৩০ শ্রাবণ  ১৪২৭  শনিবার ১৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

প্রসূতিকে মারধরের অভিযোগ, কাঠগড়ায় বাঁকুড়া মেডিক্যাল কলেজের মহিলা চিকিৎসক

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: January 14, 2020 2:29 pm|    Updated: January 14, 2020 2:31 pm

An Images

টিটুন মল্লিক, বাঁকুড়া: ফের কাঠগড়ায় চিকিৎসক। এবার প্রসূতিকে মারধরের অভিযোগ উঠল মহিলা চিকিৎসকের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে বাঁকুড়া মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। ইতিমধ্যেই নির্যাতিতার পরিবারের তরফে অভিযুক্ত চিকিৎসকের বিরুদ্ধে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ করা হয়েছে। খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

জানা গিয়েছে, সোমবার দুপুর ১১টা নাগাদ কুড়া সদর থানার অন্তর্গত ভিগুরডিহি গ্রামের বাসিন্দা আজমিরা খাতুনকে বাঁকুড়া মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। অভিযোগ, তাঁকে প্রসূতি বিভাগে নিয়ে যাওয়ার পর পরীক্ষা নিরীক্ষার সময় এক মহিলা চিকিৎসক বেধড়ক মারধর করে। কিন্তু সেই সময় পরিবারের সদস্যদের কিছুই জানাননি ওই বধূ। রাতেই হাসপাতালেই সন্তানের জন্ম দেন তিনি। মঙ্গলবার সকালে হঠাৎই ওই বধূর পরিবারের সদস্যরা তাঁর শরীরে আঘাতের চিহ্ন দেখতে পান। এরপরই নির্যাতিতা ওই বধূকে জিজ্ঞাসাবাদ করতেই গোটা বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। ওই বধূই জানান, সোমবার শারীরিক অবস্থা পরীক্ষা নিরীক্ষার সময় তাঁকে বেধড়ক মারধর করেছেন মহিলা চিকিৎসক।

[আরও পড়ুন: স্কুলের ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বর্শার ঘায়ে জখম খুদে পড়ুয়া, এসএসকেএমে সফল অস্ত্রোপচার]

বিষয়টি প্রকাশ্যে আসার পরই ক্ষোভে ফেটে পড়েন রোগীর পরিবারের সদস্যরা। ইতিমধ্যেই নির্যাতিতার পরিবারের তরফে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে গোটা বিষয়টি জানিয়ে অভিযোগ করা হয়েছে। এপ্রসঙ্গে বাঁকুড়া মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ পার্থপ্রতিম প্রধান জানিয়েছেন, এই ঘটনার তদন্ত করা হবে। প্রয়োজনে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হলে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যদিও এদিন চেষ্টা করা হলেও হাসপাতালের এমএসভিপির সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি। নির্যাতিতার পরিবারের দাবি অবিলম্বে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। প্রসঙ্গত, এই প্রথমবার নয়, অনেকক্ষেত্রেই চিকিৎসা করাতে হাসপাতালে গিয়ে অনভিপ্রেত পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয় রোগীদের। কখনও রোগীদের নির্যাতনে নাম জড়ায় চিকিৎসকদের। কখনও চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ তুলে সরব হন রোগীর আত্মীয়-পরিবজনরা। সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হল বাঁকুড়ায়।     

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement