BREAKING NEWS

২৩ শ্রাবণ  ১৪২৭  রবিবার ৯ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

চ্যালেঞ্জ পূরণে ব্যর্থ, ফল ঘোষণার পরদিনই পদত্যাগের ইচ্ছাপ্রকাশ অনুব্রতর

Published by: Tanujit Das |    Posted: May 24, 2019 4:11 pm|    Updated: May 24, 2019 4:37 pm

An Images

ভাস্কর মুখোপাধ্যায় ও চন্দ্রশেখর চট্টোপাধ্যায়: লোকসভা নির্বাচনে খারাপ ফলের জের, ইস্তফা দেওয়ার ইচ্ছাপ্রকাশ করলেন তৃণমূলের দুই হেভিওয়েট নেতা ও তৃণমূলের দুই ভোট সেনাপতি৷ জেলা সভাপতির দায়িত্ব ছড়াতে চাইলেন বীরভূমের দোর্দণ্ডপ্রতাপ তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডল৷ এবং জেলা সভাপতির কাছে পদত্যাগপত্র পাঠালেন আসানসোলের মেয়র জিতেন্দ্র তেওয়ারি৷

[ আরও পড়ুন: আড়ালে থেকেই বিষ্ণুপরে তৃণমূলকে ধরাশায়ী করলেন বিজেপির সৌমিত্র]

রাজ্যে যখন তৃণমূলের ফল খারাপ, তখন বীরভূমের দুটি লোকসভা আসন নিজেদের দখলে রেখেছে শাসকদল। কিন্তু নির্বাচনী প্রচারে ওই দুই আসনে অর্থাৎ বোলপুরে ৪ লক্ষ এবং বীরভূম ৩ লক্ষেরও বেশি ভোটে জেতার চ্যালেঞ্জ নিয়েছিলেন তৃণমূলের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। তবে ফলাফল বের হতে অন্যচিত্র ধরা পড়ে৷ দেখা যায়, দুটি আসনেই খুব কম ভোটে জিতেছেন তৃণমূল প্রার্থীরা। সংখ্যাতত্ত্বের বিচারে ১১টি বিধানসভার মধ্যে একাধিক বিধানসভাতে কয়েকশো, বড়জোর কয়েক হাজার ভোটে লিড পেয়েছেন শাসকদলের প্রার্থীরা৷ যা দেখে রাজনৈতিক মহলের আশঙ্কা, আগামী বিধানসভা নির্বাচনে এই আসনগুলির বেশ কয়েকটি তৃণমূলের হাতছাড়া হতে পারে৷ একই অবস্থা জেলার বিভিন্ন পুরসভাগুলিতেও। পাঁচটি পুরসভার মধ্যে ৫০ শতাংশের বেশি ওয়ার্ডে তৃণমূল পিছিয়ে বলে সূত্রের খবর। যে জেলাকে নিজের হাতের তালুর মতো চেনেন অনুব্রত মণ্ডল, সেখানে দলের এই ফলাফলে যথেষ্ট ব্যথিত নেত্রীর প্রিয় কেষ্ট৷ তিনি জানান, ‘‘সিপিএমের ভোট এবং হিন্দু ভোট বিজেপিতে গিয়েছে। সেকারণেই যতটা ভাল ফল আশা করা হয়েছিল, ততটা ভাল ফল হয়নি। তাই জেলা সভাপতির পদে ছাড়ব ভাবছি।’’

[ আরও পড়ুন: ‘ভাল বন্ধু নৈহাটির বিধায়ক’, ভোটে জিতে জল্পনা উসকে দিলেন অর্জুন সিং ]

একদিকে বীরভূমে যখন জিতেও সভাপতির পদ ছাড়ার ইচ্ছাপ্রকাশ করেছেন অনুব্রত মণ্ডল, তখন আসানসোলে দলকে জেতাতে না পারায় মেয়রের পদ ছাড়তে চাইলেন জিতেন্দ্র তেওয়ারি৷ জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার রাতে নিজের ইস্তফাপত্র আসানসোলের তৃণমূল সভাপতি ভি শিবদাসন (দাসু)-র কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন তিনি৷ মেয়রের পদ থেকেও ইস্তফা দেওয়ার ইচ্ছাপ্রকাশ করেছেন৷ তবে এর নেপথ্যে আরও একটা কারণ রয়েছে বলেও গুঞ্জন আসানসোলে৷ জানা গিয়েছে, নির্বাচনী প্রচারে জামুরিয়ার একটি সভাতে জিতেন্দ্র তেওয়ারি দলের কর্মী-সমর্থকদের মুনমুন সেনকে জেতানোর চ্যালেঞ্জ দিয়েছিলেন৷ বলেছিলেন, যে কাউন্সিলর নিজের ওয়ার্ড থেকে তৃণমূল প্রার্থীকে পাঁচ হাজারেরও বেশি লিড দিতে পারবেন, তাঁদের এক কোটি টাকারও বেশি কাজ দেবেন৷ যদি না পারেন, তাহলে কাউন্সিলরদের পদত্যাগ করতে হবে বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন আসানসোলের মেয়র৷ জানিয়েছিলেন, মুনমুন সেন হারলে তিনি নিজেও পদত্যাগ করবেন৷ নিজের দেওয়া সেই কথা রাখতেই জিতেন্দ্র তিওয়ারি আসানসোলের মেয়র পদত্যাগের ইচ্ছাপ্রকাশ করেছে বলে মনে করা হচ্ছে৷ তবে বিয়টিকে কটাক্ষও করেছে বিরোধীরা৷ তাঁদের বক্তব্য, ‘‘যদি সত্যিই জিতেন্দ্র তেওয়ারির পদ ছাড়ার ইচ্ছা থাকত, তবে তিনি আসানসোল কর্পোরেশনের পুরকমিশনার খুরশিদ আলি কাদরির কাছে পদত্যাগপত্র জমা দিতেন৷ জেলা সভাপতির কাছে পদত্যাগপত্র পাঠাতেন না৷’’ অর্থাৎ বিষয়টি সম্পূর্ণ চোখে ধুলো দেওয়া বলেই মনে করছেন তাঁরা৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement