BREAKING NEWS

২৫ চৈত্র  ১৪২৬  বুধবার ৮ এপ্রিল ২০২০ 

Advertisement

পোলবার পর ফের দুর্ঘটনার কবলে পুলকার, তবে এড়াল বড় বিপদ

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: February 17, 2020 1:26 pm|    Updated: February 17, 2020 1:28 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: পোলবা দুর্ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই ফের দুর্ঘটনার কবলে পুলকার। কলকাতা স্টেশনের কাছে পড়ুয়া বোঝাই একটি পুলকার স্কুটিতে ধাক্কা দেয়। যদিও বড় বিপদ থেকে রক্ষা পেয়েছে পড়ুয়ারা। তবে আতঙ্ক কাটছে না কিছুতেই। প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, পুলকারের গতি বেশি থাকায় এমন দুর্ঘটনা ঘটেছে। এদিকে, পোলবা থেকে শিক্ষা নিয়ে সপ্তাহের প্রথম দিন থেকেই শহর ও জেলাগুলির রাস্তায় পুলকারের গতি পরীক্ষার কাজ শুরু করেছেন ট্রাফিক সার্জেন্টরা।

সোমবার, সপ্তাহের প্রথম দিন পড়ুয়াদের নিয়ে স্কুলে যাওয়ার পথে ট্রাফিক পুলিশের পরীক্ষার মুখে পড়তে হল পুলকারগুলিকে। কসবায় গাড়ি থামিয়ে চলল গাড়ির গতি পরীক্ষা। এছাড়া হাওড়ার ইছাপুর এবং বীরভূমের বিভিন্ন রাস্তাতেও একইভাবে দেখে নেওয়া হল পুলকারগুলির ফিটনেস। দুর্ঘটনার পরই মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় নির্দেশ দিয়েছিলেন, পুলকারগুলির যাবতীয় তথ্য রাখতে হবে স্কুলগুলিকে। সেইমতো আজ পুলকার সংগঠনকে বৈঠকে ডেকেছেন পোলবার ওই বেসরকারি স্কুল কর্তৃপক্ষ। তার আগেই স্কুলে গিয়ে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে দেখা করেছেন চন্দননগরের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার।

[আরও পড়ুন: বিজেপির বাইক বাহিনীর ‘তাণ্ডবে’ ভাঙল ২ তৃণমূল কর্মীর বাড়ি, ফের উত্তপ্ত তুফানগঞ্জ]

বিভিন্ন জেলায় যখন পুলকার নিয়ে এত সচেতনতা, সেসময় উলটো ছবি দুর্গাপুরে। এখানে মোট কতগুলি পুলকার চলে, তার কোনও তথ্য হাতে নেই পুলিশের। নির্দেশ সত্ত্বেও সেই রিপোর্ট পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ পুলকার সংগঠকদের বিরুদ্ধে। এ নিয়ে আইনত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন মহকুমা পরিবহণ আধিকারিকের। তিনি বলেছেন, “সমস্ত পুলকারের তথ্য জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলাম। সেই তথ্য ধরে সমীক্ষা করা হবে। কিন্তু নির্দিষ্ট সময় পেরিয়ে গেলেও, তা জমা করা হয়নি। ফের জমা করতে বলা হবে। না হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে পুলকার সংগঠকদের বিরুদ্ধে।” এ বিষয়ে পুলকার সংগঠকদের কাছে জানতে চাওয়া হলে, তারা মুখে কুলুপ এঁটেছেন। পুলকার সংগঠনের সম্পাদক টোটন দাসকে দফায় দফায় ফোন করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। সবমিলিয়ে, সাম্প্রতিক পরিস্থিতিতে অভিভাবকদের চিন্তা বাড়ছে।

[আরও পড়ুন: চার সপ্তাহ ধরে বর্ধমান মেডিক্যালে পেসমেকারের জোগান বন্ধ, সংকটে বহু রোগী]

Advertisement

Advertisement

Advertisement