৩১ ভাদ্র  ১৪২৬  বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুকুমার সরকার, ঢাকা: জাপান, সৌদি আরব ও ফিনল্যান্ড সফর রয়েছে। তাই ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পারছেন না শেখ হাসিনা। তবে এই সফর শেষে ঢাকা ফেরার পথে তিনি দিল্লি যেতে পারেন বলে জানা গিয়েছে। গত ২৩ মে অভাবনীয় ফলাফলের পর নরেন্দ্র মোদিকে ফোন করে অভিনন্দন জানান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তাঁর জয় দু’দেশের সম্পর্ক আরও দৃঢ় করবে বলেও আশাপ্রকাশ করেন।

আগামী ৮ জুন ফিনল্যান্ডের রাজধানী হেলসিঙ্কি থেকে ভোর ছটা নাগাদ তাঁর দিল্লি পৌঁছানোর কথা। আর সন্ধে ছ’টার পর দিল্লি থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেবেন তিনি। বাংলাদেশ প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে,  ১২ ঘণ্টার এই সফরে মোদির সঙ্গে দেখা করার পাশাপাশি আরও কয়েকটি কাজ মেটাতে পারেন হাসিনা। তবে এই সফরকে দু’দেশের প্রধানমন্ত্রীর সৌজন্যমূলক সাক্ষাৎ বলেই উল্লেখ করেছেন কূটনৈতিকরা।

[আরও পড়ুন- মুক্তিযোদ্ধাদের মতো রাজাকারদেরও তালিকা সংরক্ষণে উদ্যোগী হাসিনা প্রশাসন]

ইতিমধ্যে হাসিনার সঙ্গে মোদির সাক্ষাৎ-সহ তাঁর সংক্ষিপ্ত সফরসূচির জন্য প্রস্তুতি শুরু করেছেন দু’দেশের বিদেশ মন্ত্রকের আধিকারিকরা। এবিষয়ে আনুষ্ঠানিক প্রস্তাবও পাঠানো হয়েছে। আরও জানা গিয়েছে আগামী ৩০ মে নরেন্দ্র মোদির শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

[আরও পড়ুন- ভিসা নিয়ে তুঙ্গে দু’দেশের লড়াই, পাকিস্তানকে দুষছে বাংলাদেশ]

এপ্রসঙ্গে বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী আবদুল মোমিন বলেন, “২০১৪ সালে নরেন্দ্র মোদি যখন প্রথমবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছিলেন তখন জাপান সফরে ছিলেন হাসিনা। এবারও কাকতালীয় ভাবে শপথের সময় জাপানেই থাকছেন তিনি। গতবার তাঁর পরিবর্তে স্পিকার শিরীন শারমিন ওই অনুষ্ঠানে গিয়েছিলেন। কিন্তু, এবার স্পিকারও ব্যস্ত থাকছেন। তাই হাসিনা মন্ত্রিসভার বর্ষীয়ান সদস্য হিসেবে মোজাম্মেল হক যাচ্ছেন মোদির শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে।”

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং