুদ্ধে ভাইরাস ছড়িয়ে দেওয়ার যে অভিযোগ আমেরিকা ও ইউরোপার বিভিন্ন দেশ এনেছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। তাঁর কথায়, “আমাদের কাছে বাদুড় থেকে সংগৃহীত তিনটি করোনা ভাইরাস আছে। সেগুলি অত্যন্ত নিরাপদে পৃথকভাবে সংরক্ষিত রয়েছে। যদিও এগুলির সঙ্গে ‘সার্স সিওভি-২’-র মিল থাকার সম্ভাবনা বড়জোর ৭৯.৮ শতাংশ।

এদিকে, চিনের এই যুক্তি সহজে মানতে নারাজ বিশ্লেষকরা। চিনের তথ্য গোপন করার স্বভাব বিশ্বের কাছে নতুন কিছু নয়। সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, গত ১৩ মে রেকর্ড হওয়া ইউহানের ভাইরোলজি ল্যাবের ডিরেক্টরের এই সাক্ষাৎকার এতদিন পর কেন দেখানো হল, তার সদুত্তর অবশ্য দিতে পারেনি চিনা সংবাদমাধ্যম। গত বেশ কয়েকদিন ধরেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এবং মার্কিন বিদেশ সচিব মাইক পম্পেও বারবার চীনের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তুলেছেন। তাঁরা দাবি করেছেন, উহানের ভাইরোলজি ল্যাবরেটরি থেকেই করোনা ভাইরাস সমগ্র বিশ্বে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। তাঁদের কাছে এই দাবির পক্ষে পোক্ত প্রমাণও আছে।

উল্লেখ্য, বছরখানেকের বেশি সময় ধরে বাণিজ্য চুক্তি ঘিরে শি জিনপিং আর ট্রাম্পের মধ্যে সম্পর্কটা মোটেই ভাল যাচ্ছে না। এর মধ্যে থাবা বাড়িয়েছে করোনা। এখনও পর্যন্ত বিশ্বে সব থেকে বেশি মৃত্যুর সংখ্যা আমেরিকাতেই।  তাই বেজিংয়ের উপর লাগাতার চাপ তৈরি করছে ওয়াশিংটন। 

[আরও পড়ুন: WHO’র নিষেধাজ্ঞাকে থোড়াই কেয়ার! হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের ব্যবহার জারি রাখছে ব্রাজিল]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement