৩১ ভাদ্র  ১৪২৬  বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুকুমার সরকার, ঢাকা: স্নানের ছবি ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে ধর্ষণের হুমকি৷ তাতে অপমানিত হয়ে আত্মঘাতী হলেন এক তরুণী৷ বাড়ি থেকে তাঁর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হয়৷ মর্মান্তিক ঘটনায় ফুঁসছে বাংলাদেশের টামটা দক্ষিণ ইউনিয়ন৷ প্রতিবেশী যুবকের বিরুদ্ধে শাহরাস্তি থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে৷ তবে এখনও অধরা সে৷

[আরও পড়ুন: ফের অগ্নিগ্রাসে ঢাকা, পুড়ে ছাই অন্তত ৩ হাজার ঘর]

২০১৬ সালে তৌকির আহমেদ নামে এক যুবকের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন ওই তরুণী৷ পরিবারের সম্মতিতে বিয়েও হয় দু’জনের৷ তবে বর্তমানে কর্মসূত্রে ওই যুবক সৌদি আরবে থাকেন৷ গ্রামের বাড়িতে শাশুড়ির সঙ্গে থাকতেন ওই গৃহবধূ৷ গত ১১ আগস্ট তাঁর শাশুড়ি কেনাকাটা করতে হাজিগঞ্জ বাজারে যান৷ বাড়ির কাজ মিটিয়ে স্নান করে নেন তরুণী৷ সেই সময় হাসান পাটওয়ারি নামে এক প্রতিবেশী যুবক ওই গৃহবধূর কাছে আসে৷ সে তরুণীকে জানায় মোবাইলে নাকি গৃহবধূর স্নানের ভিডিও করে রেখেছে৷ অভিযোগ, এরপর বিষয়টি ধামাচাপা দিতে গৃহবধূর সঙ্গে যৌন সম্পর্ক স্থাপনের জন্য চাপ দেয় সে৷ ওই যুবক তরুণীকে ধর্ষণ করে বলেও অভিযোগ৷

[আরও পড়ুন: অবশেষে দেশে ফিরবেন রোহিঙ্গারা, খুশির হওয়া বাংলাদেশে]

ফোনে স্বামীকে গোটা ঘটনাটি জানান নির্যাতিতা৷ তবে লাগাতার হুমকি, ধর্ষণের অপমান সহ্য করতে পারেননি তিনি৷ মানসিক যন্ত্রণায় তাই গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেন তরুণী৷ গৃহবধূর শাশুড়ি শাহরাস্তি থানায় ঘটনার অভিযোগ দায়ের করেন৷ অভিযুক্ত হাসান পাটওয়ারির বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার মামলা রুজু করা হয়েছে৷ ঘটনার পর থেকে অধরা সে৷ মামলার পরিপ্রেক্ষিতে শাহরাস্তি থানার পুলিশ আধিকারিক শাহ আলম বলেন, ‘‘তরুণীর মৃত্যুর কারণ স্পষ্ট৷ আমরা জানতে পেরেছি,  মোবাইলে  তাঁর ছবি তোলার ফলেই অভিমানে আত্মঘাতী হয়েছেন তিনি৷’’

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং